ভোলায় বাবা হত্যা মামলায় ছেলের ফাঁসি
jugantor
ভোলায় বাবা হত্যা মামলায় ছেলের ফাঁসি

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ভোলা  

১৮ মার্চ ২০২১, ১৪:১৪:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলায় বাবা হত্যা মামলায় ছেলের ফাঁসি

ভোলায় চাঞ্চল্যকর বাবা হত্যা মামলায় ছেলে আবু সায়েদ ওরফে সাঈদকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ সময় আসামিকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে ভোলা জেলা ও দায়রা জজ এবিএম মাহমুদুল হক পেনাল কোডের ৩০২ ধারা মোতাবেক এ আদেশ দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ভোলা সদর উপজেলার ইলিশা ইউনিয়নের চরআনন্দ পার্ট-১ গ্রামের বাসিন্দা।

মামলার রায়ে তিনি উল্লেখ করেন, আসামি আবু সায়েদ গত ২০১৭ সালের ২৩ আগস্ট বিকালে বসতবাড়িতে তার বাবা আব্দুল মুনাফ সাজিকে পথরোধ করে হত্যার উদ্দেশ্যে পেছন দিক থেকে লোহার সাবল দিয়ে মাথায় আঘাত করে।

পরে তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা অবনতি হলে চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল মেডিকেলে পাঠায়। বরিশাল থেকে ২৪ আগস্ট তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে নেওয়ার পথে আব্দুল মুনাফ সাজির মৃত্যু হয়।

পরে ২৫ আগস্ট নিহতের অপর ছেলে আ. রব বাদী হয়ে আবু সায়েদের বিরুদ্ধে ভোলা থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে মামলার আলোকে পুলিশ আসামি আবু সায়েদকে আটক করে।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে ১০ সাক্ষীকে আদালতে উপস্থিত করা হয়। তাদের সাক্ষ্য পর্যালোচনা করে আসামি আবু সায়েদ ওরফে সাঈদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আদালত পেনাল কোড ১৮৬০-এর ৩০২ ধারা মোতাবেক এ আদেশ প্রদান করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দ আশরাফ হোসেন লাভু জানান, মামলাটি দীর্ঘ প্রায় সাড়ে তিন বছর বিচারকার্য পরিচালনার পর আজ একটি ঐতিহাসিক রায় হয়েছে। রায়ে আমরা খুশি।

মামলার আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট স্বপন কৃষ্ণ দে জানান, আসামি ন্যায়বিচার পায়নি। তাই আমরা উচ্চ আদালতে যাব।

ভোলায় বাবা হত্যা মামলায় ছেলের ফাঁসি

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ভোলা 
১৮ মার্চ ২০২১, ০২:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভোলায় বাবা হত্যা মামলায় ছেলের ফাঁসি
ছবি: যুগান্তর

ভোলায় চাঞ্চল্যকর বাবা হত্যা মামলায় ছেলে আবু সায়েদ ওরফে সাঈদকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এ সময় আসামিকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে ভোলা জেলা ও দায়রা জজ এবিএম মাহমুদুল হক পেনাল কোডের ৩০২ ধারা মোতাবেক এ আদেশ দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ভোলা সদর উপজেলার ইলিশা ইউনিয়নের চরআনন্দ পার্ট-১ গ্রামের বাসিন্দা।

মামলার রায়ে তিনি উল্লেখ করেন, আসামি আবু সায়েদ গত ২০১৭ সালের ২৩ আগস্ট বিকালে বসতবাড়িতে তার বাবা আব্দুল মুনাফ সাজিকে পথরোধ করে হত্যার উদ্দেশ্যে পেছন দিক থেকে লোহার সাবল দিয়ে মাথায় আঘাত করে।

পরে তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার অবস্থা অবনতি হলে চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল মেডিকেলে পাঠায়। বরিশাল থেকে ২৪ আগস্ট তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে নেওয়ার পথে আব্দুল মুনাফ সাজির মৃত্যু হয়।

পরে ২৫ আগস্ট নিহতের অপর ছেলে আ. রব বাদী হয়ে আবু সায়েদের বিরুদ্ধে ভোলা থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে মামলার আলোকে পুলিশ আসামি আবু সায়েদকে আটক করে।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে ১০ সাক্ষীকে আদালতে উপস্থিত করা হয়। তাদের সাক্ষ্য পর্যালোচনা করে আসামি আবু সায়েদ ওরফে সাঈদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আদালত পেনাল কোড ১৮৬০-এর ৩০২ ধারা মোতাবেক এ আদেশ প্রদান করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দ আশরাফ হোসেন লাভু জানান, মামলাটি দীর্ঘ প্রায় সাড়ে তিন বছর বিচারকার্য পরিচালনার পর আজ একটি ঐতিহাসিক রায় হয়েছে। রায়ে আমরা খুশি।

মামলার আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট স্বপন কৃষ্ণ দে জানান, আসামি ন্যায়বিচার পায়নি। তাই আমরা উচ্চ আদালতে যাব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন