অবশেষে আকাশে ডানা মেলল ১৬ শকুন
jugantor
অবশেষে আকাশে ডানা মেলল ১৬ শকুন

  বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি  

০৪ এপ্রিল ২০২১, ২২:৪১:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রায় ৫ মাস বন্দিজীবন শেষে মুক্ত আকাশে ডানা মেলল ১৬ শকুন। গত ২০২০ সালের নভেম্বর মাসের শুরুতে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আটক হওয়া বিলুপ্ত প্রায় বিভিন্ন প্রজাতির শকুন উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয় দিনাজপুরের বীরগঞ্জ জাতীয় উদ্যান সিংড়া শালবন শকুন উদ্ধার ও পরিচর্যা কেন্দ্রে।

সেখানে চিকিৎসাসেবা দিয়ে সুস্থ করে তোলার পর ১৬ শকুনকে ছেড়ে দেওয়া হয় প্রকৃতির মুক্ত হাওয়ায়।

রোববার বিকাল ৫টায় উক্ত শকুন অবমুক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা বশিরুল আল মামুন, সহকারী বন সংরক্ষক শাহিন কবির, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব ন্যাচার (আইইউসিএন) সহকারী প্রকল্প অফিসার সমীর সাহা, সিংড়া শালবন বিট কর্মকর্তা হরিপদ দেবনাথ প্রমুখ।

ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব ন্যাচার (আইইউসিএন) সহকারী প্রকল্প অফিসার সমীর সাহা জানান, শকুন উদ্ধার ও পরিচর্যা কেন্দ্রটি উত্তর বঙ্গে প্রথম। এই প্রকল্পটির ২০১৬ সালে যাত্রা শুরু হয়। অনেকদূর পথ পাড়ি দিয়ে আমাদের দেশে আসার সময় দুর্বল হয়ে পড়ে। দুর্বল হয়ে পড়া শকুনগুলো লোকালয়ে আটক হয়। তাদের উদ্ধার করে বনবিভাগের এবং আইইউসিএনের চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তোলে। পরে তাদের জীবাণু মুক্ত করে ছেড়ে দেওয়া হয়।

দিনাজপুর সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা বশিরুল আল মামুন জানান, নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে প্রচণ্ড শীতের কারণে হিমালয় হতে আসা দেশের আটটি জেলায় আটক হওয়া শকুন উদ্ধার করে চিকিৎসাসেবা দিয়ে সুস্থ করে তোলা হয়। এরপর তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর আবার প্রকৃতি ছেড়ে দেওয়া হয়। বিপন্নপ্রায় শকুন রক্ষায় আমরা এই চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। শকুনের বংশবিস্তার এবং এর অস্তিত্ব রক্ষায় এ প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছে।

অবশেষে আকাশে ডানা মেলল ১৬ শকুন

 বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি 
০৪ এপ্রিল ২০২১, ১০:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রায় ৫ মাস বন্দিজীবন শেষে মুক্ত আকাশে ডানা মেলল ১৬ শকুন। গত ২০২০ সালের নভেম্বর মাসের শুরুতে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আটক হওয়া বিলুপ্ত প্রায় বিভিন্ন প্রজাতির শকুন উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয় দিনাজপুরের বীরগঞ্জ জাতীয় উদ্যান সিংড়া শালবন শকুন উদ্ধার ও পরিচর্যা কেন্দ্রে।

সেখানে চিকিৎসাসেবা দিয়ে সুস্থ করে তোলার পর ১৬ শকুনকে ছেড়ে দেওয়া হয় প্রকৃতির মুক্ত হাওয়ায়।

রোববার বিকাল ৫টায় উক্ত শকুন অবমুক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা বশিরুল আল মামুন, সহকারী বন সংরক্ষক শাহিন কবির, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব ন্যাচার (আইইউসিএন) সহকারী প্রকল্প অফিসার সমীর সাহা, সিংড়া শালবন বিট কর্মকর্তা হরিপদ দেবনাথ প্রমুখ।

ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব ন্যাচার (আইইউসিএন) সহকারী প্রকল্প অফিসার সমীর সাহা জানান, শকুন উদ্ধার ও পরিচর্যা কেন্দ্রটি উত্তর বঙ্গে প্রথম। এই প্রকল্পটির ২০১৬ সালে যাত্রা শুরু হয়। অনেকদূর পথ পাড়ি দিয়ে আমাদের দেশে আসার সময় দুর্বল হয়ে পড়ে। দুর্বল হয়ে পড়া শকুনগুলো লোকালয়ে আটক হয়। তাদের উদ্ধার করে বনবিভাগের এবং আইইউসিএনের চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তোলে। পরে তাদের জীবাণু মুক্ত করে ছেড়ে দেওয়া হয়।

দিনাজপুর সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা বশিরুল আল মামুন জানান, নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে প্রচণ্ড শীতের কারণে হিমালয় হতে আসা দেশের আটটি জেলায় আটক হওয়া শকুন উদ্ধার করে চিকিৎসাসেবা দিয়ে সুস্থ করে তোলা হয়। এরপর তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর আবার প্রকৃতি ছেড়ে দেওয়া হয়। বিপন্নপ্রায় শকুন রক্ষায় আমরা এই চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। শকুনের বংশবিস্তার এবং এর অস্তিত্ব রক্ষায় এ প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন