বিচার ব্যবস্থার ওপরও আজকে হস্তক্ষেপ চলছে: কাদের মির্জা
jugantor
বিচার ব্যবস্থার ওপরও আজকে হস্তক্ষেপ চলছে: কাদের মির্জা

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

২৮ এপ্রিল ২০২১, ১৯:৩৬:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বিচার ব্যবস্থার ওপরও আজকে হস্তক্ষেপ চলছে বলে মন্তব্য করেছেন নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভা মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। মঙ্গলবার রাত ১০টায় বসুরহাট পৌরসভা ভবন থেকে তার অনুসারী স্বপন মাহমুদের ফেসবুক থেকে লাইভে এসে তিনি এ মন্তব্য করেন।

আবদুল কাদের মির্জা বলেন, পুলিশ এখানে আমাদের ছেলেদের গ্রেফতার করছে, যারা দলের জন্য দীর্ঘদিন ত্যাগ স্বীকার করেছে। কোম্পানীগঞ্জের প্রতিটি ইউনিয়নে যারা জনপ্রিয় তাদের হয়তো গ্রেফতার করছে। পুলিশ এখানে সন্ত্রাসী অভিযান ও এক তরফা তাণ্ডব চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আজ (মঙ্গলবার) তাদের (কাদের মির্জা প্রতিপক্ষ) ৪ জনের জামিন হয়েছে। তাদের (প্রতিপক্ষ) কর্মীদের গ্রেফতারের পর একদিন বা দুই দিন পর জামিন হয়ে যায়। আর আমাদের ছেলেরা (কাদের মির্জার অনুসারী) সপ্তাহের পর সপ্তাহ জেলে পড়ে আছে। উকিল দুই-এক দিন পরপর তাদের জামিন চান, কিন্তু কোর্ট দেন না। বিচার ব্যবস্থার ওপরও আজকে হস্তক্ষেপ চলছে।

কাদের মির্জা অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ আমার পৌরসভায় লোক উঠতে দেয় না। গত দুই মাস পুলিশের কারণে আমার দুই লাখ টাকাও আয় হয়নি। ৫৫-৬০ লাখ টাকা ত্রাণ বিতরণে ব্যয় করতে হয়েছে। আমার পৌরসভার ক্যাম্পাস থেকে পুলিশ মানুষকে ধরে নিয়ে যায়-এ সাহস তাদের কে দিয়েছে। আমাদের পরিচালনা করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। আমার পৌরসভায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ করার অধিকার কে দিয়েছে।

বিচার ব্যবস্থার ওপরও আজকে হস্তক্ষেপ চলছে: কাদের মির্জা

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
২৮ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৩৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিচার ব্যবস্থার ওপরও আজকে হস্তক্ষেপ চলছে বলে মন্তব্য করেছেন নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভা মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। মঙ্গলবার রাত ১০টায় বসুরহাট পৌরসভা ভবন থেকে তার অনুসারী স্বপন মাহমুদের ফেসবুক থেকে লাইভে এসে তিনি এ মন্তব্য করেন।

আবদুল কাদের মির্জা বলেন, পুলিশ এখানে আমাদের ছেলেদের গ্রেফতার করছে, যারা দলের জন্য দীর্ঘদিন ত্যাগ স্বীকার করেছে। কোম্পানীগঞ্জের প্রতিটি ইউনিয়নে যারা জনপ্রিয় তাদের হয়তো গ্রেফতার করছে। পুলিশ এখানে সন্ত্রাসী অভিযান ও এক তরফা তাণ্ডব চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আজ (মঙ্গলবার) তাদের (কাদের মির্জা প্রতিপক্ষ) ৪ জনের জামিন হয়েছে। তাদের (প্রতিপক্ষ) কর্মীদের গ্রেফতারের পর একদিন বা দুই দিন পর জামিন হয়ে যায়। আর আমাদের ছেলেরা (কাদের মির্জার অনুসারী) সপ্তাহের পর সপ্তাহ জেলে পড়ে আছে। উকিল দুই-এক দিন পরপর তাদের জামিন চান, কিন্তু কোর্ট দেন না। বিচার ব্যবস্থার ওপরও আজকে হস্তক্ষেপ চলছে।

কাদের মির্জা অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ আমার পৌরসভায় লোক উঠতে দেয় না। গত দুই মাস পুলিশের কারণে আমার দুই লাখ টাকাও আয় হয়নি। ৫৫-৬০ লাখ টাকা ত্রাণ বিতরণে ব্যয় করতে হয়েছে। আমার পৌরসভার ক্যাম্পাস থেকে পুলিশ মানুষকে ধরে নিয়ে যায়-এ সাহস তাদের কে দিয়েছে। আমাদের পরিচালনা করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। আমার পৌরসভায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ করার অধিকার কে দিয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আবদুল কাদের মির্জা

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন