করোনা কেড়ে নিল সাংবাদিকের প্রাণ
jugantor
করোনা কেড়ে নিল সাংবাদিকের প্রাণ

  নরসিংদী প্রতিনিধি  

২৪ মার্চ ২০২১, ২২:৩১:০৭  |  অনলাইন সংস্করণ

নরসিংদীতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাবেক দপ্তর সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন (৫৩)। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে নরসিংদী সদরের ভেলানগরের নিজ বাসা থেকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। ১৬ মার্চ তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন নরসিংদীর স্থানীয় পত্রিকা নরসিংদীর খবরের বার্তা সম্পাদক হিসেবে দীর্ঘ ৩০ বছর দায়িত্ব পালন করেছেন। তাছাড়া তিনি দৈনিক সমাচারের নরসিংদী জেলা প্রতিনিধির দায়িত্বে ছিলেন।

পরিবারের লোকজন জানায়, দীর্ঘদিন ধরেই তিনি কিডনি জটিলতা, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ছিলেন। সর্বশেষ গত ১৬ মার্চ তার করোনা পজিটিভ আসে। তার আগে তিনি ২৫ ফেব্রুয়ারি করোনার টিকা নিয়েছিলেন। টিকা নেওয়ার পর থেকেই জ্বরে আক্রান্ত হন। এরপর বাসা থেকে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতে তিনি বুকে ব্যথা অনুভব করেন। কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই স্ট্রোক করেন। এ সময় হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। বুধবার বেলা ১১টায় তরোয়া ঈদগাহ ময়দানে তার জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল পারভেজ মন্টি বলেন, সচেতন না হলে আধাঘণ্টার মধ্যেই প্রাণ যাবে রোগীর। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করার আধাঘণ্টা আগেও খুব বেশি অসুস্থতা বোধ করেননি সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন। তাহলে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা কেন ঘটল? গত ২৫ ফেব্রুয়ারি তিনি প্রথম করোনা টিকা গ্রহণ করেন। টিকা গ্রহণের পরদিন শরীর গরম ও ব্যথা অনুভূত হয়।

এ ব্যাপারে জেলা হাসপাতালের মেডিসিন কনসালটেন্ট ডা. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ফুসফুসে অথবা হার্টে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার কারণে আধাঘণ্টার মধ্যেই পেশেন্ট মারা গেছেন। এ অবস্থায় আসলে চিকিৎসকেরও তেমন আর কিছু করার থাকে না। সুতরাং করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঘরে বসে চিকিৎসা না নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নেয়াই উত্তম। করোনা আক্রান্ত হয়ে সবসময় ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে থাকলে এমনটি হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিলে রক্ত যাতে জমাট না বাঁধে বা রক্ত পাতলা রাখার জন্য ইনজেকশন ও ট্যাবলেট প্রদান করেন চিকিৎসকরা।

তিনি আরও বলেন,আপনি অথবা আপনার আশপাশে যে কেউ আক্রান্ত হতে পারেন। কিন্তু আক্রান্ত হলেই মৃত্যু নয়। ঘরে বসে না থেকে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

করোনা কেড়ে নিল সাংবাদিকের প্রাণ

 নরসিংদী প্রতিনিধি 
২৪ মার্চ ২০২১, ১০:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নরসিংদীতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাবেক দপ্তর সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন (৫৩)। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে নরসিংদী সদরের ভেলানগরের নিজ বাসা থেকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। ১৬ মার্চ তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন নরসিংদীর স্থানীয় পত্রিকা নরসিংদীর খবরের বার্তা সম্পাদক হিসেবে দীর্ঘ ৩০ বছর দায়িত্ব পালন করেছেন। তাছাড়া তিনি দৈনিক সমাচারের নরসিংদী জেলা প্রতিনিধির দায়িত্বে ছিলেন।

পরিবারের লোকজন জানায়, দীর্ঘদিন ধরেই তিনি কিডনি জটিলতা, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত ছিলেন। সর্বশেষ গত ১৬ মার্চ তার করোনা পজিটিভ আসে। তার আগে তিনি ২৫ ফেব্রুয়ারি করোনার টিকা নিয়েছিলেন। টিকা নেওয়ার পর থেকেই জ্বরে আক্রান্ত হন। এরপর বাসা থেকে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতে তিনি বুকে ব্যথা অনুভব করেন। কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই স্ট্রোক করেন। এ সময় হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। বুধবার বেলা ১১টায় তরোয়া ঈদগাহ ময়দানে তার জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল পারভেজ মন্টি বলেন, সচেতন না হলে আধাঘণ্টার মধ্যেই প্রাণ যাবে রোগীর। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করার আধাঘণ্টা আগেও খুব বেশি অসুস্থতা বোধ করেননি সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন। তাহলে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা কেন ঘটল? গত ২৫ ফেব্রুয়ারি তিনি প্রথম করোনা টিকা গ্রহণ করেন। টিকা গ্রহণের পরদিন শরীর গরম ও ব্যথা অনুভূত হয়।
 
এ ব্যাপারে জেলা হাসপাতালের মেডিসিন কনসালটেন্ট ডা. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ফুসফুসে অথবা হার্টে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার কারণে আধাঘণ্টার মধ্যেই পেশেন্ট মারা গেছেন। এ অবস্থায় আসলে চিকিৎসকেরও তেমন আর কিছু করার থাকে না। সুতরাং করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঘরে বসে চিকিৎসা না নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নেয়াই উত্তম। করোনা আক্রান্ত হয়ে সবসময় ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে থাকলে এমনটি হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিলে রক্ত যাতে জমাট না বাঁধে বা রক্ত পাতলা রাখার জন্য ইনজেকশন ও ট্যাবলেট প্রদান করেন চিকিৎসকরা।

তিনি আরও বলেন,আপনি অথবা আপনার আশপাশে যে কেউ আক্রান্ত হতে পারেন। কিন্তু আক্রান্ত হলেই মৃত্যু নয়। ঘরে বসে না থেকে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন