চেয়ারম্যান হাসপাতালে প্যানেল চেয়ারম্যান খুন, ভিজিডি বঞ্চিত উপকারভোগী
jugantor
চেয়ারম্যান হাসপাতালে প্যানেল চেয়ারম্যান খুন, ভিজিডি বঞ্চিত উপকারভোগী

  গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি  

২০ এপ্রিল ২০২১, ২০:৫১:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের দুস্থ ভিজিডিভোগীরা গত ৩ মাস ধরে চাল পাচ্ছেন না। এতে করে চলমান লকডাউন ও করোনা পরিস্থিতির মধ্যে পরিবারগুলো খুবই মানবেতর দিনাতিপাত করছেন। তাছাড়া লকডাউনে আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে যাওয়াতে অনেক পরিবারের রোজার সেহরি-ইফতারিতে তেমন কিছু জুটছে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মণ্ডলকে হত্যার উদ্দেশে গত ১৯ মার্চ রাতে সশস্ত্র হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। মারাত্মক জখম অবস্থায় বেশ কিছুদিন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর বর্তমানে তিনি ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ঘটনার পর প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল গনি মণ্ডল কিছুদিন পরিষদের স্বাভাবিক কাজকর্ম চালিয়ে আসছিলেন। কিন্তু গত ২৯ মার্চ রাতে দুর্বৃত্তরা তাকে গুলি করে। ১ এপ্রিল সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনা দুটোকে কেন্দ্র করে পুরো দৌলতদিয়া ইউনিয়নে উত্তাল অবস্থা বিরাজ করছে। স্বাভাবিক কাজকর্ম চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

এদিকে এ অবস্থার মধ্যে উপজেলার সব ইউনিয়নের অনুকূলে সরকারিভাবে ভিজিডির উপকারভোগীদের জন্য ৩ মাসের (জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি ও মার্চ) চালের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। দৌলতদিয়া ইউনিয়নে মোট ৭৪৯ কার্ডধারীর জন্য প্রতি মাসে ৩০ কেজি করে চালের বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী বরাদ্দকৃত চাল চেয়ারম্যান অথবা প্যানেল চেয়ারম্যানের নামে বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু তাদের দুজনের অনুপস্থিতিতে এখানকার চাল খাদ্যগুদাম হতে উত্তোলন করা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে ইউনিয়নের দ্বিতীয় প্যানেল চেয়ারম্যান ও ৯নং ওয়ার্ডের সদস্য মো. জামাল মোল্লা বলেন, এ দুঃসময়ে মানুষজন খুব কষ্টে আছে। ভিজিডির চালগুলো দ্রুত দিতে পারলে ওই পরিবারগুলো একটু শান্তি পেত। বুধবার পরিষদের সব সদস্য মিলে এ বিষয়টি নিয়ে ইউএনওর সঙ্গে কথা বলব।

গোয়ালন্দ উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন বলেন, দৌলতদিয়া ইউনিয়নে ৭৪৯ জন উপকারভোগীর নামে ৩ মাসের মোট ২২ টন ৪৭০ কেজি চালের বরাদ্দ হয়েছে। আমি চালগুলো নেয়ার বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, দৌলতদিয়ায় দ্রুত সময়ের মধ্যে কীভাবে চাল দেয়া যায় সেটা আমি খতিয়ে দেখব।

চেয়ারম্যান হাসপাতালে প্যানেল চেয়ারম্যান খুন, ভিজিডি বঞ্চিত উপকারভোগী

 গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি 
২০ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের দুস্থ ভিজিডিভোগীরা গত ৩ মাস ধরে চাল পাচ্ছেন না। এতে করে চলমান লকডাউন ও করোনা পরিস্থিতির মধ্যে পরিবারগুলো খুবই মানবেতর দিনাতিপাত করছেন। তাছাড়া লকডাউনে আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে যাওয়াতে অনেক পরিবারের রোজার সেহরি-ইফতারিতে তেমন কিছু জুটছে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মণ্ডলকে হত্যার উদ্দেশে গত ১৯ মার্চ রাতে সশস্ত্র হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। মারাত্মক জখম অবস্থায় বেশ কিছুদিন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর বর্তমানে তিনি ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ঘটনার পর প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল গনি মণ্ডল কিছুদিন পরিষদের স্বাভাবিক কাজকর্ম চালিয়ে আসছিলেন। কিন্তু গত ২৯ মার্চ রাতে দুর্বৃত্তরা তাকে গুলি করে। ১ এপ্রিল সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। 

এ ঘটনা দুটোকে কেন্দ্র করে পুরো দৌলতদিয়া ইউনিয়নে উত্তাল অবস্থা বিরাজ করছে। স্বাভাবিক কাজকর্ম চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। 

এদিকে এ অবস্থার মধ্যে উপজেলার সব ইউনিয়নের অনুকূলে সরকারিভাবে ভিজিডির উপকারভোগীদের জন্য ৩ মাসের (জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি ও মার্চ) চালের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। দৌলতদিয়া ইউনিয়নে মোট ৭৪৯ কার্ডধারীর জন্য প্রতি মাসে ৩০ কেজি করে চালের বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী বরাদ্দকৃত চাল চেয়ারম্যান অথবা প্যানেল চেয়ারম্যানের নামে বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু তাদের দুজনের অনুপস্থিতিতে এখানকার চাল খাদ্যগুদাম হতে উত্তোলন করা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে ইউনিয়নের দ্বিতীয় প্যানেল চেয়ারম্যান ও ৯নং ওয়ার্ডের সদস্য মো. জামাল মোল্লা বলেন, এ দুঃসময়ে মানুষজন খুব কষ্টে আছে। ভিজিডির চালগুলো দ্রুত দিতে পারলে ওই পরিবারগুলো একটু শান্তি পেত। বুধবার পরিষদের সব সদস্য মিলে এ বিষয়টি নিয়ে ইউএনওর সঙ্গে কথা বলব।

গোয়ালন্দ উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন বলেন, দৌলতদিয়া ইউনিয়নে ৭৪৯ জন উপকারভোগীর নামে ৩ মাসের মোট ২২ টন ৪৭০ কেজি চালের বরাদ্দ হয়েছে। আমি চালগুলো নেয়ার বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, দৌলতদিয়ায় দ্রুত সময়ের মধ্যে কীভাবে চাল দেয়া যায় সেটা আমি খতিয়ে দেখব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন