সাবেক স্ত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ভাইরালের হুমকি, সংঘর্ষে আহত ১২
jugantor
সাবেক স্ত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ভাইরালের হুমকি, সংঘর্ষে আহত ১২

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া   

২২ এপ্রিল ২০২১, ২৩:০১:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে সাবেক স্ত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল করার হুমকির জের ধরে দুইপক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১২ জন অহত, কয়েকটি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আহতদের বাঞ্ছারামপুর ও ছলিমগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় বাঞ্ছারামপুর মডেল থানায় ভুক্তভোগীর চাচা আব্দুল মতিন বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার ৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ৭-৮ জনকে আসামি করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এলাকাবাসী ও থানায় দেওয়া লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার পাহাড়িয়াকান্দি ইউনিয়নের হিজুলিয়াকান্দি গ্রামের খোকন মিয়ার ছেলে জাকির হোসেন একই বংশের চাচা লিল মিয়ার মেয়ে অন্তরা আক্তারের সঙ্গে প্রেম করলে পরে পারিবারিকভাবে গত ১ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর অন্তরার আপত্তিকর অনেক ভিডিও ধারণ করে রাখে জাকির।

বিয়ের পর থেকেই তাদের মাঝে শুরু হয় ঝগড়া-বিবাদ। বিয়ের ৬ মাস পর জাকির অন্তরাকে তালাক দেয়। আগে ধারণ করা আপত্তিকর ভিডিওগুলো ফেসবুকে ভাইরাল করে দেওয়ার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় অন্তরার পরিবারের পক্ষ থেকে জাকিরের পরিবারকে জানালে উল্টা মেয়ের পরিবারকে হত্যার হুমকি দিয়ে অন্তরা, তার মা, বোনকে মারধর করে।

এ ঘটনার জের ধরে ৯ মার্চ বাঞ্ছারামপুর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন অন্তরার বাবা লিল মিয়া। অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিতে থাকে বিবাদীরা। মেয়ের বাবা অভিযোগ না তুলার কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে জাকিরের পরিবার ও সহযোগীরা গত বুধবার সন্ধ্যায় অন্তরাদের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে।

এ সময় আহত হন অন্তরার চাচা আব্দুল মতিন (৬০), চাচি নুরজাহান বেগম (৫৮), চাচাতো ভাই জালু মিয়া (৩৫), তার স্ত্রী সোনিয়া আক্তার (২৩), চাচাতো ভাই নাদিম (২৫)। এ সময় হামলাকারীরা ৩টি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, আসবাবপত্র ও বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে অন্তরা আক্তার বলেন, জাকিরের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছিল তালাকও হয়ে গেছে। আমি যখন তার বউ ছিলাম সেই সময় সে আমার কিছু ব্যক্তিগত ভিডিও করে রাখে। তালাকের পর গত মার্চ মাসে সে ভিডিওগুলো ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। এতে আমি সবসময় আতঙ্কিত থাকি। এমনকি উল্টো আমাদের পরিবারের সবাইকে মারধর করে। আমরা অসহায় হয়ে আছি।

এ বিষয়ে বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার ওসি রাজু আহমেদ বলেন, হিজুলিয়াকান্দি গ্রামের ঘটনায় লিখিত এজাহার পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।

সাবেক স্ত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ভাইরালের হুমকি, সংঘর্ষে আহত ১২

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া  
২২ এপ্রিল ২০২১, ১১:০১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে সাবেক স্ত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল করার হুমকির জের ধরে দুইপক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১২ জন অহত, কয়েকটি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

আহতদের বাঞ্ছারামপুর ও ছলিমগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় বাঞ্ছারামপুর মডেল থানায় ভুক্তভোগীর চাচা আব্দুল মতিন বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার ৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ৭-৮ জনকে আসামি করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

এলাকাবাসী ও থানায় দেওয়া লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার পাহাড়িয়াকান্দি ইউনিয়নের হিজুলিয়াকান্দি গ্রামের খোকন মিয়ার ছেলে জাকির হোসেন একই বংশের চাচা লিল মিয়ার মেয়ে অন্তরা আক্তারের সঙ্গে প্রেম করলে পরে পারিবারিকভাবে গত ১ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর অন্তরার আপত্তিকর অনেক ভিডিও ধারণ করে রাখে জাকির। 

বিয়ের পর থেকেই তাদের মাঝে শুরু হয় ঝগড়া-বিবাদ। বিয়ের ৬ মাস পর জাকির অন্তরাকে তালাক দেয়। আগে ধারণ করা আপত্তিকর ভিডিওগুলো ফেসবুকে ভাইরাল করে দেওয়ার হুমকি দেয়। এ ঘটনায় অন্তরার পরিবারের পক্ষ থেকে জাকিরের পরিবারকে জানালে উল্টা মেয়ের পরিবারকে হত্যার হুমকি দিয়ে অন্তরা, তার মা, বোনকে মারধর করে। 

এ ঘটনার জের ধরে ৯ মার্চ বাঞ্ছারামপুর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন অন্তরার বাবা লিল মিয়া। অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিতে থাকে বিবাদীরা। মেয়ের বাবা অভিযোগ না তুলার কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে জাকিরের পরিবার ও সহযোগীরা গত বুধবার সন্ধ্যায় অন্তরাদের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। 

এ সময় আহত হন অন্তরার চাচা আব্দুল মতিন (৬০), চাচি নুরজাহান বেগম (৫৮), চাচাতো ভাই জালু মিয়া (৩৫), তার স্ত্রী সোনিয়া আক্তার (২৩), চাচাতো ভাই নাদিম (২৫)। এ সময় হামলাকারীরা ৩টি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার, আসবাবপত্র ও বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যায়। 

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে অন্তরা আক্তার বলেন, জাকিরের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছিল তালাকও হয়ে গেছে। আমি যখন তার বউ ছিলাম সেই সময় সে আমার কিছু ব্যক্তিগত ভিডিও করে রাখে। তালাকের পর গত মার্চ মাসে সে ভিডিওগুলো ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। এতে আমি সবসময় আতঙ্কিত থাকি। এমনকি উল্টো আমাদের পরিবারের সবাইকে মারধর করে। আমরা অসহায় হয়ে আছি।

এ বিষয়ে বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার ওসি রাজু আহমেদ বলেন, হিজুলিয়াকান্দি গ্রামের ঘটনায় লিখিত এজাহার পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন