নামাজ পড়ে ফেরার পথে যুবককে তুলে নিয়ে হত্যা
jugantor
নামাজ পড়ে ফেরার পথে যুবককে তুলে নিয়ে হত্যা

  টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  

১২ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৫৬:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নামাজ পড়ে ফেরার পথে যুবককে তুলে নিয়ে হত্যা

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় নামাজ পড়ে ফেরার পথে এক যুবককে তুলে নিয়ে গুলি ও ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

রোববার রাত সোয়া ৯টায় টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম লেদা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ইমাম হোসেন (১৮) টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম লেদা এলাকার আব্দুর রহিমের ছেলে।

নিহতের ভাই সাদ্দাম হোসেন জানান, রাতে টেকনাফের পশ্চিম লেদা এলাকার মসজিদে নামাজ পড়ে বাসায় ফিরছিল ইমাম। এ সময় পথে ১০-১৫ জনের একটি অজ্ঞাত দুর্বৃত্তের দল তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়।

পরে ইমাম হোসেনকে পশ্চিম লেদার স্থানীয় এক পাহাড়ে নিয়ে গুলি ও ছুরিকাঘাত করে হত্যার পর পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

টেকনাফ থানার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের শরীরে গুলি ও ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

তবে কারা, কী কারণে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, তা খুঁজে বের করতে পুলিশ তদন্ত করছে বলে জানান ওসি।

নামাজ পড়ে ফেরার পথে যুবককে তুলে নিয়ে হত্যা

 টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি 
১২ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৫৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নামাজ পড়ে ফেরার পথে যুবককে তুলে নিয়ে হত্যা
ফাইল ছবি

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় নামাজ পড়ে ফেরার পথে এক যুবককে তুলে নিয়ে গুলি ও ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

রোববার রাত সোয়া ৯টায় টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম লেদা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

 নিহত ইমাম হোসেন (১৮) টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম লেদা এলাকার আব্দুর রহিমের ছেলে।

নিহতের ভাই সাদ্দাম হোসেন জানান, রাতে টেকনাফের পশ্চিম লেদা এলাকার মসজিদে নামাজ পড়ে বাসায় ফিরছিল ইমাম। এ সময় পথে ১০-১৫ জনের একটি অজ্ঞাত দুর্বৃত্তের দল তাকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়।

পরে ইমাম হোসেনকে পশ্চিম লেদার স্থানীয় এক পাহাড়ে নিয়ে গুলি ও ছুরিকাঘাত করে হত্যার পর পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

টেকনাফ থানার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের শরীরে গুলি ও ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

তবে কারা, কী কারণে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, তা খুঁজে বের করতে পুলিশ তদন্ত করছে বলে জানান ওসি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন