বাসে হামলাকারীদের গ্রেফতার না করলে পরিবহন ধর্মঘটের হুমকি
jugantor
বাসে হামলাকারীদের গ্রেফতার না করলে পরিবহন ধর্মঘটের হুমকি

  দাগনভূঞা (ফেনী) প্রতিনিধি  

২০ এপ্রিল ২০২১, ১৮:২২:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

ড্রিমলাইন পরিবহনের বাসে হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার করা না হলে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের হুশিয়ারি দিয়েছে নোয়াখালীর বসুরহাট বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন। একই সঙ্গে দাগনভূঞা উপজেলা একটি আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল স্থাপনেরও দাবি জানান।

নোয়াখালীর বসুরহাট বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের আয়োজনে বসুরহাট বাস মালিক সমিতির নেতারা ও মালিকদের নিরাপত্তা এবং ড্রিমলাইন বাস ভাংচুরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে ওই পরিবহনের পরিচালক শাহজাহান সাজু। মঙ্গলবার সকালে দাগনভূঞা মনপুরা কাবাব হাউজ অ্যান্ড রেস্টুরেন্টে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শাহজাহান সাজু বলেন, বিগত ছয় মাস কোম্পানীগঞ্জের নোংরা রাজনীতি শিকার আমাদের পরিবহন সেক্টর। এতে বড় ধরনের লোকসানের মুখে পড়েছে বাস মালিক সমিতি। বসুরহাট দুই প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রুপের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে বসুরহাট আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালের আওতাধীন বাস মালিকারা ব্যবসা ছেড়ে দেওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, চাঁদা না দেয়ায় কাদের মির্জার নির্দেশে গত ১৫ এপ্রিল রাত ৮টার দিকে ঢাকা-বসুরহাটগামী ড্রিমলাইন পরিবহনের তিনটি গাড়ি ভাংচুর করে। এতে প্রায় এক কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। ভাংচুর করা পর সন্ত্রাসীরা বাস মালিক ও শ্রমিকদের টার্মিনালে যেতে নিষেধ করেন। কোনো মালিক বা শ্রমিক যদি টার্মিনালে যায় তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করে। এমতাবস্থায় মালিক শ্রমিকরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

সংবাদ সম্মেলনে অচিরেই দাগনভূঞায় আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল স্থাপন করে পরিবহন সেক্টরকে সচল রাখার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- বসুরহাট বাস মালিক সমিতির কোষাধ্যক্ষ শহিদুল্লাহ খোকন, ড্রিমলাইন সম্পাদক সোলায়মান মিয়া, সদস্য ফারুক আহম্মদ, বসুরহাট শ্রমিক ইউনিয়নের সেক্রেটারি মিজানুর রহমান প্রমুখ।

বাসে হামলাকারীদের গ্রেফতার না করলে পরিবহন ধর্মঘটের হুমকি

 দাগনভূঞা (ফেনী) প্রতিনিধি 
২০ এপ্রিল ২০২১, ০৬:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ড্রিমলাইন পরিবহনের বাসে হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার করা না হলে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটের হুশিয়ারি দিয়েছে নোয়াখালীর বসুরহাট বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন। একই সঙ্গে দাগনভূঞা উপজেলা একটি আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল স্থাপনেরও দাবি জানান।

নোয়াখালীর বসুরহাট বাস মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের আয়োজনে বসুরহাট বাস মালিক সমিতির নেতারা ও মালিকদের নিরাপত্তা এবং ড্রিমলাইন বাস ভাংচুরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে ওই পরিবহনের পরিচালক শাহজাহান সাজু। মঙ্গলবার সকালে দাগনভূঞা মনপুরা কাবাব হাউজ অ্যান্ড রেস্টুরেন্টে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শাহজাহান সাজু বলেন, বিগত ছয় মাস কোম্পানীগঞ্জের নোংরা রাজনীতি শিকার আমাদের পরিবহন সেক্টর। এতে বড় ধরনের লোকসানের মুখে পড়েছে বাস মালিক সমিতি। বসুরহাট দুই প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রুপের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে বসুরহাট আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালের আওতাধীন বাস মালিকারা ব্যবসা ছেড়ে দেওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, চাঁদা না দেয়ায় কাদের মির্জার নির্দেশে গত ১৫ এপ্রিল রাত ৮টার দিকে ঢাকা-বসুরহাটগামী ড্রিমলাইন পরিবহনের তিনটি গাড়ি ভাংচুর করে। এতে প্রায় এক কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। ভাংচুর করা পর সন্ত্রাসীরা বাস মালিক ও শ্রমিকদের টার্মিনালে যেতে নিষেধ করেন। কোনো মালিক বা শ্রমিক যদি টার্মিনালে যায় তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করে। এমতাবস্থায় মালিক শ্রমিকরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

সংবাদ সম্মেলনে অচিরেই দাগনভূঞায় আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল স্থাপন করে পরিবহন সেক্টরকে সচল রাখার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- বসুরহাট বাস মালিক সমিতির কোষাধ্যক্ষ শহিদুল্লাহ খোকন, ড্রিমলাইন সম্পাদক সোলায়মান মিয়া, সদস্য ফারুক আহম্মদ, বসুরহাট শ্রমিক ইউনিয়নের সেক্রেটারি মিজানুর রহমান প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন