মুক্তিযোদ্ধার টাকা আত্মসাতের দায়ে ইউপি সদস্য কারাগারে
jugantor
মুক্তিযোদ্ধার টাকা আত্মসাতের দায়ে ইউপি সদস্য কারাগারে

  মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

১৫ এপ্রিল ২০২১, ১৯:৪৮:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার মুরাদনগরে এক দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী বীর মুক্তিযোদ্ধার জমি বিক্রির টাকা আত্মসাতের দায়ে এক ইউপি সদস্যকে আটক করে কারাগারে প্রেরণ করেছে মুরাদনগর থানা পুলিশ। বুধবার উপজেলার ছয়ফুল্লাকান্দি গ্রামের মৃত. বজলুর রহমানের ছেলে ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেমের (৭২) অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আলী নেওয়াজ উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য ও সাতমোড়া গ্রামের মৃত রমিজ উদ্দিনের ছেলে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২৪ মে উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের ছয়ফুল্লাকান্দি মৌজার ৩৮৩নং দাগের মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম ও তার পরিবারের যৌথ ২ শতক জমি ইউপি সদস্য আলী নেওয়াজ কাউকে কিছু না জানিয়ে ১৪ লাখ টাকার বিনিময়ে সাতমোড়া গ্রামের আক্তার হোসেন ও সুবিলারচর গ্রামের মজিবুর রহমানের নিকট বিক্রয় করে দেয়। পরবর্তীতে জমি বিক্রির বিষয়টি আলী নেওয়াজের কাছে জানতে চাইলে সে ওই মুক্তিযোদ্ধার ভাগের টাকা দিয়ে দেবে বলে তাকে আশ্বাস দেয়।

একপর্যায় জমি বিক্রির কোনো প্রকার টাকা না দিয়ে জোরপূর্বক ওই জমিতে দোকান নির্মাণ শুরু করে আলী নেওয়াজ। এ বিষয়ে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মধ্যস্থতায় বহুবার সালিশ হলেও প্রতিকার না পেয়ে বুধবার সকালে মুরাদনগর থানায় এসে মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম বাদী হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

মুরাদনগর থানার ওসি মো. সাদেকুর রহমান বলেন, মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেমের অভিযোগের ভিত্তিতে বুধবার সকালে ইউপি সদস্য আলী নেওয়াজকে গ্রেফতার করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধার টাকা আত্মসাতের দায়ে ইউপি সদস্য কারাগারে

 মুরাদনগর (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার মুরাদনগরে এক দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী বীর মুক্তিযোদ্ধার জমি বিক্রির টাকা আত্মসাতের দায়ে এক ইউপি সদস্যকে আটক করে কারাগারে প্রেরণ করেছে মুরাদনগর থানা পুলিশ। বুধবার উপজেলার ছয়ফুল্লাকান্দি গ্রামের মৃত. বজলুর রহমানের ছেলে ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেমের (৭২) অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আলী নেওয়াজ উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য ও সাতমোড়া গ্রামের মৃত রমিজ উদ্দিনের ছেলে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২৪ মে উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের ছয়ফুল্লাকান্দি মৌজার ৩৮৩নং দাগের মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম ও তার পরিবারের যৌথ ২ শতক জমি ইউপি সদস্য আলী নেওয়াজ কাউকে কিছু না জানিয়ে ১৪ লাখ টাকার বিনিময়ে সাতমোড়া গ্রামের আক্তার হোসেন ও সুবিলারচর গ্রামের মজিবুর রহমানের নিকট বিক্রয় করে দেয়। পরবর্তীতে জমি বিক্রির বিষয়টি আলী নেওয়াজের কাছে জানতে চাইলে সে ওই মুক্তিযোদ্ধার ভাগের টাকা দিয়ে দেবে বলে তাকে আশ্বাস দেয়।

একপর্যায় জমি বিক্রির কোনো প্রকার টাকা না দিয়ে জোরপূর্বক ওই জমিতে দোকান নির্মাণ শুরু করে আলী নেওয়াজ। এ বিষয়ে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের মধ্যস্থতায় বহুবার সালিশ হলেও প্রতিকার না পেয়ে বুধবার সকালে মুরাদনগর থানায় এসে মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম বাদী হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

মুরাদনগর থানার ওসি মো. সাদেকুর রহমান বলেন, মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেমের অভিযোগের ভিত্তিতে বুধবার সকালে ইউপি সদস্য আলী নেওয়াজকে গ্রেফতার করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন