বাবাকে পিটিয়ে হত্যা করল ছেলে
jugantor
বাবাকে পিটিয়ে হত্যা করল ছেলে

  সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৯ এপ্রিল ২০২১, ২১:১০:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

মানিকগঞ্জের সিংগাইরে বাবাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে ছেলে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার জামির্ত্তা ইউনিয়নের চন্দনপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে ঘরের ভিতরে সেলিম হোসেন খোকনকে (৫০) পিটিয়ে খুন করে ছেলে কাউছার হোসেন (২২)।

নিহত সেলিম হোসেন খোকন ওই গ্রামের মৃত ফালান ড্রাইভারের ছেলে। তিনি ৫ সন্তানের জনক।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পারিবারিক কলহের জের ধরে সেলিম হোসেন খোকনকে তার দ্বিতীয় পুত্র কাউছার লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। এ সময় খবর পেয়ে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে কাউছার পালিয়ে যায়।

নিহতের বোন মমতাজ বেগম জানান, আমার ভাই ইতোপূর্বে গাড়ির ড্রাইভার ছিল। গত ৭ মাস ধরে প্যারালাইসিস হয়ে বাড়িতেই চিকিৎসা নিচ্ছিল। অনেকটা সুস্থ হয়েও ওঠেছিলেন তিনি। ঘটনার সময় তার ছেলে কাউছার এবং স্ত্রী আসমা ঘরের ভিতর তার শয়ন কক্ষে পিটিয়ে হত্যা করে। ৬ বছরের ভাতিজি খাদিজার কাছ থেকে খবর পেয়ে আমি লোকজন নিয়ে ঘটনাস্থলে গেলে কাউছার আমাকেও হত্যার ভয় দেখিয়ে পালিয়ে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, অভিযুক্ত কাউছার পেশায় মিস্ত্রি হলেও মাদকাসক্ত। এ নিয়ে তাদের অভাব-অনটনের সংসারে প্রতিনিয়ত ঝগড়াঝাটি লেগেই থাকত।

পুলিশ সুরতহাল রিপোর্ট শেষে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।

এ ব্যাপারে শান্তিপুর (বাঘুলি) তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মো. লুৎফর রহমান বলেন, এ হত্যার ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বাবাকে পিটিয়ে হত্যা করল ছেলে

 সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৯ এপ্রিল ২০২১, ০৯:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মানিকগঞ্জের সিংগাইরে বাবাকে পিটিয়ে হত্যা করেছে ছেলে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার জামির্ত্তা ইউনিয়নের চন্দনপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে ঘরের ভিতরে সেলিম হোসেন খোকনকে (৫০) পিটিয়ে খুন করে ছেলে কাউছার হোসেন (২২)। 

নিহত সেলিম হোসেন খোকন ওই গ্রামের মৃত ফালান ড্রাইভারের ছেলে। তিনি ৫ সন্তানের জনক।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পারিবারিক কলহের জের ধরে সেলিম হোসেন খোকনকে তার দ্বিতীয় পুত্র কাউছার লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। এ সময় খবর পেয়ে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে কাউছার পালিয়ে যায়।

নিহতের বোন মমতাজ বেগম জানান, আমার ভাই ইতোপূর্বে গাড়ির ড্রাইভার ছিল। গত ৭ মাস ধরে প্যারালাইসিস হয়ে বাড়িতেই চিকিৎসা নিচ্ছিল। অনেকটা সুস্থ হয়েও ওঠেছিলেন তিনি। ঘটনার সময় তার ছেলে কাউছার এবং স্ত্রী আসমা ঘরের ভিতর তার শয়ন কক্ষে পিটিয়ে হত্যা করে। ৬ বছরের ভাতিজি খাদিজার কাছ থেকে খবর পেয়ে আমি লোকজন নিয়ে ঘটনাস্থলে গেলে কাউছার আমাকেও হত্যার ভয় দেখিয়ে পালিয়ে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, অভিযুক্ত কাউছার পেশায় মিস্ত্রি হলেও মাদকাসক্ত। এ নিয়ে তাদের অভাব-অনটনের সংসারে প্রতিনিয়ত ঝগড়াঝাটি লেগেই থাকত।

পুলিশ সুরতহাল রিপোর্ট শেষে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।

এ ব্যাপারে শান্তিপুর (বাঘুলি) তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মো. লুৎফর রহমান বলেন, এ হত্যার ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন