ঘরে ঢুকে উপজাতি বিধবাকে ধর্ষণ
jugantor
ঘরে ঢুকে উপজাতি বিধবাকে ধর্ষণ

  শেরপুর প্রতিনিধি  

২০ এপ্রিল ২০২১, ১৮:২৪:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে ঘরে ঢুকে উপজাতি এক বিধবা নারীকে (৩৩) ধর্ষণের অভিযোগে মোহাম্মদ নাইম (১৯) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে উপজেলার নওকুচি গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত নাইম নওকুচি গ্রামের মৃত জহুরুল ইসলামের ছেলে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষণের এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষণের শিকার ওই নারী সোমবার রাতে নাইমের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। নাইমকে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আদিবাসী বিধবা নারী তার এক সন্তানকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে থাকেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে নাইম ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে তাকে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ঘটনাটি প্রকাশ করলে ওই নারীকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে নাইম। পরে ঘটনাটি জানাজানি হয়ে গেলে সোমবার রাতে স্থানীয় এক ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে আপস-মীমাংসার চেষ্টা করা হয়।

এ সময় ঝিনাইগাতী থানার ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা নাইমকে গ্রেফতার করে।

ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার নারী নাইমকে আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ভুক্তভোগী নারীকে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতারকৃত নাইমকে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে সোপর্দ করা হলে তাকে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

ঘরে ঢুকে উপজাতি বিধবাকে ধর্ষণ

 শেরপুর প্রতিনিধি 
২০ এপ্রিল ২০২১, ০৬:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে ঘরে ঢুকে উপজাতি এক বিধবা নারীকে (৩৩) ধর্ষণের অভিযোগে মোহাম্মদ নাইম (১৯) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে উপজেলার নওকুচি গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত নাইম নওকুচি গ্রামের মৃত জহুরুল ইসলামের ছেলে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষণের এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষণের শিকার ওই নারী সোমবার রাতে নাইমের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। নাইমকে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আদিবাসী বিধবা নারী তার এক সন্তানকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে থাকেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে নাইম ওই নারীর ঘরে প্রবেশ করে তাকে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ঘটনাটি প্রকাশ করলে ওই নারীকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে নাইম। পরে ঘটনাটি জানাজানি হয়ে গেলে সোমবার রাতে স্থানীয় এক ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে আপস-মীমাংসার চেষ্টা করা হয়।

এ সময় ঝিনাইগাতী থানার ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা নাইমকে গ্রেফতার করে।

ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার নারী নাইমকে আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ভুক্তভোগী নারীকে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতারকৃত নাইমকে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে সোপর্দ করা হলে তাকে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন