রংপুর মেডিকেলে ইন্টার্নদের ধর্মঘটে ভোগান্তিতে রোগীরা
jugantor
রংপুর মেডিকেলে ইন্টার্নদের ধর্মঘটে ভোগান্তিতে রোগীরা

  রংপুর ব্যুরো  

০৪ এপ্রিল ২০২১, ২২:২৭:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুর মেডিকেলে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের গত ১৮ ঘণ্টা ধরে অঘোষিত ধর্মঘট চলায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে রোগীরা। রোগীর স্বজনদের দুর্ব্যবহারের প্রতিবাদে চিকিৎসকরা পূর্বঘোষণা ছাড়াই ধর্মঘট পালন করে আসছেন। রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত দ্বিতীয় দিনে মতো ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে।

শনিবার দুপুর থেকে শুরু হওয়া ধর্মঘট দ্বিতীয় দিনেও চলছে। চিকিৎসকরা মেডিকেল ছেড়ে যাওয়ার ফলে চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন শত শত রোগী ও তাদের স্বজনরা।

রোগী ও তাদের স্বজনরা জানান, হাসপাতালে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ধর্মঘট ডাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। মূলত ইন্টার্নদের ওপরই ভর্তি রোগীদের চিকিৎসা নির্ভর করায় তাদের অনুপস্থিতে পুরো চিকিৎসা ব্যবস্থার ওপর এর প্রভাব পড়েছে।

শুক্রবার রাতে শিশু ওয়ার্ডে একজন রোগীর স্বজনদের সঙ্গে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে রোববার দুপুর ২টা পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় কিছু না জানিয়ে তারা শনিবার দুপুর থেকে হাসপাতাল ছেড়ে যায়। এ ব্যাপারে বিভিন্নভাবে ইন্টার্নদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. রেজাউল করিম গণমাধ্যমকে জানান, এখন পর্যন্ত ইন্টার্নদের ধর্মঘটের তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি। তবে তাদের ধর্মঘট অব্যাহত হলে সমস্যা সৃষ্টি হবে।

রংপুর মেডিকেলে ইন্টার্নদের ধর্মঘটে ভোগান্তিতে রোগীরা

 রংপুর ব্যুরো 
০৪ এপ্রিল ২০২১, ১০:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুর মেডিকেলে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের গত ১৮ ঘণ্টা ধরে অঘোষিত ধর্মঘট চলায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে রোগীরা। রোগীর স্বজনদের দুর্ব্যবহারের প্রতিবাদে চিকিৎসকরা পূর্বঘোষণা ছাড়াই ধর্মঘট পালন করে আসছেন। রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত দ্বিতীয় দিনে মতো ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে।

শনিবার দুপুর থেকে শুরু হওয়া ধর্মঘট দ্বিতীয় দিনেও চলছে। চিকিৎসকরা মেডিকেল ছেড়ে যাওয়ার ফলে চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন শত শত রোগী ও তাদের স্বজনরা।

রোগী ও তাদের স্বজনরা জানান, হাসপাতালে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ধর্মঘট ডাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। মূলত ইন্টার্নদের ওপরই ভর্তি রোগীদের চিকিৎসা নির্ভর করায় তাদের অনুপস্থিতে পুরো চিকিৎসা ব্যবস্থার ওপর এর প্রভাব পড়েছে।

শুক্রবার রাতে শিশু ওয়ার্ডে একজন রোগীর স্বজনদের সঙ্গে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে রোববার দুপুর ২টা পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় কিছু না জানিয়ে তারা শনিবার দুপুর থেকে হাসপাতাল ছেড়ে যায়। এ ব্যাপারে বিভিন্নভাবে ইন্টার্নদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. রেজাউল করিম গণমাধ্যমকে জানান, এখন পর্যন্ত ইন্টার্নদের ধর্মঘটের তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি। তবে তাদের ধর্মঘট অব্যাহত হলে সমস্যা সৃষ্টি হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন