প্রেমিকার স্বামীর কাছে আপত্তিকর ছবি পাঠিয়ে গ্রেফতার প্রেমিক
jugantor
প্রেমিকার স্বামীর কাছে আপত্তিকর ছবি পাঠিয়ে গ্রেফতার প্রেমিক

  দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

৩০ এপ্রিল ২০২১, ২২:৩৮:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার দেবিদ্বার পৌর এলাকার এক তরুণীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে নাঙ্গলকোট উপজেলার ভুলয়াপাড়া গ্রামের এক যুবকের। প্রেমের সুযোগে তরুণীটির বেশ কয়েকটি আপত্তিকর ছবি সংগ্রহ করে রেখেছিল ওই যুবক। সম্প্রতি ওই তরুণীর বিয়ে হয় অন্যত্র।

এতে ওই যুবক তার সংরক্ষণে থাকা কিছু আপত্তিকর ছবি পাঠায় ওই তার স্বামীর কাছে। এতে সংসারে নামে বিপত্তি। এ ঘটনায় ওই তরুণী গত বৃহস্পতিবার দেবিদ্বার থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলায় আসামি করা হয় প্রাক্তন প্রেমিক নইমুল ইসলাম রিয়াদকে। এরপরই অভিযানে নামে পুলিশ। তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে দেবিদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক মো. সোহরাব হোসেন ভূইয়া নাঙ্গলকোট উপজেলার ভুলুয়াপাড়া থেকে অভিযুক্ত নইমুল ইসলাম রিয়াদকে গ্রেফতার করে দেবিদ্বার থানায় নিয়ে আসেন। আটক নইমুল ইসলাম রিয়াদ নাঙ্গলকোট উপজেলার ভুলুয়াপাড়া এলাকার মো. সেলিম হোসেনের ছেলে। বৃহস্পতিবার বিকালে আদালতের মাধ্যমে তাকে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

দেবিদ্বার থানার এসআই মো. সোহরাব হোসেন ভূইয়া বলেন, ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর সঙ্গে নাঙ্গলকোট উপজেলার ভুলয়াপাড়া গ্রামের নইমুল ইসলাম রিয়াদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পরিচয়। পরিচয়ের প্রথমে রিয়াদ তার নাম হৃদয় বলে পরিচয় দেয়। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠলে তারা কুমিল্লা ময়নামতি কোটবাড়িসহ বিভিন্ন এলাকায় দেখা সাক্ষাত করেন।

এভাবে তিন মাস যাওয়ার পর এক পর্যায়ে ওই ছাত্রী বিয়ের জন্য বললে তাতে আপত্তি জানায় রিয়াদ এবং তাকে অন্যত্র বিয়ে করতে পরামর্শ দেয়। পরে গত কিছুদিন আগে ওই ছাত্রীর অন্যত্র বিয়ে হয়। বিয়ের ১০/১৫ দিন পর ওই ছাত্রীর স্বামীর ইমো নম্বর সংগ্রহ করে ওই নম্বরে ছাত্রীর কিছু আপত্তিকর ছবি পাঠায় রিয়াদ এবং তার সঙ্গে পূর্বে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে তার স্বামীকে জানায়।

দেবিদ্বার থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান বলেন, ভুক্তভোগী ছাত্রী বাদি হয়ে ওই যুবকের বিরুদ্ধে দেবিদ্বার থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত রিয়াদকে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

প্রেমিকার স্বামীর কাছে আপত্তিকর ছবি পাঠিয়ে গ্রেফতার প্রেমিক

 দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
৩০ এপ্রিল ২০২১, ১০:৩৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার দেবিদ্বার পৌর এলাকার এক তরুণীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে নাঙ্গলকোট উপজেলার ভুলয়াপাড়া গ্রামের এক যুবকের। প্রেমের সুযোগে তরুণীটির বেশ কয়েকটি আপত্তিকর ছবি সংগ্রহ করে রেখেছিল ওই যুবক। সম্প্রতি ওই তরুণীর বিয়ে হয় অন্যত্র। 

এতে ওই যুবক তার সংরক্ষণে থাকা কিছু আপত্তিকর ছবি পাঠায় ওই তার স্বামীর কাছে। এতে সংসারে নামে বিপত্তি। এ ঘটনায় ওই তরুণী গত বৃহস্পতিবার দেবিদ্বার থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলায় আসামি করা হয় প্রাক্তন প্রেমিক নইমুল ইসলাম রিয়াদকে। এরপরই অভিযানে নামে পুলিশ। তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে দেবিদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক মো. সোহরাব হোসেন ভূইয়া নাঙ্গলকোট উপজেলার ভুলুয়াপাড়া থেকে অভিযুক্ত নইমুল ইসলাম রিয়াদকে গ্রেফতার করে দেবিদ্বার থানায় নিয়ে আসেন। আটক নইমুল ইসলাম রিয়াদ নাঙ্গলকোট উপজেলার ভুলুয়াপাড়া এলাকার মো. সেলিম হোসেনের ছেলে। বৃহস্পতিবার বিকালে আদালতের মাধ্যমে তাকে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। 

দেবিদ্বার থানার এসআই মো. সোহরাব হোসেন ভূইয়া বলেন, ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর সঙ্গে নাঙ্গলকোট উপজেলার ভুলয়াপাড়া গ্রামের নইমুল ইসলাম রিয়াদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পরিচয়। পরিচয়ের প্রথমে রিয়াদ তার নাম হৃদয় বলে পরিচয় দেয়। পরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠলে তারা কুমিল্লা ময়নামতি কোটবাড়িসহ বিভিন্ন এলাকায় দেখা সাক্ষাত করেন। 

এভাবে তিন মাস যাওয়ার পর এক পর্যায়ে ওই ছাত্রী বিয়ের জন্য বললে তাতে আপত্তি জানায় রিয়াদ এবং তাকে অন্যত্র বিয়ে করতে পরামর্শ দেয়। পরে গত কিছুদিন আগে ওই ছাত্রীর অন্যত্র বিয়ে হয়। বিয়ের ১০/১৫ দিন পর ওই ছাত্রীর স্বামীর ইমো নম্বর সংগ্রহ করে ওই নম্বরে ছাত্রীর কিছু আপত্তিকর ছবি পাঠায় রিয়াদ এবং তার সঙ্গে পূর্বে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে তার স্বামীকে জানায়।  

দেবিদ্বার থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান বলেন, ভুক্তভোগী ছাত্রী বাদি হয়ে ওই যুবকের বিরুদ্ধে দেবিদ্বার থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন। অভিযুক্ত রিয়াদকে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন