কুমিল্লায় বাসে বিস্ফোরণে নিহত ২ (ভিডিও)
jugantor
কুমিল্লায় বাসে বিস্ফোরণে নিহত ২ (ভিডিও)

  কুমিল্লা ব্যুরো ও ঢামেক প্রতিনিধি  

১১ মার্চ ২০২১, ১৯:৪৬:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার দাউদকান্দির গৌরীপুরে যাত্রীবাহী বাসে আগুন লেগে দগ্ধ হয়ে দুইজন নিহত হয়েছেন। অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন অন্তত ১৪ জন। দগ্ধসহ আহত হয়েছেন ২১ জন। আগুনে দগ্ধ ১৪ জনকে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের গৌরীপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গৌরীপুর বাসস্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় ঢাকা থেকে মতলবগামী একটি বাস সিলিন্ডারে গ্যাস নেয়ার পর দাউদকান্দি গৌরীপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ইউটার্ন নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে বাসটিতে হঠাৎ করেই আগুন লেগে যায়। আতঙ্কিত হয়ে বাসের চালক ও হেলপার নেমে গেলেও হুড়োহুড়ির মধ্যে যাত্রীরা অগ্নিদগ্ধ হয়।

এতে ঘটনাস্থলেই দাউদকান্দি উপজেলার তিনপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম (৬৫) ও বন্যাকান্দি গ্রামের সাইফুলের পুত্র শাফিন (৫) নিহত হয়।

পরে স্থানীয় ও ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিভিয়ে অন্য যাত্রীদের উদ্ধার করে এবং অগ্নিদগ্ধদের ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে পাঠায়।

দাউদকান্দি থানার ওসি মো. নজরুল ইসলাম জানান, তাৎক্ষণিকভাবে বাসটি থেকে দুইজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আগুন লাগার কারণ এখনো জানা যায়নি।

স্থানীয়রা বলছেন, বাসটিতে আগুন লাগার পূর্বে সিএনজি গ্যাস নিয়েছিল। সিলিন্ডার লিক থেকেও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে।

এদিকেশেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট সূত্র জানায়,সোমবার রাতে ৮টা থেকে সাড়ে নয়টা পর্যন্ত দগ্ধ ১৪ জন ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে দুই পরিবারের ১১ জন রয়েছেন। এক পরিবারের তিনজন ও অন্য পরিবারের ৮জন রয়েছেন।

ভর্তি হওয়া দগ্ধরা হলেন গোলাম হোসেন (৭৫), তার নাতনি সানজানা (১৩) মেয়ে শাহিনুর (৩২)। এছাড়া অন্য দগ্ধরা হলেন মিজান তালুকদার (৪৫) ওমর ফারুক (৫১)।শামছুন নাহার (৬৫ ) নুরুল ইসলাম(৭৫), মুগদা জেনারেল হাসপাতালের নার্স মহাসিনা (৩৮), তাহিয়া (১০), তাসফিয়া (৬), আবদুর রহিম (৬০), হালিমা খাতুন (৬১), উজ্জ্বল মিয়াসহ (৪০), মুনসুর আহমেদ (২৩)।

বাস থেকে জানালা দিয়ে বেঁচে আসা শাহিনুর জানিয়েছেন, ঢাকার আরামবাগ থেকে মতলব যাওয়ার পথে গৌরীপুরে এলাকায় ঘটনা। তার দাবি পুরো ঘটনাটির জন্য চালকই দায়ী। তিনি সিটিংয়ের চেয়ে বেশী লোক উঠিয়েছিলেন।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সুলতান মাহমুদ ও সহকারী অধ্যাপক ডা. মামুন খান জানিয়েছেন, ১৩ জন রোগীর মধ্যে একজনের অবস্থা আশংকাজনক। তার শরীরের ৩১ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে গোলাম হোসেন (৭৫) ।

বাকিদের শরীরের ১ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত দগ্ধ হয়েছে। তাদের কাউকে চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হবে, কাউকে অবজারভেশনে রাখা হবে।

কুমিল্লায় বাসে বিস্ফোরণে নিহত ২ (ভিডিও)

 কুমিল্লা ব্যুরো ও ঢামেক প্রতিনিধি 
১১ মার্চ ২০২১, ০৭:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার দাউদকান্দির গৌরীপুরে যাত্রীবাহী বাসে আগুন লেগে দগ্ধ হয়ে দুইজন নিহত হয়েছেন। অগ্নিদগ্ধ হয়েছেন অন্তত ১৪ জন। দগ্ধসহ আহত হয়েছেন ২১ জন। আগুনে দগ্ধ ১৪ জনকে শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের গৌরীপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গৌরীপুর বাসস্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় ঢাকা থেকে মতলবগামী একটি বাস সিলিন্ডারে গ্যাস নেয়ার পর দাউদকান্দি গৌরীপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ইউটার্ন নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে বাসটিতে হঠাৎ করেই আগুন লেগে যায়। আতঙ্কিত হয়ে বাসের চালক ও হেলপার নেমে গেলেও হুড়োহুড়ির মধ্যে যাত্রীরা অগ্নিদগ্ধ হয়।

এতে ঘটনাস্থলেই দাউদকান্দি উপজেলার তিনপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম (৬৫) ও বন্যাকান্দি গ্রামের সাইফুলের পুত্র শাফিন (৫) নিহত হয়।

পরে স্থানীয় ও ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিভিয়ে অন্য যাত্রীদের উদ্ধার করে এবং অগ্নিদগ্ধদের ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে পাঠায়।

দাউদকান্দি থানার ওসি মো. নজরুল ইসলাম জানান, তাৎক্ষণিকভাবে বাসটি থেকে দুইজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আগুন লাগার কারণ এখনো জানা যায়নি।

স্থানীয়রা বলছেন, বাসটিতে আগুন লাগার পূর্বে সিএনজি গ্যাস নিয়েছিল। সিলিন্ডার লিক থেকেও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে।

এদিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট সূত্র জানায়, সোমবার রাতে ৮টা থেকে সাড়ে নয়টা পর্যন্ত দগ্ধ ১৪ জন ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে দুই পরিবারের ১১ জন রয়েছেন। এক পরিবারের তিনজন ও অন্য পরিবারের ৮জন রয়েছেন।

ভর্তি হওয়া দগ্ধরা হলেন গোলাম হোসেন (৭৫), তার নাতনি সানজানা (১৩) মেয়ে শাহিনুর (৩২)। এছাড়া অন্য দগ্ধরা হলেন মিজান তালুকদার  (৪৫) ওমর ফারুক (৫১)।শামছুন নাহার (৬৫ ) নুরুল ইসলাম(৭৫), মুগদা জেনারেল হাসপাতালের নার্স মহাসিনা (৩৮), তাহিয়া (১০), তাসফিয়া (৬), আবদুর রহিম (৬০), হালিমা খাতুন (৬১), উজ্জ্বল মিয়াসহ (৪০),  মুনসুর আহমেদ (২৩)।

বাস থেকে জানালা দিয়ে বেঁচে আসা শাহিনুর জানিয়েছেন, ঢাকার আরামবাগ থেকে মতলব যাওয়ার পথে গৌরীপুরে এলাকায় ঘটনা। তার দাবি পুরো ঘটনাটির জন্য চালকই দায়ী। তিনি সিটিংয়ের চেয়ে বেশী লোক উঠিয়েছিলেন।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সুলতান মাহমুদ ও সহকারী অধ্যাপক ডা. মামুন খান জানিয়েছেন, ১৩ জন রোগীর মধ্যে একজনের অবস্থা আশংকাজনক।  তার শরীরের ৩১ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে গোলাম হোসেন (৭৫) । 

বাকিদের শরীরের ১ থেকে ১০ শতাংশ পর্যন্ত দগ্ধ হয়েছে। তাদের কাউকে চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হবে, কাউকে অবজারভেশনে রাখা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন