পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় স্বামীকে হত্যা
jugantor
পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় স্বামীকে হত্যা
লাশ মিলল সেপটিক ট্যাংকে

  কালিহাতী (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

০৬ এপ্রিল ২০২১, ১২:০৪:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় স্বামীকে হত্যা, লাশ মিলল সেপটিক ট্যাংকে

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় স্বামীকে হত্যা করেছেন এক গৃহবধূ। নিহত স্বামীর নাম চাঁন মিয়া (৪৫)।

মঙ্গলবার সকালে উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার বাঁশি গ্রামে বাড়ির পাশে সেপটিক ট্যাংক থেকে চাঁন মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ঘাতক স্ত্রী রেজিয়া বেগম ও তার প্রেমিক আব্দুল হালিমকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার রাতে এলেঙ্গা পৌরসভার বাঁশি গ্রামে স্ত্রী ও তার প্রেমিক আব্দুল হালিম মিলে ওই যুবককে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে ওই গৃহবধূ।

নিহত চাঁন মিয়া এলেঙ্গা পৌরসভার বাঁশি গ্রামের মোন্তাজ আলীর ছেলে।

জানা যায়, হত্যার পর স্বামী নিখোঁজ রয়েছেন এমন দাবি করে ঘাতক স্ত্রীর বক্তব্যে সন্দেহ হয় পরিবারের। পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ স্ত্রী রেজিয়া বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদে মঙ্গলবার সকালে সে স্বামীকে হত্যার কথা স্বীকার করে। পরে তার দেখানো মতে সেপটিক ট্যাংক থেকে স্বামীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মরদেহ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে কালিহাতী থানার ওসি (তদন্ত) রাহেদুল ইসলাম জানায়, শনিবার রাতে এ নির্মম হত্যাকাণ্ড ঘটে। রেজিয়া বেগম দুই সন্তানের জননী। তার সঙ্গে স্বামীর একই গ্রামের আব্দুল হালিমের পরকীয়া ছিল। এতে বাধা দেন স্বামী। তাই ক্ষিপ্ত হয়ে রেজিয়া ও হালিম শনিবার রাতে চাঁন মিয়াকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ বাড়ির পাশে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে রাখে।

পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় স্বামীকে হত্যা

লাশ মিলল সেপটিক ট্যাংকে
 কালিহাতী (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
০৬ এপ্রিল ২০২১, ১২:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় স্বামীকে হত্যা, লাশ মিলল সেপটিক ট্যাংকে
ছবি: যুগান্তর

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় পরকীয়ায় বাধা দেওয়ায় প্রেমিকের সহায়তায় স্বামীকে হত্যা করেছেন এক গৃহবধূ। নিহত স্বামীর নাম চাঁন মিয়া (৪৫)।

মঙ্গলবার সকালে উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার বাঁশি গ্রামে বাড়ির পাশে সেপটিক ট্যাংক থেকে চাঁন মিয়ার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ঘাতক স্ত্রী রেজিয়া বেগম ও তার প্রেমিক আব্দুল হালিমকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার রাতে এলেঙ্গা পৌরসভার বাঁশি গ্রামে স্ত্রী ও তার প্রেমিক আব্দুল হালিম মিলে ওই যুবককে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে ওই গৃহবধূ।  

নিহত চাঁন মিয়া এলেঙ্গা পৌরসভার বাঁশি গ্রামের মোন্তাজ আলীর ছেলে।

জানা যায়, হত্যার পর স্বামী নিখোঁজ রয়েছেন এমন দাবি করে ঘাতক স্ত্রীর বক্তব্যে সন্দেহ হয় পরিবারের। পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ স্ত্রী রেজিয়া বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদে মঙ্গলবার সকালে সে স্বামীকে হত্যার কথা স্বীকার করে। পরে তার দেখানো মতে সেপটিক ট্যাংক থেকে স্বামীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মরদেহ টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে কালিহাতী থানার ওসি (তদন্ত) রাহেদুল ইসলাম জানায়, শনিবার রাতে এ নির্মম হত্যাকাণ্ড ঘটে। রেজিয়া বেগম দুই সন্তানের জননী। তার সঙ্গে স্বামীর একই গ্রামের আব্দুল হালিমের পরকীয়া ছিল। এতে বাধা দেন স্বামী। তাই ক্ষিপ্ত হয়ে রেজিয়া ও হালিম শনিবার রাতে চাঁন মিয়াকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ বাড়ির পাশে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে রাখে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন