‘আত্মরক্ষার্থে’ পুলিশের গুলি, যুবকের মৃত্যু
jugantor
‘আত্মরক্ষার্থে’ পুলিশের গুলি, যুবকের মৃত্যু

  ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর) প্রতিনিধি  

০২ এপ্রিল ২০২১, ১৯:২৬:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

নিহত যুবক

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে পুলিশের গুলিতে আহত যুবক রুবেল শাহ (৩০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

শুক্রবার সকালে ঢাকায় শ্যামলীর রে মেডিকেয়ার নামে বেসরকারি একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। মৃত রুবেল শাহর ছোটভাই মুরাদ শাহ মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ১২ মার্চ সন্ধ্যায় রুবেল শাহকে গ্রেফতার করতে তার গ্রামের বাড়ি ফরিদগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম লাড়ুয়া এলাকায় যায় একদল পুলিশ।

তখন পুলিশ দাবি করেছিল, আসামি রুবেল শাহকে গ্রেফতার করতে গেলে সে পুলিশের ওপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এ সময় আত্মরক্ষায় পুলিশ গুলি করলে সে গুরুতর আহত হয়। এ সময় এএসআই জামশেদ ও এএসআই শফিক নামে দুজন পুলিশ কর্মকর্তা আহত হন।

উপজেলার পশ্চিম লাড়ুয়া গ্রামের নজরুল শাহর ছেলে মো. রুবেলের বিরুদ্ধে হাইমচরে প্রধানমন্ত্রীর সফরকালে তাকে হুমকিসহ একই থানায় ছয়টি মামলা রয়েছে।

গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রুবেলকে উদ্ধার করে প্রথমে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তার পরিবার উন্নত চিকিৎসার জন্য শ্যামলী এলাকায় রে মেডিকেয়ার নামে বেসরকারি একটি হাসপাতালে ভর্তি করেন।

রুবেলের ছোটভাই মুরাদ শাহ জানান, তার ভাইকে বিনাকারণে পুলিশ গুলি করে হত্যা করেছে। রুবেল শাহের পিঠের ডান পাশ দিয়ে গুলি ঢুকে বুকের সামনে দিকে বের হয়ে যায়।

এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো. বাহার মিয়া বলেন, পুলিশ রুবেলকে গ্রেফতার করার পর সে পুলিশের কাছ থেকে ছুটে গিয়ে ধারালো অস্ত্র এনে হামলা চালানোর চেষ্টা করে। এ সময় আত্মরক্ষার্থে তাকে গুলি করা হয়।

‘আত্মরক্ষার্থে’ পুলিশের গুলি, যুবকের মৃত্যু

 ফরিদগঞ্জ (চাঁদপুর) প্রতিনিধি 
০২ এপ্রিল ২০২১, ০৭:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নিহত যুবক
নিহত যুবক। ছবি: সংগৃহীত

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে পুলিশের গুলিতে আহত যুবক রুবেল শাহ (৩০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

শুক্রবার সকালে ঢাকায় শ্যামলীর রে মেডিকেয়ার নামে বেসরকারি একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। মৃত রুবেল শাহর ছোটভাই মুরাদ শাহ মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ১২ মার্চ সন্ধ্যায় রুবেল শাহকে গ্রেফতার করতে তার গ্রামের বাড়ি ফরিদগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম লাড়ুয়া এলাকায় যায় একদল পুলিশ।

তখন পুলিশ দাবি করেছিল, আসামি রুবেল শাহকে গ্রেফতার করতে গেলে সে পুলিশের ওপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এ সময় আত্মরক্ষায় পুলিশ গুলি করলে সে গুরুতর আহত হয়। এ সময় এএসআই  জামশেদ ও এএসআই  শফিক নামে দুজন পুলিশ কর্মকর্তা আহত হন।

উপজেলার পশ্চিম লাড়ুয়া গ্রামের নজরুল শাহর ছেলে মো. রুবেলের বিরুদ্ধে হাইমচরে প্রধানমন্ত্রীর সফরকালে তাকে হুমকিসহ একই থানায় ছয়টি মামলা রয়েছে।

গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রুবেলকে উদ্ধার করে প্রথমে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তার পরিবার উন্নত চিকিৎসার জন্য শ্যামলী এলাকায় রে মেডিকেয়ার নামে বেসরকারি একটি হাসপাতালে ভর্তি করেন।

রুবেলের ছোটভাই মুরাদ শাহ জানান, তার ভাইকে বিনাকারণে পুলিশ গুলি করে হত্যা করেছে। রুবেল শাহের পিঠের ডান পাশ দিয়ে গুলি ঢুকে বুকের সামনে দিকে বের হয়ে যায়।

এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো. বাহার মিয়া বলেন, পুলিশ রুবেলকে গ্রেফতার করার পর সে পুলিশের কাছ থেকে ছুটে গিয়ে ধারালো অস্ত্র এনে হামলা চালানোর চেষ্টা করে। এ সময় আত্মরক্ষার্থে তাকে গুলি করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন