শিবচরে স্পিডবোট দুর্ঘটনা: মেহেন্দিগঞ্জে নিহত ৪ ব্যবসায়ীর দাফন সম্পন্ন
jugantor
শিবচরে স্পিডবোট দুর্ঘটনা: মেহেন্দিগঞ্জে নিহত ৪ ব্যবসায়ীর দাফন সম্পন্ন

  বরিশাল ব্যুরো  

০৪ মে ২০২১, ১৪:৫৭:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

শিবচরে স্পিডবোট দুর্ঘটনা: মেহেন্দিগঞ্জে নিহত ৪, ব্যবসায়ীর দাফন সম্পন্ন

মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটের কাঁঠালবাড়ী ঘাটসংলগ্ন এলাকায় স্পিডবোট দুর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে চারজনের বাড়ি বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলায়।

যাদের মরদেহ ইতোমধ্যে স্বজনরা বুঝে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে গিয়ে দাফন কার্য সম্পাদক করছেন।

মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৯টায় এ তথ্য জানিয়েছেন মেহেন্দিগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার মো. মনির হোসেন।

তিনি জানান, পথে কিছুটা বিলম্ব হওয়ায় তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছতে দেরি করেন। তবে সোমবার সন্ধ্যায় মরদেহগুলো স্বজনরা বুঝে পেয়েছেন।এরপর অ্যাম্বুলেন্সযোগে সড়কপথে মরদেহগুলো নিয়ে মেহেন্দিগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন।

মঙ্গলবার ভোর রাত ৩টার দিকে মরদেহগুলো নিয়ে হিজলা হয়ে মেহেন্দিগঞ্জে পৌঁছান। সকাল ৯টার দিকে উলানিয়ার তিন বাসিন্দার জানাজা সম্পন্ন হয়ে দাফন হয়। পাতাহাটের ব্যবসায়ীর নামাজের জানাজা সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হয়।

এই ইউপি মেম্বার জানান, দুর্ঘটনায় তার আপন চাচাতো ভাই ও মেহেন্দিগঞ্জ পৌরসভার খরকী এলাকার আব্দুল মন্নান চাপরাশির ছেলে ও পাতারহাট বন্দরের মুদি ব্যবসায়ী মনির চাপরাশি (৩৫) নিহত হয়েছেন। তিনি আসন্ন ঈদ উপলক্ষ্যে ঢাকায় মালামাল আনতে গিয়েছিলেন।

মালামাল জাহাজে তুলে দিয়ে নিজে সড়কপথে ফিরছিলেন। দোকানের জন্য কেনা ঈদের মালামাল এখনও বন্দরে পৌঁছেনি কিন্তু তার আগে পথিমধ্যে স্পিডবোট দুর্ঘটনায় চিরবিদায় নিতে হলো মনিরকে।

তিনি বলেন, পরিবারের একমাত্র ছেলে বলতেই ছিল এই মনির, যার দুটি কন্যাসন্তানও রয়েছে।

এদিকে এ দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করা বাকি তিনজন হলেন— মেহেন্দিগঞ্জের উলানিয়া ইউনিয়নের পূর্বষাট্টি গ্রামের বাসিন্দা সাদেক বেপারির ছেলে ও উলানিয়া বাজারের আহাদ ফ্যাশনের স্বত্বাধিকারী দুই ভাই রিয়াজ হোসেন (৩৩) এবং সাইফুল ইসলাম (৩৫)। এ ছাড়া একই ইউনিয়নের আশা গ্রামের বাসিন্দা রত্তন হাওলাদারের ছেলে উলানিয়া বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী সাইদুল হোসেন (২৭)।

নিহত রিয়াজ ও সাইফুলের বড় ভাই আজাদ হোসেন জানান, তার দুই ভাই দোকানের মালামাল কেনার জন্য ঢাকায় গিয়েছিলেন। ফেরার সময় পদ্মা পাড়ি দিতে তারা প্রথমে গাছবাহী একটি ট্রলারে উঠেছিল। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নামিয়ে দেওয়ায় স্পিডবোটে উঠলে দুর্ঘটনায় দুজনই প্রাণ হারাল।

সকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দুর্ঘটনার খবরে তার ভাইদের নাম প্রথমে জানতে পারেন। পরে শিবচর থানা পুলিশের পক্ষ থেকে ফোনে দুর্ঘটনার খবরটি নিশ্চিত করা হয়।

তিনি জানান, নিহত সাইফুল মাত্র তিন মাস আগে বিয়ে করেন, আর রিয়াজের দুটি মেয়েসন্তানও রয়েছে।


অপরদিকে অপর নিহত উলানিয়া বাজারের বোরকা’র দোকানের ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলামও একই দুর্ঘটনায় নিহত আজাদ হোসেনের ভাইদের সঙ্গে ঢাকায় গিয়েছিলেন।


এদিকে স্থানীয়রা জানান, শিবচরের দুর্ঘনায় তিন এলাকার চারজনের এমন মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় পুরো মেহেন্দিগঞ্জে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। স্বজনদের কান্নায় নিহতদের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম।


মেহেন্দীগঞ্জ থানার ওসি মো. আবুল কালাম জানান, শিবচরের দুর্ঘটনায় মেহেন্দিগঞ্জের চারজন নিহত হয়েছেন।

এ ছাড়া বিভাগের মধ্যে আরও পাঁচজনের মৃত্য হয়েছে। যার মধ্যে বরিশালের বন্দর থানার তেদুরিয়া এলাকার মো. আলী আহমেদের ছেলে আনোয়ার চৌকিদার (৫০), বানারীপাড়া উপজেলার হাশেম ব্যাপারীর ছেলে আলাউদ্দিন ব্যাপারী (৪৫), ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার রাজাবাড়িয়া এলাকার মৃত আবদুল কুদ্দুস শিকদারের ছেলে নাসিরউদ্দিন (৪৫), পিরোজপুর জেলার সদর উপজেলার চরখানা এলাকার মো. ওহিদুরের ছেলে বাপ্পী (২৮) এবং পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলার পসারিয়াবুনিয়া এলাকার রঞ্জন অধিকারীর ছেলে জনি অধিকারী (২৬)।

প্রসঙ্গত, সোমবার সকাল ৬টার দিকে মাদারীপুরের শিবচরে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটের কাঁঠালবাড়ী ঘাটসংলগ্ন এলাকায় বালুবোঝাই বাল্কহেডে স্পিডবোটের ধাক্কা লাগে। এতে ২৬ জন নিহত হন।

শিবচরে স্পিডবোট দুর্ঘটনা: মেহেন্দিগঞ্জে নিহত ৪ ব্যবসায়ীর দাফন সম্পন্ন

 বরিশাল ব্যুরো 
০৪ মে ২০২১, ০২:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শিবচরে স্পিডবোট দুর্ঘটনা: মেহেন্দিগঞ্জে নিহত ৪, ব্যবসায়ীর দাফন সম্পন্ন
ফাইল ছবি

মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটের কাঁঠালবাড়ী ঘাটসংলগ্ন এলাকায় স্পিডবোট দুর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে চারজনের বাড়ি বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলায়।

 যাদের মরদেহ ইতোমধ্যে স্বজনরা বুঝে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে গিয়ে দাফন কার্য সম্পাদক করছেন।

মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৯টায় এ তথ্য জানিয়েছেন মেহেন্দিগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার মো. মনির হোসেন।

 তিনি জানান, পথে কিছুটা বিলম্ব হওয়ায় তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছতে দেরি করেন। তবে সোমবার সন্ধ্যায় মরদেহগুলো স্বজনরা বুঝে পেয়েছেন।এরপর অ্যাম্বুলেন্সযোগে সড়কপথে মরদেহগুলো নিয়ে মেহেন্দিগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন।

মঙ্গলবার ভোর রাত ৩টার দিকে মরদেহগুলো নিয়ে হিজলা হয়ে মেহেন্দিগঞ্জে পৌঁছান। সকাল ৯টার দিকে উলানিয়ার তিন বাসিন্দার জানাজা সম্পন্ন হয়ে দাফন হয়। পাতাহাটের ব্যবসায়ীর নামাজের জানাজা সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হয়।

 এই ইউপি মেম্বার জানান, দুর্ঘটনায় তার আপন চাচাতো ভাই ও মেহেন্দিগঞ্জ পৌরসভার খরকী এলাকার আব্দুল মন্নান চাপরাশির ছেলে ও পাতারহাট বন্দরের মুদি ব্যবসায়ী মনির চাপরাশি (৩৫) নিহত হয়েছেন। তিনি আসন্ন ঈদ উপলক্ষ্যে ঢাকায় মালামাল আনতে গিয়েছিলেন।

মালামাল জাহাজে তুলে দিয়ে নিজে সড়কপথে ফিরছিলেন। দোকানের জন্য কেনা ঈদের মালামাল এখনও বন্দরে পৌঁছেনি কিন্তু তার আগে পথিমধ্যে স্পিডবোট দুর্ঘটনায় চিরবিদায় নিতে হলো মনিরকে।

 তিনি বলেন, পরিবারের একমাত্র ছেলে বলতেই ছিল এই মনির, যার দুটি কন্যাসন্তানও রয়েছে।

 এদিকে এ দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করা বাকি তিনজন হলেন— মেহেন্দিগঞ্জের উলানিয়া ইউনিয়নের পূর্বষাট্টি গ্রামের বাসিন্দা সাদেক বেপারির ছেলে ও উলানিয়া বাজারের আহাদ ফ্যাশনের স্বত্বাধিকারী দুই ভাই রিয়াজ হোসেন (৩৩) এবং সাইফুল ইসলাম (৩৫)। এ ছাড়া একই ইউনিয়নের আশা গ্রামের বাসিন্দা রত্তন হাওলাদারের ছেলে উলানিয়া বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী সাইদুল হোসেন (২৭)।

 নিহত রিয়াজ ও সাইফুলের বড় ভাই আজাদ হোসেন জানান, তার দুই ভাই দোকানের মালামাল কেনার জন্য ঢাকায় গিয়েছিলেন। ফেরার সময় পদ্মা পাড়ি দিতে তারা প্রথমে গাছবাহী একটি ট্রলারে উঠেছিল। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নামিয়ে দেওয়ায় স্পিডবোটে উঠলে দুর্ঘটনায় দুজনই প্রাণ হারাল।

সকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দুর্ঘটনার খবরে তার ভাইদের নাম প্রথমে জানতে পারেন। পরে শিবচর থানা পুলিশের পক্ষ থেকে ফোনে দুর্ঘটনার খবরটি নিশ্চিত করা হয়।

 তিনি জানান, নিহত সাইফুল মাত্র তিন মাস আগে বিয়ে করেন, আর রিয়াজের দুটি মেয়েসন্তানও রয়েছে।

 
অপরদিকে অপর নিহত উলানিয়া বাজারের বোরকা’র দোকানের ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলামও একই দুর্ঘটনায় নিহত আজাদ হোসেনের ভাইদের সঙ্গে ঢাকায় গিয়েছিলেন।

 
এদিকে স্থানীয়রা জানান, শিবচরের দুর্ঘনায় তিন এলাকার চারজনের এমন মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় পুরো মেহেন্দিগঞ্জে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। স্বজনদের কান্নায় নিহতদের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম।

 
মেহেন্দীগঞ্জ থানার ওসি মো. আবুল কালাম জানান, শিবচরের দুর্ঘটনায় মেহেন্দিগঞ্জের চারজন নিহত হয়েছেন।

 এ ছাড়া বিভাগের মধ্যে আরও পাঁচজনের মৃত্য হয়েছে। যার মধ্যে বরিশালের বন্দর থানার তেদুরিয়া এলাকার মো. আলী আহমেদের ছেলে আনোয়ার চৌকিদার (৫০), বানারীপাড়া উপজেলার হাশেম ব্যাপারীর ছেলে আলাউদ্দিন ব্যাপারী (৪৫), ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার রাজাবাড়িয়া এলাকার মৃত আবদুল কুদ্দুস শিকদারের ছেলে নাসিরউদ্দিন (৪৫), পিরোজপুর জেলার সদর উপজেলার চরখানা এলাকার মো. ওহিদুরের ছেলে বাপ্পী (২৮) এবং পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলার পসারিয়াবুনিয়া এলাকার রঞ্জন অধিকারীর ছেলে জনি অধিকারী (২৬)।

 প্রসঙ্গত, সোমবার  সকাল ৬টার দিকে মাদারীপুরের শিবচরে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটের কাঁঠালবাড়ী ঘাটসংলগ্ন এলাকায় বালুবোঝাই বাল্কহেডে স্পিডবোটের ধাক্কা লাগে। এতে ২৬ জন নিহত হন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন