থানায় আসামিকে ফুল দিয়ে বরণ!
jugantor
থানায় আসামিকে ফুল দিয়ে বরণ!

  শেরপুর প্রতিনিধি  

২৬ এপ্রিল ২০২১, ২২:৫৭:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে মাদক মামলায় ৬ মাসের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামি থানায় আত্মসমর্পণ করার পর তাকে হাতকড়া না পরিয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। রোববার বিকেলে থানায় উপস্থিত হয়ে আত্মসমর্পণ করেন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আব্দুর রাজ্জাক (৩৮)।

রাজ্জাক ঝিনাইগাতী সদর ইউনিয়নের বনকালি এলাকার মৃত আব্দুল জব্বারের ছেলে।

জানা যায়, আব্দুর রাজ্জাক ২০১৪ সালের শেরপুরের ঝিনাইগাতী থানার একটি মাদক মামলার আসামি ছিলেন। মামলার পর থেকেই পালিয়ে জীবনযাপন করছিলেন তিনি। মামলার দীর্ঘ বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে চলতি বছরে আদালত তাকে ৬ মাসের সাজা দেন এবং আব্দুর রাজ্জাক পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

কিছুদিন আগে ঝিনাইগাতী থানায় সেই গ্রেফতারি পরোয়ানা পাঠানো হয়। এরপর থেকে তাকে গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছিল থানার পুলিশ। একই সঙ্গে পরিবারের মাধ্যমে তার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে ওই আসামির সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেন ঝিনাইগাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান।

এক পর্যায়ে ওই আসামিকে বুঝিয়ে পালিয়ে না থেকে আত্মসমর্পণের পরামর্শ দেন এবং তাকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি। পরে দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর রোববার বিকালে স্বেচ্ছায় থানায় এসে ধরা দেন রাজ্জাক। ওই সময় তাকে হাতকড়ার বদলে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন ওসি। পরে হাতকড়া ছাড়াই বিকালে তাকে আদালতে সোপর্দ করা হলে বিচারক তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আসামি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, মামলার পর থেকে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে জীবনযাপন করছিলাম। আমার অনুপস্থিতিতে আদালত আমাকে ৬ মাসের সাজা দেয়। পরে ওসি সাহেবের পরামর্শে থানায় উপস্থিত হয়ে স্বেচ্ছায় ধরা দেই।

এ ব্যাপারে ঝিনাইগাতী থানার ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান জানান, আব্দুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা পাওয়ার পর তার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে তাকে পালিয়ে না থেকে আত্মসমর্পণের পরামর্শ দিলে থানায় এসে ধরা দেন তিনি।

থানায় আসামিকে ফুল দিয়ে বরণ!

 শেরপুর প্রতিনিধি 
২৬ এপ্রিল ২০২১, ১০:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে মাদক মামলায় ৬ মাসের সাজাপ্রাপ্ত এক আসামি থানায় আত্মসমর্পণ করার পর তাকে হাতকড়া না পরিয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। রোববার বিকেলে থানায় উপস্থিত হয়ে আত্মসমর্পণ করেন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আব্দুর রাজ্জাক (৩৮)।

রাজ্জাক ঝিনাইগাতী সদর ইউনিয়নের বনকালি এলাকার মৃত আব্দুল জব্বারের ছেলে।

জানা যায়, আব্দুর রাজ্জাক ২০১৪ সালের শেরপুরের ঝিনাইগাতী থানার একটি মাদক মামলার আসামি ছিলেন। মামলার পর থেকেই পালিয়ে জীবনযাপন করছিলেন তিনি। মামলার দীর্ঘ বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে চলতি বছরে আদালত তাকে ৬ মাসের সাজা দেন এবং আব্দুর রাজ্জাক পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

কিছুদিন আগে ঝিনাইগাতী থানায় সেই গ্রেফতারি পরোয়ানা পাঠানো হয়। এরপর থেকে তাকে গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছিল থানার পুলিশ। একই সঙ্গে পরিবারের মাধ্যমে তার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে ওই আসামির সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেন ঝিনাইগাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান।

এক পর্যায়ে ওই আসামিকে বুঝিয়ে পালিয়ে না থেকে আত্মসমর্পণের পরামর্শ দেন এবং তাকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি। পরে দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর রোববার বিকালে স্বেচ্ছায় থানায় এসে ধরা দেন রাজ্জাক। ওই সময় তাকে হাতকড়ার বদলে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন ওসি। পরে হাতকড়া ছাড়াই বিকালে তাকে আদালতে সোপর্দ করা হলে বিচারক তাকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আসামি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, মামলার পর থেকে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে জীবনযাপন করছিলাম। আমার অনুপস্থিতিতে আদালত আমাকে ৬ মাসের সাজা দেয়। পরে ওসি সাহেবের পরামর্শে থানায় উপস্থিত হয়ে স্বেচ্ছায় ধরা দেই।

এ ব্যাপারে ঝিনাইগাতী থানার ওসি মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান জানান, আব্দুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা পাওয়ার পর  তার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে তাকে পালিয়ে না থেকে আত্মসমর্পণের পরামর্শ দিলে থানায় এসে ধরা দেন তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন