রাস্তায় কাতরাচ্ছিলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধ, অতপর...
jugantor
রাস্তায় কাতরাচ্ছিলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধ, অতপর...

  প্রান্ত সাহা বিভাস, কলমাকান্দা (নেত্রকোনা)  

১১ মার্চ ২০২১, ১৫:০৭:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

রাস্তায় কাতরাচ্ছিলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধ, অতপর...

রাস্তায় কাতরাচ্ছিলেন সত্তোরোর্ধ্ব অসুস্থ এক বৃদ্ধ। পথচারীরা তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসেন নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। তবে ওই বৃদ্ধ কোথা থেকে কীভাবে এই এলাকায় এলেন সে সম্পর্কে কিছুই বলতে পারছেন না। পরিচয় জিজ্ঞাসা করলে শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকেন।

নেত্রকোনার কলমাকান্দায় নাম-পরিচয়হীন এক বৃদ্ধকে নিয়ে বিপাকে পড়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তৃপক্ষ। গত রোববার ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অসুস্থ অবস্থায় তাকে নিয়ে আসেন পথচারীরা। এরপর থেকে তিনি সেখানে আছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, ওয়ার্ডের বারান্দায় ওই বৃদ্ধকে রাখা হয়েছে। বর্তমানে তার পাঁজরের হাঁড়গুলো চামড়ার সঙ্গে মিশে গেছে। আর পুষ্টিহীনতার কারণে মাংসের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে গেছে। বাম পায়ে পচন ধরেছে। নাম-পরিচয় কিছুই বলতে পারছেন না তিনি।

কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আল মামুন যুগান্তরকে বলেন, উপজেলার কোনো এক রাস্তার ধারে ওই ব্যক্তি অসুস্থ অবস্থায় পড়েছিলেন। পরে পথচারীরা তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসেন। তবে তিনি কোথা থেকে কীভাবে এই এলাকায় এলেন, তার কিছুই জানা যাচ্ছে না।

আর পথচারীরা তাকে হাসপাতালে রেখেই চলে গেছেন। তাই কোথা থেকে তাকে এনেছেন তার বিস্তারিত জানতে পারিনি।

ওই ব্যক্তির আশপাশের কয়েকজন রোগী জানান, তিনি কখনোই কারও সঙ্গে কথা বলেননি। বিড় বিড় করে কিছু একটা বলার চেষ্টা করেন। মলত্যাগ করছেন বিছানায়। চারদিক দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছিল। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে পরিষ্কার পরিছন্ন রাখতে ওয়ার্ডের বারান্দায় স্থানান্তর করেন। আর তাকে সেখানেই চিকিৎসা দিচ্ছেন।

হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ নার্স রিনি ঘাগ্রা যুগান্তরকে বলেন, হাসপাতালে আনার পর অনেকে তার কাছে ভিড়তে চায়নি। আমরা তাকে নিয়মিত গোসল ও খাবার দিয়ে সুস্থ করার চেষ্টা করছি। ডাক্তারের নির্দেশনা অনুসারে তার চিকিৎসার জন্য যে ধরনের প্রেসক্রাইব করা আছে সে অনুযায়ী চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আল মামুন যুগান্তরকে বলেন, ঠিকানা না জানায় ওই ব্যক্তির স্বজনদের খবর দেওয়া যাচ্ছে না। কিন্তু এভাবে আর কত দিন? শুরু থেকে রোগীর অবস্থার উন্নতি পরিলক্ষিত হচ্ছে না। রোগীর পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ আরও উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন রয়েছে। যেটা আমরা এখানে দিতে পারছি না। এখন দ্রুত তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা দরকার।

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকেও বিষয়টি জানানো হয়েছে। এ জন্য তিনি গণমাধ্যমের সহায়তা কামনা করেছেন।

কলমাকান্দা উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা রেজাউল করীম যুগান্তরকে বলেন, রোগীকল্যাণ সমিতি থেকে ওই বৃদ্ধার জন্য ওষুধপত্রসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

রাস্তায় কাতরাচ্ছিলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধ, অতপর...

 প্রান্ত সাহা বিভাস, কলমাকান্দা (নেত্রকোনা) 
১১ মার্চ ২০২১, ০৩:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রাস্তায় কাতরাচ্ছিলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধ, অতপর...
ছবি: যুগান্তর

রাস্তায় কাতরাচ্ছিলেন সত্তোরোর্ধ্ব অসুস্থ এক বৃদ্ধ। পথচারীরা তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসেন নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। তবে ওই বৃদ্ধ কোথা থেকে কীভাবে এই এলাকায় এলেন সে সম্পর্কে  কিছুই বলতে পারছেন না। পরিচয় জিজ্ঞাসা করলে শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকেন।

নেত্রকোনার কলমাকান্দায় নাম-পরিচয়হীন এক বৃদ্ধকে নিয়ে বিপাকে পড়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তৃপক্ষ। গত রোববার ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অসুস্থ অবস্থায় তাকে নিয়ে আসেন পথচারীরা। এরপর থেকে তিনি সেখানে আছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায়, ওয়ার্ডের বারান্দায় ওই বৃদ্ধকে রাখা হয়েছে। বর্তমানে তার পাঁজরের হাঁড়গুলো চামড়ার সঙ্গে মিশে গেছে। আর পুষ্টিহীনতার কারণে মাংসের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে গেছে।  বাম পায়ে পচন ধরেছে।  নাম-পরিচয় কিছুই বলতে পারছেন না তিনি।

কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আল মামুন যুগান্তরকে বলেন, উপজেলার কোনো এক রাস্তার ধারে ওই ব্যক্তি অসুস্থ অবস্থায় পড়েছিলেন। পরে পথচারীরা তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসেন। তবে তিনি কোথা থেকে কীভাবে এই এলাকায় এলেন, তার কিছুই জানা যাচ্ছে না।

আর পথচারীরা তাকে হাসপাতালে রেখেই চলে গেছেন। তাই কোথা থেকে তাকে এনেছেন তার বিস্তারিত জানতে পারিনি।

ওই ব্যক্তির আশপাশের কয়েকজন রোগী জানান, তিনি কখনোই কারও সঙ্গে কথা বলেননি। বিড় বিড় করে কিছু একটা বলার চেষ্টা করেন। মলত্যাগ করছেন বিছানায়। চারদিক দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছিল। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে পরিষ্কার পরিছন্ন রাখতে ওয়ার্ডের বারান্দায় স্থানান্তর করেন। আর তাকে সেখানেই চিকিৎসা দিচ্ছেন।

হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ নার্স রিনি ঘাগ্রা যুগান্তরকে বলেন, হাসপাতালে আনার পর অনেকে তার কাছে ভিড়তে চায়নি। আমরা তাকে নিয়মিত গোসল ও খাবার দিয়ে সুস্থ করার চেষ্টা করছি। ডাক্তারের নির্দেশনা অনুসারে তার চিকিৎসার জন্য যে ধরনের প্রেসক্রাইব করা আছে সে অনুযায়ী চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আল মামুন যুগান্তরকে বলেন, ঠিকানা না জানায় ওই ব্যক্তির স্বজনদের খবর দেওয়া যাচ্ছে না। কিন্তু এভাবে আর কত দিন? শুরু থেকে রোগীর অবস্থার উন্নতি পরিলক্ষিত হচ্ছে না। রোগীর পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ আরও উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন রয়েছে। যেটা আমরা এখানে দিতে পারছি না। এখন দ্রুত তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা দরকার।

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকেও বিষয়টি জানানো হয়েছে। এ জন্য তিনি গণমাধ্যমের সহায়তা কামনা করেছেন।

কলমাকান্দা উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা রেজাউল করীম যুগান্তরকে বলেন, রোগীকল্যাণ সমিতি থেকে ওই বৃদ্ধার জন্য ওষুধপত্রসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন