শরীরে অক্সিজেনের সিলিন্ডার বেঁধে হাসপাতালে, যা বললেন যুবক
jugantor
শরীরে অক্সিজেনের সিলিন্ডার বেঁধে হাসপাতালে, যা বললেন যুবক

  বরিশাল ব্যুরো   

১৮ এপ্রিল ২০২১, ১৯:৫৮:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনা

গত বছর প্রথম রমজানে আব্বা মারা গেছেন। এখন আমার পৃথিবীজুড়ে শুধুই মা। তাই মাকে আমার কাছে ধরে রাখতেই শরীরে অক্সিজেনের সিলিন্ডার বেঁধে করোনা আক্রান্ত মাকে নিয়ে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসা হয়েছে।

ঝালকাঠি জেলার নলছিটি পৌরসভার বাসিন্দা ও বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক শাখার সিনিয়র অফিসার জিয়াউল হাসান প্রতিবেদকের কাছে এ কথাগুলো বলছিলেন।

তার মা রেহানা পারভীন নলছিটি বন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। মা গত ১০ দিন ধরে অসুস্থ। করোনার সবগুলো উপসর্গ তার শরীরে রয়েছে।

করোনা আক্রান্ত কিনা তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যান। সেখানে গত ১০ এপ্রিল করোনা পরীক্ষা করানো হয়েছে। কিন্তু শনিবার পর্যন্তর তার রির্পোট আসেনি। কবেনাগাদ আসবে তাও স্থাস্থ্য কমপ্লেক্স বলতে পারে না।

এদিকে জিয়াউলের মা আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। অক্সিজেন লেভেলটি ৯৪-৯৩ নেমে যাচ্ছে। চলছে লকডাউন, গাড়ি মিলছিল না। তাই নিজের শরীরে অক্সিজেনের সিলিন্ডার বেঁধে বরিশালে আসেন।

শনিবার সন্ধ্যায় তার মাকে শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়। বর্তমানের তার চিকিৎসা চলছে।

শরীরে অক্সিজেনের সিলিন্ডার বেঁধে হাসপাতালে, যা বললেন যুবক

 বরিশাল ব্যুরো  
১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
করোনা
মাকে নিয়ে হাসপাতালের পথে ছেলে। ছবি: যুগান্তর

গত বছর প্রথম রমজানে আব্বা মারা গেছেন। এখন আমার পৃথিবীজুড়ে শুধুই মা। তাই মাকে আমার কাছে ধরে রাখতেই শরীরে অক্সিজেনের সিলিন্ডার বেঁধে করোনা আক্রান্ত মাকে নিয়ে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসা হয়েছে। 

ঝালকাঠি জেলার নলছিটি পৌরসভার বাসিন্দা ও বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক শাখার সিনিয়র অফিসার জিয়াউল হাসান প্রতিবেদকের কাছে এ কথাগুলো বলছিলেন। 

তার মা রেহানা পারভীন নলছিটি বন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। মা গত ১০ দিন ধরে অসুস্থ। করোনার সবগুলো উপসর্গ তার শরীরে রয়েছে। 

করোনা আক্রান্ত কিনা তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যান। সেখানে গত ১০ এপ্রিল করোনা পরীক্ষা করানো হয়েছে। কিন্তু শনিবার পর্যন্তর তার রির্পোট আসেনি। কবেনাগাদ আসবে তাও স্থাস্থ্য কমপ্লেক্স বলতে পারে না। 

এদিকে জিয়াউলের মা আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। অক্সিজেন লেভেলটি ৯৪-৯৩ নেমে যাচ্ছে। চলছে লকডাউন, গাড়ি মিলছিল না। তাই নিজের শরীরে অক্সিজেনের সিলিন্ডার বেঁধে বরিশালে আসেন। 

শনিবার সন্ধ্যায় তার মাকে শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়। বর্তমানের তার চিকিৎসা চলছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন