‘চাঁদা দিতে দেরি হলে একবারেই খতম’
jugantor
‘চাঁদা দিতে দেরি হলে একবারেই খতম’

  রাজশাহী ব্যুরো  

২০ এপ্রিল ২০২১, ২২:৪৯:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

১০ লাখ টাকা চাঁদার দাবিতে এক আওয়ামী লীগ নেতার নেতৃত্বে গত ১৩ এপ্রিল রাতে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী ব্যবসায়ী আব্দুল বারীর সিরোইলের বাড়িতে হানা দিয়েছিল। ব্যবসায়ী বারী পরদিন আরএমপির বোয়ালিয়া মডেল থানায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে একটি জিডি করেছিলেন। কিন্তু তাতে একটুও দমে যায়নি চাঁদাবাজ সিন্ডিকেট।

সোমবার রাতে সন্ত্রাসীরা ফের ফোন করে ওই ব্যবসায়ীর কাছে বকেয়া ১০ লাখ টাকা চাঁদা পরিশোধে তাগাদা দিয়েছে। দ্রুত সময়ে এই চাঁদা পরিশোধ না করলে নির্ঘাত লাশ হতে হবে বলেও হুমকি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। ব্যবসায়ী আব্দুল বারী জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে মঙ্গলবার আবার বোয়ালিয়া থানায় আরেকটি জিডি করেছেন।

একটি গ্রুপের রাজশাহী অঞ্চলের ডিজিএম আব্দুল বারী অভিযোগে বলেছেন, সোমবার দিনগত রাত ৯টা ২২ মিনিটে তিনি শিল্পনগরী মসজিদের সামনে অবস্থান করছিলেন। তার নম্বরে একটি কল আসে। কলটি তিনি রিসিভ করলেও কলার কোনো কথা না বলে কেটে দেন। এর কিছুক্ষণ পর একই নম্বর থেকে পরপর চারবার কল আসে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে কলটি না ধরে ৯টা ৩৬ মিনিটে ব্যবসায়ী বারী কল ব্যাক করেন।

ফোনটি ধরে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি বলেন, জাফর ভাইকে তাড়াতাড়ি ১০ লাখ টাকা দিয়ে দেবেন। আমাদের সঙ্গে লাগতে আসলে একবারেই খমত করে দিব।

আব্দুল বারী বলেন, গত ১৩ এপ্রিল রাতে রাজশাহীর ১০নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আহম্মেদের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী চাঁদার দাবিতে তার বাড়িতে চড়াও হয়।

আব্দুল বারীর আরও অভিযোগ, সপুরা এলাকার তার কেনা একটি জমি নিয়ে একটি পক্ষের সঙ্গে তার বিরোধ চলছে। আদালতে উভয় পক্ষে মামলা মোকদ্দমা আছে। সম্প্রতি তার প্রতিপক্ষের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা জমির সীমানা প্রাচীর ভেঙে ফেলে। তিনি পুলিশের সহায়তায় তা পুন:নির্মাণ করেন। এরপর থেকেই আওয়ামী লীগ নেতা জাফর আহম্মেদ ও তার ভাই আব্দুর রাজ্জাক রাজনসহ সন্ত্রাসীরা তার কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছে। তিনি টাকা দিতে অস্বীকার করায় তাকে একাধিকবার ফোনে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মণ বলেন, ব্যবসায়ীকে হুমকির বিষয়টিকে তারা গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে তদন্ত করছেন। দ্রুতই ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

‘চাঁদা দিতে দেরি হলে একবারেই খতম’

 রাজশাহী ব্যুরো 
২০ এপ্রিল ২০২১, ১০:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

১০ লাখ টাকা চাঁদার দাবিতে এক আওয়ামী লীগ নেতার নেতৃত্বে গত ১৩ এপ্রিল রাতে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী ব্যবসায়ী আব্দুল বারীর সিরোইলের বাড়িতে হানা দিয়েছিল। ব্যবসায়ী বারী পরদিন আরএমপির বোয়ালিয়া মডেল থানায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে একটি জিডি করেছিলেন। কিন্তু তাতে একটুও দমে যায়নি চাঁদাবাজ সিন্ডিকেট।

সোমবার রাতে সন্ত্রাসীরা ফের ফোন করে ওই ব্যবসায়ীর কাছে বকেয়া ১০ লাখ টাকা চাঁদা পরিশোধে তাগাদা দিয়েছে। দ্রুত সময়ে এই চাঁদা পরিশোধ না করলে নির্ঘাত লাশ হতে হবে বলেও হুমকি দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। ব্যবসায়ী আব্দুল বারী জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে মঙ্গলবার আবার বোয়ালিয়া থানায় আরেকটি জিডি করেছেন।

একটি গ্রুপের রাজশাহী অঞ্চলের ডিজিএম আব্দুল বারী অভিযোগে বলেছেন, সোমবার দিনগত রাত ৯টা ২২ মিনিটে তিনি শিল্পনগরী মসজিদের সামনে অবস্থান করছিলেন। তার নম্বরে একটি কল আসে। কলটি তিনি রিসিভ করলেও কলার কোনো কথা না বলে কেটে দেন। এর কিছুক্ষণ পর একই নম্বর থেকে পরপর চারবার কল আসে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে কলটি না ধরে ৯টা ৩৬ মিনিটে ব্যবসায়ী বারী কল ব্যাক করেন।

ফোনটি ধরে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি বলেন, জাফর ভাইকে তাড়াতাড়ি ১০ লাখ টাকা দিয়ে দেবেন। আমাদের সঙ্গে লাগতে আসলে একবারেই খমত করে দিব।

আব্দুল বারী বলেন, গত ১৩ এপ্রিল রাতে রাজশাহীর ১০নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আহম্মেদের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী চাঁদার দাবিতে তার বাড়িতে চড়াও হয়।

আব্দুল বারীর আরও অভিযোগ, সপুরা এলাকার তার কেনা একটি জমি নিয়ে একটি পক্ষের সঙ্গে তার বিরোধ চলছে। আদালতে উভয় পক্ষে মামলা মোকদ্দমা আছে। সম্প্রতি তার প্রতিপক্ষের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা জমির সীমানা প্রাচীর ভেঙে ফেলে। তিনি পুলিশের সহায়তায় তা পুন:নির্মাণ করেন। এরপর থেকেই আওয়ামী লীগ নেতা জাফর আহম্মেদ ও তার ভাই আব্দুর রাজ্জাক রাজনসহ সন্ত্রাসীরা তার কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছে। তিনি টাকা দিতে অস্বীকার করায় তাকে একাধিকবার ফোনে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মণ বলেন, ব্যবসায়ীকে হুমকির বিষয়টিকে তারা গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে তদন্ত করছেন। দ্রুতই ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন