ট্যাংকির পানি খেয়ে শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন হাসপাতালে
jugantor
ট্যাংকির পানি খেয়ে শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন হাসপাতালে

  গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি  

০৮ এপ্রিল ২০২১, ১৮:৩২:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

সিলেটের গোলাপগঞ্জে ট্যাংকির পানি খেয়ে শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। রাতে ট্যাংকির পানি খেয়ে সবাই ঘুমিয়ে পড়লে পরদিন দুপুরে তাদের ঘুম ভাঙে।

ঘুম থেকে উঠার পর অসুস্থতা অনুভব করলে তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বুধবার উপজেলার ঢাকাদক্ষিণে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের দক্ষিণ দত্তরাইল গ্রামের প্রবাসী মুজিবুর রহমানের বাড়ির লোকজন রাতের খাবারের পর সবাই ঘুমিয়ে পড়েন। পরদিন বুধবার দুপুর পর্যন্ত তাদের কোনো সাড়া না পেয়ে প্রতিবেশীরা তাদের ডাকাডাকি করেন। এ সময় একজন কোনমতে ঘরের দরজা খুললেও সবাই ছিলেন অচেতন।

পরে সবাইকে ঘুম থেকে ডেকে তোলার পর তারা অসুস্থতা অনভব করেন। সঙ্গে সঙ্গে মৃত তমজিদ আলীর স্ত্রী শিরীন বেগম (৭৫), কন্যা সাদিয়া শারমিন কলি (২৫), জেলি বেগম (৩০), পুত্রবধূ জোৎস্না আক্তার (৩৫), শিশু ওমামা (৭), ভাগ্নে গালিব আহমদকে (১৮) স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। এ ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

থানার এএসআই কমল রায় বলেন, পুলিশের ধারণা মঙ্গলবার রাতে পানির ট্যাংকিতে কে বা কারা হয়ত রাসায়নিক জাতীয় দ্রব্য প্রয়োগ করে। এতে লোকজন অচেতন হয়ে পড়েন। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

ট্যাংকির পানি খেয়ে শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন হাসপাতালে

 গোলাপগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি 
০৮ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সিলেটের গোলাপগঞ্জে ট্যাংকির পানি খেয়ে শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। রাতে ট্যাংকির পানি খেয়ে সবাই ঘুমিয়ে পড়লে পরদিন দুপুরে তাদের ঘুম ভাঙে।

ঘুম থেকে উঠার পর অসুস্থতা অনুভব করলে তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বুধবার উপজেলার ঢাকাদক্ষিণে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের দক্ষিণ দত্তরাইল গ্রামের প্রবাসী মুজিবুর রহমানের বাড়ির লোকজন রাতের খাবারের পর সবাই ঘুমিয়ে পড়েন। পরদিন বুধবার দুপুর পর্যন্ত তাদের কোনো সাড়া না পেয়ে প্রতিবেশীরা তাদের ডাকাডাকি করেন। এ সময় একজন কোনমতে ঘরের দরজা খুললেও সবাই ছিলেন অচেতন।

পরে সবাইকে ঘুম থেকে ডেকে তোলার পর তারা অসুস্থতা অনভব করেন। সঙ্গে সঙ্গে মৃত তমজিদ আলীর স্ত্রী শিরীন বেগম (৭৫), কন্যা সাদিয়া শারমিন কলি (২৫), জেলি বেগম (৩০), পুত্রবধূ জোৎস্না আক্তার (৩৫), শিশু ওমামা (৭), ভাগ্নে গালিব আহমদকে (১৮) স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। এ ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

থানার এএসআই  কমল রায় বলেন, পুলিশের ধারণা মঙ্গলবার রাতে পানির ট্যাংকিতে কে বা কারা হয়ত রাসায়নিক জাতীয় দ্রব্য প্রয়োগ করে। এতে লোকজন অচেতন হয়ে পড়েন। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন