সেই ঝুরমানের দানের জমিতে ৪০ গৃহহীনের গৃহনির্মাণ কাজের উদ্বোধন
jugantor
সেই ঝুরমানের দানের জমিতে ৪০ গৃহহীনের গৃহনির্মাণ কাজের উদ্বোধন

  বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি  

০৩ মে ২০২১, ০০:৪৪:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পে নাটোরের বাগাতিপাড়ার কৈচর পাড়া গ্রামের সেই ঝুরমান বেওয়ার দানের জমিতে ৪০ জন গৃহহীনদের জন্য গৃহনির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। নিজে গৃহহীন হয়েও গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঝুরমান বেওয়া ৮০ শতাংশ জমি দান করেন।

রোববার জামনগর মণ্ডলপাড়া গ্রামের ওই জমিতে আনুষ্ঠানিকভাবে এ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন নাটোর-১ আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল।

এ উপলক্ষে সেখানে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঝুরমান বেওয়ার নাতির জন্য চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতির ঘোষণা দিয়েছেন সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল।

এর আগে গত বছর ১৪ নভেম্বর ইউএনও প্রিয়াংকা দেবীর কাছে জমিদানের প্রয়োজনীয় দলিল হস্তান্তর করেন ঝুরমান বেওয়া। সে সময় যুগান্তরে সংবাদ পরিবেশন হলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে ঝুরমান বেওয়ার জন্য গৃহ বরাদ্দ দেওয়া হয়।

ঝুরমানের দানের জমিতে গৃহ নির্মাণের পূর্বে তাকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে নতুন বাড়ি উপহার দেওয়া হয়। সে সময় তার দানকে দেশের উজ্জ্বলতম দৃষ্টান্ত স্থাপন উল্লেখ করে জাতীয় বীর আখ্যা দেন নাটোরের জেলা প্রশাসক মো. শাহরিয়াজ।

এবার তার দানের জমিতে ৪০ জন গৃহহীনের জন্য গৃহ নির্মাণ কাজ শুরু হয়।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ইউএনও প্রিয়াংকা দেবী পালের সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন উপজেলা চেয়ারম্যান অহিদুল ইসলাম গকুল, এসিল্যান্ড নিশাত আনজুম অনন্যা, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস, জামনগর ভূমিহীন সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোত্তালেব প্রমুখ।

ইউএনও কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর অধীনে ইতোপূর্বে ৪৪ জন গৃহহীনকে নতুন বাড়ি উপহার দেওয়া হয়েছে। এবার দ্বিতীয় পর্যায়ে আরও ১২০টি গৃহ নির্মাণে বরাদ্দ পাওয়া গেছে।

প্রসঙ্গত, মানুষের বাড়িতে ঝি এর কাজ করে জীবিকা নির্বাহকারী ঝুরমান বেওয়ার নিজের কোনো গৃহ ছিল না। ভাইয়ের দেয়া জমিতে কুঁড়ে ঘরে বসবাস করতেন। ৩০ বছর পূর্বে সরকার জামনগর মৌজায় ৯৭ শতাংশ খাস জমি বন্দোবস্ত দেয়। গৃহহীনদের গৃহ নির্মাণের জন্য সেই জমি থেকে তিনি ৮০ শতাংশ জমি প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পে দান করেন।

গত ১৪ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে ঝুরমান বেওয়া ইউএনও প্রিয়াঙ্কা দেবী পালের নিকট ৮০ শতাংশ জমিদানের প্রয়োজনীয় দলিল হস্তান্তর করেন।

এ নিয়ে ঝুরমান বেওয়া জমিদান করে দেশপ্রেমের এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপনের একাধিক সংবাদ যুগান্তরে প্রকাশ পায়।

জমিদাতা ঝুরমান বেওয়া বাগাতিপাড়া উপজেলার জামনগরের কৈচর পাড়া গ্রামের মৃত কছিম উদ্দিনের মেয়ে এবং নাটোর সদরের লক্ষ্মীপুর গ্রামের মৃত হাতেম আলীর স্ত্রী।

সেই ঝুরমানের দানের জমিতে ৪০ গৃহহীনের গৃহনির্মাণ কাজের উদ্বোধন

 বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি 
০৩ মে ২০২১, ১২:৪৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পে নাটোরের বাগাতিপাড়ার কৈচর পাড়া গ্রামের সেই ঝুরমান বেওয়ার দানের জমিতে ৪০ জন গৃহহীনদের জন্য গৃহনির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। নিজে গৃহহীন হয়েও গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঝুরমান বেওয়া ৮০ শতাংশ জমি দান করেন।

রোববার জামনগর মণ্ডলপাড়া গ্রামের ওই জমিতে আনুষ্ঠানিকভাবে এ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন নাটোর-১ আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল।

এ উপলক্ষে সেখানে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঝুরমান বেওয়ার নাতির জন্য চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতির ঘোষণা দিয়েছেন সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল।

এর আগে গত বছর ১৪ নভেম্বর ইউএনও প্রিয়াংকা দেবীর কাছে জমিদানের প্রয়োজনীয় দলিল হস্তান্তর করেন ঝুরমান বেওয়া। সে সময় যুগান্তরে সংবাদ পরিবেশন হলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে ঝুরমান বেওয়ার জন্য গৃহ বরাদ্দ দেওয়া হয়।

ঝুরমানের দানের জমিতে গৃহ নির্মাণের পূর্বে তাকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে নতুন বাড়ি উপহার দেওয়া হয়। সে সময় তার দানকে দেশের উজ্জ্বলতম দৃষ্টান্ত স্থাপন উল্লেখ করে জাতীয় বীর আখ্যা দেন নাটোরের জেলা প্রশাসক মো. শাহরিয়াজ।

এবার তার দানের জমিতে ৪০ জন গৃহহীনের জন্য গৃহ নির্মাণ কাজ শুরু হয়।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ইউএনও প্রিয়াংকা দেবী পালের সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন উপজেলা চেয়ারম্যান অহিদুল ইসলাম গকুল, এসিল্যান্ড নিশাত আনজুম অনন্যা, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস, জামনগর ভূমিহীন সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোত্তালেব প্রমুখ।

ইউএনও কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর অধীনে ইতোপূর্বে ৪৪ জন গৃহহীনকে নতুন বাড়ি উপহার দেওয়া হয়েছে। এবার দ্বিতীয় পর্যায়ে আরও ১২০টি গৃহ নির্মাণে বরাদ্দ পাওয়া গেছে।

প্রসঙ্গত, মানুষের বাড়িতে ঝি এর কাজ করে জীবিকা নির্বাহকারী ঝুরমান বেওয়ার নিজের কোনো গৃহ ছিল না। ভাইয়ের দেয়া জমিতে কুঁড়ে ঘরে বসবাস করতেন। ৩০ বছর পূর্বে সরকার জামনগর মৌজায় ৯৭ শতাংশ খাস জমি বন্দোবস্ত দেয়। গৃহহীনদের গৃহ নির্মাণের জন্য সেই জমি থেকে তিনি ৮০ শতাংশ জমি প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পে দান করেন।

গত ১৪ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে ঝুরমান বেওয়া ইউএনও প্রিয়াঙ্কা দেবী পালের নিকট ৮০ শতাংশ জমিদানের প্রয়োজনীয় দলিল হস্তান্তর করেন।

এ নিয়ে ঝুরমান বেওয়া জমিদান করে দেশপ্রেমের এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপনের একাধিক সংবাদ যুগান্তরে প্রকাশ পায়।

জমিদাতা ঝুরমান বেওয়া বাগাতিপাড়া উপজেলার জামনগরের কৈচর পাড়া গ্রামের মৃত কছিম উদ্দিনের মেয়ে এবং নাটোর সদরের লক্ষ্মীপুর গ্রামের মৃত হাতেম আলীর স্ত্রী।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন