কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের কাণ্ড
jugantor
কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের কাণ্ড

  কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি  

০৫ মে ২০২১, ২৩:১৫:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার হিজলহাটি এলাকায় মঙ্গলবার রাতে আশিকুল রহমান (৩৫) নামের এক ডিম ব্যবসায়ীকে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা আটকে রেখে মুক্তিপণের টাকা দাবি করে। এ সময় কিশোর গ্যাং সদস্যদের দাবিকৃত টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় ডিম ব্যবসায়ীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করা হয়।

এ ঘটনায় ডিম ব্যবসায়ী আশিকুর রহমানের স্ত্রী তানজিলা আক্তার বাদী হয়ে বুধবার সন্ধ্যায় কালিয়াকৈর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

পুলিশ, এলাকাবাসী, ভুক্তভোগী পরিবার এবং ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জানান, আশিকুর রহমান গত ছয় বছর আগে স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে জীবিকার খোঁজে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে আসেন। পরে তিনি উপজেলার হিজলহাটি এলাকার জাহাঙ্গীরের বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে ডিম ব্যবসা করেন। স্ত্রী তানজিলা বেগম স্থানীয় পলমল পোশাক কারখানায় কাজ করেন।

গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে আশিকুর রহমানসহ চারজন মিলে পাশে আবুল বাছেদ ওরফে বাবুর বাড়িতে লুডু খেলছিলেন। ওই সময় ওই এলাকার কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য রাজ্জাকের ছেলে জিহান, আব্দুল হামিদের ছেলে রাব্বি, তোফাজ্জলের ছেলে ফয়সাল, হাসেমের ছেলে শুভ, সৌরভসহ ৫-৭ জন মাদকাসক্ত কিশোর লাঠি, লোহার রড, স্টিলের পাইপ নিয়ে সেখানে যায়।

তারা ওই ডিম ব্যবসায়ী আশিকুর রহমান, জয়, আলমগীর ও সুজনকে মারধর করে। এ সময় জয়, আলমগীর ও সুজন সেখান থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে ওই কিশোর গ্যাং ডিম ব্যবসায়ী আশিকুর রহমানের কাছ থেকে ১৩ হাজার ৭০০ টাকা ও দুটি মোবাইল ফোন লুট করে নেয়। এ সময় তাকে আটক রেখে তার কাছে আরও আড়াই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে কিশোর গ্যাং সদস্যরা।

কিশোর গ্যাং সদস্যরা দাবিকৃত টাকা না পেয়ে তার নাকে, মুখে পানি ঢালে ও পলিথিন পেঁচিয়ে তাকে শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা করে। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে নিজের প্রাণ রক্ষার্থে দৌড়ে তার ভাড়া বাসায় চলে যান। কিন্তু কিশোর গ্যাং সদস্যরা তার পিছু ধাওয়া করে ওই বাসার ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করে।

ওই বাড়ির মালিকের প্রাইভেটকার চালক আলমগীর তাদের বাধা দিলে কিশোর গ্যাং তাকেও মারধর করে। এ সময় কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের ভয়ে বাসায় ছাদের পাইপ বেয়ে নিচে নামার চেষ্টা করলে ৪র্থ তলার বেলকুনিতে আটকে পড়েন। পরে তার ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে কিশোর গ্যাং সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

পরে আটকে থাকা ডিম ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করতে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশে খবর দেন এলাকাবাসী। খবর পেয়ে ওই রাতেই কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিস ও কালিয়াকৈর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বর্তমানে তিনি ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

আহত আলমগীর হোসেন বলেন, ওই ব্যবসায়ী দৌড়ে পালিয়ে বাসায় চলে এলেও গেট ভেঙে তারা ভিতরে ঢুকে। বাধা দিলে তারা আমাকেও মারধর করে।

স্থানীয় আনোয়ার হোসেন, সাইফুল ইসলামসহ অনেকেই বলেন, ওই কিশোর গ্যাং মাদকের সঙ্গে জড়িত, সব সময় তারা কোনো না কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটিয়ে আসছে।

কালিয়াকৈর থানার ওসি মনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, এ ঘটনায় কালিয়াকৈর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া এ ঘটনায় রাব্বি নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। শুনেছি ওই এলাকায় কিশোর গ্যাংয়ের গ্রুপ আছে। এ ব্যাপারে পুলিশও তৎপর রয়েছে।

কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের কাণ্ড

 কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি 
০৫ মে ২০২১, ১১:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার হিজলহাটি এলাকায় মঙ্গলবার রাতে আশিকুল রহমান (৩৫) নামের এক ডিম ব্যবসায়ীকে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা আটকে রেখে মুক্তিপণের টাকা দাবি করে। এ সময় কিশোর গ্যাং সদস্যদের দাবিকৃত টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় ডিম ব্যবসায়ীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করা হয়।

এ ঘটনায় ডিম ব্যবসায়ী আশিকুর রহমানের স্ত্রী তানজিলা আক্তার বাদী হয়ে বুধবার সন্ধ্যায় কালিয়াকৈর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

পুলিশ, এলাকাবাসী, ভুক্তভোগী পরিবার এবং ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জানান, আশিকুর রহমান গত ছয় বছর আগে স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে জীবিকার খোঁজে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে আসেন। পরে তিনি উপজেলার হিজলহাটি এলাকার জাহাঙ্গীরের বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে ডিম ব্যবসা করেন। স্ত্রী তানজিলা বেগম স্থানীয় পলমল পোশাক কারখানায় কাজ করেন।

গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে আশিকুর রহমানসহ চারজন মিলে পাশে আবুল বাছেদ ওরফে বাবুর বাড়িতে লুডু খেলছিলেন। ওই সময় ওই এলাকার কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য রাজ্জাকের ছেলে জিহান, আব্দুল হামিদের ছেলে রাব্বি, তোফাজ্জলের ছেলে ফয়সাল, হাসেমের ছেলে শুভ, সৌরভসহ ৫-৭ জন মাদকাসক্ত কিশোর লাঠি, লোহার রড, স্টিলের পাইপ নিয়ে সেখানে যায়।

তারা ওই ডিম ব্যবসায়ী আশিকুর রহমান, জয়, আলমগীর ও সুজনকে মারধর করে। এ সময় জয়, আলমগীর ও সুজন সেখান থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে ওই কিশোর গ্যাং ডিম ব্যবসায়ী আশিকুর রহমানের কাছ থেকে ১৩ হাজার ৭০০ টাকা ও দুটি মোবাইল ফোন লুট করে নেয়। এ সময় তাকে আটক রেখে তার কাছে আরও আড়াই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে কিশোর গ্যাং সদস্যরা।

কিশোর গ্যাং সদস্যরা দাবিকৃত টাকা না পেয়ে তার নাকে, মুখে পানি ঢালে ও পলিথিন পেঁচিয়ে তাকে শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা করে। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে নিজের প্রাণ রক্ষার্থে দৌড়ে তার ভাড়া বাসায় চলে যান। কিন্তু কিশোর গ্যাং সদস্যরা তার পিছু ধাওয়া করে ওই বাসার ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করে।

ওই বাড়ির মালিকের প্রাইভেটকার চালক আলমগীর তাদের বাধা দিলে কিশোর গ্যাং তাকেও মারধর করে। এ সময় কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের ভয়ে বাসায় ছাদের পাইপ বেয়ে নিচে নামার চেষ্টা করলে ৪র্থ তলার বেলকুনিতে আটকে পড়েন। পরে তার ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে কিশোর গ্যাং সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।

পরে আটকে থাকা ডিম ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করতে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশে খবর দেন এলাকাবাসী। খবর পেয়ে ওই রাতেই কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিস ও কালিয়াকৈর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বর্তমানে তিনি ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

আহত আলমগীর হোসেন বলেন, ওই ব্যবসায়ী দৌড়ে পালিয়ে বাসায় চলে এলেও গেট ভেঙে তারা ভিতরে ঢুকে। বাধা দিলে তারা আমাকেও মারধর করে।

স্থানীয় আনোয়ার হোসেন, সাইফুল ইসলামসহ অনেকেই বলেন, ওই কিশোর গ্যাং মাদকের সঙ্গে জড়িত, সব সময় তারা কোনো না কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটিয়ে আসছে।

কালিয়াকৈর থানার ওসি মনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, এ ঘটনায় কালিয়াকৈর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়া এ ঘটনায় রাব্বি নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। শুনেছি ওই এলাকায় কিশোর গ্যাংয়ের গ্রুপ আছে। এ ব্যাপারে পুলিশও তৎপর রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন