স্যালাইন-ওষুধ না পাওয়ায় ডায়রিয়ায় কৃষকের মত্যু
jugantor
স্যালাইন-ওষুধ না পাওয়ায় ডায়রিয়ায় কৃষকের মত্যু

  কাঁঠালিয়া (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি  

২০ এপ্রিল ২০২১, ২২:৫৪:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলার বাঁশবুনিয়ায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মানিক বেপারি (৪৭) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। কোনো স্যালাইন ও ওষুধ না পাওয়ায় মঙ্গলবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার মৃত্যু হয়।

মানিক বেপারি উপজেলার বাঁশবুনিয়া গ্রামের মৃত খবির উদ্দিনের ছেলে।

স্বজনরা জানান, সোমবার গভীর রাতে দিসি ডায়রিয়া আক্রান্ত হন। এলাকায় কোনো স্যালাইন ও ওষুধ না পাওয়ায় সকালে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপতালে ভর্তি করা হয়। এর কিছুক্ষণ পরই মানিক মারা যান।

স্থানীয় ইউপি সদস্য নকিবুল ইসলাম জানান, ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার পর বিলম্বে হাসপাতালে নেয়ায় পানিশূন্যতায় মানিক বেপারির মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত দুই দিনে (সোম ও মঙ্গলবার) বিকাল পর্যন্ত কাঁঠালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স (আমুয়া) ৯২ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছেন। আশঙ্কাজনভাবে রোগীর চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালের মেঝে ও বারান্দায় গাদাগাদি করে চিকিৎসা নিচ্ছেন আক্রান্তরা। তবে আইভি স্যালাইন ও ওষুধ সংকটের কারণে চিকিৎসাসেবা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

উপজেলা আবাসিক (ভারপ্রাপ্ত) মেডিকেল অফিসার মো. মিজানুর রহমান জানান, মানিক বেপারি যদিও ডায়রিয়ার ছিমটম নিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু পূর্ব থেকেই তার হার্টে সমস্যা ছিল, তাই স্ট্রোক করে মানিক বেপারির মত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তাপস কুমার তালুকদার জানান, দ্রুত স্যালইন সরবরাহের জন্য ইউএনও এবং সিভিল সার্জন আন্তরিকভাবে চেষ্টা করছেন। এছাড়া আমাদের সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুন ব্যক্তিগতভাবে দুই হাজার ব্যাগ স্যালাইন দিচ্ছেন। বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে কথা হয়েছে আশাকরি ২-৩ দিনের মধ্যে স্যালাইনের সংকট সমাধান হবে।

স্যালাইন-ওষুধ না পাওয়ায় ডায়রিয়ায় কৃষকের মত্যু

 কাঁঠালিয়া (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি 
২০ এপ্রিল ২০২১, ১০:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলার বাঁশবুনিয়ায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মানিক বেপারি (৪৭) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। কোনো স্যালাইন ও ওষুধ না পাওয়ায় মঙ্গলবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার মৃত্যু হয়।

মানিক বেপারি উপজেলার বাঁশবুনিয়া গ্রামের মৃত খবির উদ্দিনের ছেলে।

স্বজনরা জানান, সোমবার গভীর রাতে দিসি ডায়রিয়া আক্রান্ত হন। এলাকায় কোনো স্যালাইন ও ওষুধ না পাওয়ায় সকালে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপতালে ভর্তি করা হয়। এর কিছুক্ষণ পরই মানিক মারা যান।

স্থানীয় ইউপি সদস্য নকিবুল ইসলাম জানান, ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার পর বিলম্বে হাসপাতালে নেয়ায় পানিশূন্যতায় মানিক বেপারির মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত দুই দিনে (সোম ও মঙ্গলবার) বিকাল পর্যন্ত কাঁঠালিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স (আমুয়া) ৯২ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছেন। আশঙ্কাজনভাবে রোগীর চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালের মেঝে ও বারান্দায় গাদাগাদি করে চিকিৎসা নিচ্ছেন আক্রান্তরা। তবে আইভি স্যালাইন ও ওষুধ সংকটের কারণে চিকিৎসাসেবা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।
 
উপজেলা আবাসিক (ভারপ্রাপ্ত) মেডিকেল অফিসার মো. মিজানুর রহমান জানান, মানিক বেপারি যদিও ডায়রিয়ার ছিমটম নিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু পূর্ব থেকেই তার হার্টে সমস্যা ছিল, তাই স্ট্রোক করে মানিক বেপারির মত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তাপস কুমার তালুকদার জানান, দ্রুত স্যালইন সরবরাহের জন্য ইউএনও এবং সিভিল সার্জন আন্তরিকভাবে চেষ্টা করছেন। এছাড়া আমাদের সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুন ব্যক্তিগতভাবে দুই হাজার ব্যাগ স্যালাইন দিচ্ছেন। বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে কথা হয়েছে আশাকরি ২-৩ দিনের মধ্যে স্যালাইনের সংকট সমাধান হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন