ফরিদপুরে ২ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বজনদের দাবি হত্যা
jugantor
ফরিদপুরে ২ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বজনদের দাবি হত্যা

  ফরিদপুর ব্যুরো  

১৩ এপ্রিল ২০২১, ১৩:০২:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

লাশ উদ্ধার

ফরিদপুরে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে দুই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌর এলাকার শিবপুর গ্রামে ও রাতে নগরকান্দায় এ ঘটনা ঘটে।

তবে উভয় পরিবারের দাবি, তাদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, চার মাস আগে ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌর এলাকার শিবপুর গ্রামের রুবেল শেখের সঙ্গে দুর্গাপুর গ্রামের শান্ত মিয়ার মেয়ে শারমিনের (১৯) বিয়ে হয়।

সোমবার দুপুর ১টার দিকে শারমিনকে তার কক্ষে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেন পরিবারের লোকজন। পরে বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

নিহতের শ্বশুর ও বোয়ালমারী পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আইউব আলী বলেন, পারিবারিক কোনো কলহ ছিল না। তবে সকালে কিস্তির টাকা নিয়ে আমার ছেলের সঙ্গে একটু কথা কাটাকাটি হয়েছিল।

বোয়ালমারী থানার ওসি মোহাম্মদ নুরুল আলম বলেন, বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। সুরতহাল রিপোর্ট পাওয়ার পর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ফরিদপুরের নগরকান্দায় এক প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার রাতে পার্শ্ববর্তী মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
নগরকান্দা উপজেলার পুরাপাড়া গ্রামের ইরাক প্রবাসী আক্কাস মিয়ার স্ত্রী সারমিন আক্তার (২০)।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, নগরকান্দা উপজেলার পুরাপাড়া গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে ইরাক প্রবাসী আক্কাস মিয়ার সঙ্গে যশোর সদর উপজেলার সাড়াপোল গ্রামের তসলিম মিয়ার কন্যা সারমিনের গত ৮ মাস আগে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিবাহ সম্পন্ন হয়।

কয়েক দিন আগে সারমিন স্বামীর অনুপস্থিতিতে শ্বশুরবাড়িতে বসবাস শুরু করেন। আগের দিন রাতে স্বামীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে ঝগড়া হয়।

পর দিন ঘুমের ওষুধ সেবন করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরিবারের লোকজন তাকে মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সারমিনের বড় ভাই শরিফুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, তার বোনকে খুন করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছে। আমরা মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

মুকসুদপুর থানার ওসি আবু বকর মিয়া বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ফরিদপুরে ২ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বজনদের দাবি হত্যা

 ফরিদপুর ব্যুরো 
১৩ এপ্রিল ২০২১, ০১:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
লাশ উদ্ধার
ফাইল ছবি

ফরিদপুরে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে দুই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌর এলাকার শিবপুর গ্রামে ও রাতে নগরকান্দায় এ ঘটনা ঘটে।

তবে উভয় পরিবারের দাবি, তাদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, চার মাস আগে ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌর এলাকার শিবপুর গ্রামের রুবেল শেখের সঙ্গে দুর্গাপুর গ্রামের শান্ত মিয়ার মেয়ে শারমিনের (১৯) বিয়ে হয়।

সোমবার দুপুর ১টার দিকে শারমিনকে তার কক্ষে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেন পরিবারের লোকজন। পরে বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

নিহতের শ্বশুর ও বোয়ালমারী পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আইউব আলী বলেন, পারিবারিক কোনো কলহ ছিল না। তবে সকালে কিস্তির টাকা নিয়ে আমার ছেলের সঙ্গে একটু কথা কাটাকাটি হয়েছিল।

বোয়ালমারী থানার ওসি মোহাম্মদ নুরুল আলম বলেন, বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। সুরতহাল রিপোর্ট পাওয়ার পর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ফরিদপুরের নগরকান্দায় এক প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার রাতে পার্শ্ববর্তী মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।  
নগরকান্দা উপজেলার পুরাপাড়া গ্রামের ইরাক প্রবাসী আক্কাস মিয়ার স্ত্রী সারমিন আক্তার (২০)।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, নগরকান্দা উপজেলার পুরাপাড়া গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে ইরাক প্রবাসী আক্কাস মিয়ার সঙ্গে যশোর সদর উপজেলার সাড়াপোল গ্রামের তসলিম মিয়ার কন্যা সারমিনের গত ৮ মাস আগে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বিবাহ সম্পন্ন হয়।

কয়েক দিন আগে সারমিন স্বামীর অনুপস্থিতিতে শ্বশুরবাড়িতে বসবাস শুরু করেন। আগের দিন রাতে স্বামীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে ঝগড়া হয়।

পর দিন ঘুমের ওষুধ সেবন করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরিবারের লোকজন তাকে মুকসুদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সারমিনের বড় ভাই শরিফুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, তার বোনকে খুন করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছে। আমরা মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।

মুকসুদপুর থানার ওসি আবু বকর মিয়া বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন