একখণ্ড জমির জন্য প্রাণ গেল বৃদ্ধের
jugantor
একখণ্ড জমির জন্য প্রাণ গেল বৃদ্ধের

  হবিগঞ্জ ও বানিয়াচং প্রতিনিধি  

২০ এপ্রিল ২০২১, ২৩:০৩:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে বাড়ির একখণ্ড জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত ও কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। মঙ্গলবার দুপুরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, উপজেলা সদরের প্রথম রেখ গ্রামের শেলু মিয়া এবং জাকির মিয়ার মধ্যে একখণ্ড বাড়ির জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু কোনো সমাধান হয়নি।

ওই বিরোধের জের ধরে সোমবার উভপক্ষের লোকদের মধ্যে একবার সংঘর্ষ হয়। মঙ্গলবার দুপুরে ফের উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই হোসাইন আহমদ (৬০) নামে এক ব্যক্তি মারা যান। এতে আরও ২০ জন আহত হলে তাদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. এমরান হোসেন জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত আছে।

একখণ্ড জমির জন্য প্রাণ গেল বৃদ্ধের

 হবিগঞ্জ ও বানিয়াচং প্রতিনিধি 
২০ এপ্রিল ২০২১, ১১:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে বাড়ির একখণ্ড জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত ও কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। মঙ্গলবার দুপুরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, উপজেলা সদরের প্রথম রেখ গ্রামের শেলু মিয়া এবং জাকির মিয়ার মধ্যে একখণ্ড বাড়ির জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু কোনো সমাধান হয়নি।

ওই বিরোধের জের ধরে সোমবার উভপক্ষের লোকদের মধ্যে একবার সংঘর্ষ হয়। মঙ্গলবার দুপুরে ফের উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই হোসাইন আহমদ (৬০) নামে এক ব্যক্তি মারা যান। এতে আরও ২০ জন আহত হলে তাদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. এমরান হোসেন জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত আছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন