মাদক বিক্রিতে বাধা দেয়ায় রোজাদারকে ‘হত্যাচেষ্টা’
jugantor
মাদক বিক্রিতে বাধা দেয়ায় রোজাদারকে ‘হত্যাচেষ্টা’

  ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি  

২৩ এপ্রিল ২০২১, ১৫:৩২:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

আহত

মাদক বিক্রিতে বাধা দেয়ায় মাসুদ (৩২) নামের এক যুবককে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে মাদক কারবারির বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলায় কালিবাড়ী এলাকায়।

আহত মাসুদ ওই এলাকার তৈয়ব আলীর ছেলে। আর অভিযুক্ত সোহেল রানা (২৮) একই এলাকার আব্দুর রশিদের ছেলে।

আহত মাসুদ ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দীর্ঘ দিন ধরে মাদক কারবারের সঙ্গে জড়িত সোহেল রানা। এলাকার মাদকসেবীদের কাছে গাঁজা, ইয়াবা ও ফেনসিডিল বিক্রি করেন তিনি। এ নিয়ে মাসুদ একাধিকবার তাকে মাদক বিক্রি নিষেধ ও বিভিন্নভাবে বাধা দেন। এ কারণে সোহেল তার প্রতি ক্ষিপ্ত ছিলেন। বিষয়টি নিয়ে মাসুদকে হুমকিও দিয়েছিলেন সোহেল।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাড়িতে ইফতার করে মাসুদ কালিবাড়ী বাজার এলাকায় আসলে অভিযুক্ত সোহেল তার মাথায় এলোপাথাড়ি স্টিলের পাইপ দিয়ে মারতে থাকেন। আঘাতে তার মাথা ফেটে যায়। তার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সোহেল পালিয়ে যায়।

পরে তাকে উদ্ধার করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়।

সোহেলের বিরুদ্ধে এর আগেও জুয়েল নামের এক যুবককে ছুরি মারার অভিযোগ রয়েছে। আশেপাশের দোকানিরা সোহেলকে এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী হিসেবেই জানেন। ভাঙ্গুড়া থানা থেকে চারশ মিটার দূরে একটি চায়ের দোকানের আড়ালে তিনি দীর্ঘদিন এই কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছেন।

সজীব নামে স্থানীয় এক কলেজছাত্র অভিযোগ করেন, বখাটে সোহেল এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। দীর্ঘদিন ধরে তিনি এলাকায় গাঁজা, ইয়াবা ও ফেনসিডিলের ব্যবসা করছেন। কেউ এর প্রতিবাদ করলেই সোহেল তাকে মারধর করে।

অভিযোগের বিষয়ে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মুহম্মদ আনোয়ার হোসেন যুগান্তরকে বলেন, ঘটনার বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।

মাদক বিক্রিতে বাধা দেয়ায় রোজাদারকে ‘হত্যাচেষ্টা’

 ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি 
২৩ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আহত
ছবি-যুগান্তর

মাদক বিক্রিতে বাধা দেয়ায় মাসুদ (৩২) নামের এক যুবককে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে মাদক কারবারির বিরুদ্ধে। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটেছে পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলায় কালিবাড়ী এলাকায়। 

আহত মাসুদ ওই এলাকার তৈয়ব আলীর ছেলে। আর অভিযুক্ত সোহেল রানা (২৮) একই এলাকার আব্দুর রশিদের ছেলে। 

আহত মাসুদ ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দীর্ঘ দিন ধরে মাদক কারবারের সঙ্গে জড়িত সোহেল রানা। এলাকার মাদকসেবীদের কাছে গাঁজা, ইয়াবা ও ফেনসিডিল বিক্রি করেন তিনি। এ নিয়ে মাসুদ একাধিকবার তাকে মাদক বিক্রি নিষেধ ও বিভিন্নভাবে বাধা দেন। এ কারণে সোহেল তার প্রতি ক্ষিপ্ত ছিলেন। বিষয়টি নিয়ে মাসুদকে হুমকিও দিয়েছিলেন সোহেল। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাড়িতে ইফতার করে মাসুদ কালিবাড়ী বাজার এলাকায় আসলে অভিযুক্ত সোহেল তার মাথায় এলোপাথাড়ি স্টিলের পাইপ দিয়ে মারতে থাকেন। আঘাতে তার মাথা ফেটে যায়। তার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সোহেল পালিয়ে যায়। 

পরে তাকে উদ্ধার করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়। 

সোহেলের বিরুদ্ধে এর আগেও জুয়েল নামের এক যুবককে ছুরি মারার অভিযোগ রয়েছে। আশেপাশের দোকানিরা সোহেলকে এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী হিসেবেই জানেন। ভাঙ্গুড়া থানা থেকে চারশ মিটার দূরে একটি চায়ের দোকানের আড়ালে তিনি দীর্ঘদিন এই কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছেন।

সজীব নামে স্থানীয় এক কলেজছাত্র অভিযোগ করেন, বখাটে সোহেল এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। দীর্ঘদিন ধরে তিনি এলাকায় গাঁজা, ইয়াবা ও ফেনসিডিলের ব্যবসা করছেন। কেউ এর প্রতিবাদ করলেই সোহেল তাকে মারধর করে।

অভিযোগের বিষয়ে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মুহম্মদ আনোয়ার হোসেন যুগান্তরকে বলেন, ঘটনার বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন