‘পর্নো দেখাসহ রাষ্ট্রবিরোধী কার্যক্রম করতেন রফিকুল ইসলাম মাদানী’
jugantor
‘পর্নো দেখাসহ রাষ্ট্রবিরোধী কার্যক্রম করতেন রফিকুল ইসলাম মাদানী’

  গাছা (গাজীপুর) প্রতিনিধি  

১৩ এপ্রিল ২০২১, ২০:০৯:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ দক্ষিণ) মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ বলেছেন, রাষ্ট্রবিরোধী উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়া বিতর্কিত ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীর মোবাইল ফোনে আপত্তিকর এডাল্ট কনটেন্ট অশ্লীল পর্নো পায় ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা। তিনি নিয়মিত পর্নোগ্রাফি ভিডিও দেখাসহ রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করতেন।

তিনি বলেন, পাশাপাশি গাজীপুরে তার প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসাটিতে কারা অর্থায়ন করতেন, এখান থেকে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী কোনো কার্যক্রম চালানো হতো কিনা- তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

মঙ্গলবার দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ দক্ষিণ) মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের কাছে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রাষ্ট্রবিরোধী উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়া বিতর্কিত ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীর মোবাইল ফোনে আপত্তিকর এডাল্ট কনটেন্ট অশ্লীল পর্নোগ্রাফি পেয়েছেন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা। মাদানীর মোবাইল ফোনটি ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এসব পর্নোগ্রাফির সন্ধান পান।

গাছা থানার ওসি মো. ইসমাইল হোসেন জানান, জেলহাজতে থাকা রফিকুলকে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে মঙ্গলবার সকালে গাজীপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে আবেদন করা হয়েছে। আদালতের আদেশ পেলে তাকে রিমান্ডে এনে এসব বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

প্রেস ব্রিফিংকালে এডিসি মোহাম্মদ আহসান, গাছা থানার ওসি ইসমাইল হোসেন ও পরিদর্শক (তদন্ত) নন্দলাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৮ এপ্রিল নেত্রকোনার নিজ বাড়ি থেকে আটকের পর গাছা থানায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করে র্যা ব। এ সময় তার কাছ থেকে চারটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। এরপর থেকে তিনি গাজীপুরের জেলহাজতে রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে একই আইনে গাজীপুরের বাসন থানায় আরেকটি মামলা হয়েছে।

‘পর্নো দেখাসহ রাষ্ট্রবিরোধী কার্যক্রম করতেন রফিকুল ইসলাম মাদানী’

 গাছা (গাজীপুর) প্রতিনিধি 
১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৮:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ দক্ষিণ) মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ বলেছেন, রাষ্ট্রবিরোধী উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়া বিতর্কিত ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীর মোবাইল ফোনে আপত্তিকর এডাল্ট কনটেন্ট অশ্লীল পর্নো পায় ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা। তিনি নিয়মিত পর্নোগ্রাফি ভিডিও দেখাসহ রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করতেন।

তিনি বলেন, পাশাপাশি গাজীপুরে তার প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসাটিতে কারা অর্থায়ন করতেন, এখান থেকে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী কোনো কার্যক্রম চালানো হতো কিনা- তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

মঙ্গলবার দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ দক্ষিণ) মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের কাছে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রাষ্ট্রবিরোধী উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়া বিতর্কিত ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীর মোবাইল ফোনে আপত্তিকর এডাল্ট কনটেন্ট অশ্লীল পর্নোগ্রাফি পেয়েছেন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা। মাদানীর মোবাইল ফোনটি ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এসব পর্নোগ্রাফির সন্ধান পান।

গাছা থানার ওসি মো. ইসমাইল হোসেন জানান, জেলহাজতে থাকা রফিকুলকে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে  মঙ্গলবার সকালে গাজীপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে আবেদন করা হয়েছে। আদালতের আদেশ পেলে তাকে রিমান্ডে এনে এসব বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

প্রেস ব্রিফিংকালে এডিসি মোহাম্মদ আহসান, গাছা থানার ওসি ইসমাইল হোসেন ও পরিদর্শক (তদন্ত) নন্দলাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৮ এপ্রিল নেত্রকোনার নিজ বাড়ি থেকে আটকের পর গাছা থানায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করে র্যা ব। এ সময় তার কাছ থেকে চারটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। এরপর থেকে তিনি গাজীপুরের জেলহাজতে রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে একই আইনে গাজীপুরের বাসন থানায় আরেকটি মামলা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন