স্ত্রীকে আনতে গেলে বিজিবি সদস্যকে পেটাল শ্বশুরবাড়ির লোকজন
jugantor
স্ত্রীকে আনতে গেলে বিজিবি সদস্যকে পেটাল শ্বশুরবাড়ির লোকজন

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

০৫ মে ২০২১, ২৩:১৭:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনায় স্ত্রীকে আনতে গিয়ে শ্বশুরবাড়িতে হামিদুর রহমান (২৮) নামে এক বিজিবি সদস্য মারপিটের শিকার হয়ে আহত হয়েছেন। বুধবার দুপুরে জেলার কেন্দুয়া পৌর শহরের টেংগুরী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত ওই বিজিবি সদস্য স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় প্রথমে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বলে জানা গেছে।

বিজিবি সদস্য হামিদুর রহমান কেন্দুয়া উপজেলার মোজাফরপুর ইউনিয়নের গগডা গ্রামের ফজলুর রহমানের ছেলে। এ ঘটনায় বিকালে আহত বিজিবি সদস্য বাদী হয়ে শ্বশুর, শাশুড়ি, শ্যালক ও শ্যালিকার বিরুদ্ধে কেন্দুয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

কেন্দুয়া থানার ওসি কাজী শাহ নেওয়াজের সাথে কথা হলে তিনি অভিযোগ প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিজিবি সদস্য হামিদুর রহমানের বড়ভাই আবুল কাশেম খান জানান, গত তিন বছর আগে কেন্দুয়া পৌর শহরের টেংগুরী এলাকার বাসিন্দা মহিউদ্দিন সরকারের মেয়ে মাকসুদা সরকারকে বিয়ে করে হামিদুর। গত এক মাস আগে স্ত্রীকে শ্বশুরবাড়িতে রেখে কর্মস্থলে যায় সে। এদিকে গত দুই-তিন দিন আগে হামিদুর ছুটিতে এসে বুধবার দুপুরে স্ত্রীকে বাড়িতে আনতে শ্বশুরবাড়ি যায়।

তিনি জানান, স্বামীর সঙ্গে শ্বশুরবাড়ি আসতে প্রস্তুত হন হামিদুরের স্ত্রীও। কিন্তু তার শ্বশুর, শাশুড়ি ও শ্যালক, শ্যালিকারা এতে বাধা দেয় এবং হামিদুরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে। হামিদুর এর প্রতিবাদ করলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন তার ওপর চড়াও হয় এবং একপর্যায়ে তাকে কিল-ঘুষিসহ মারপিট করতে শুরু করে। পরে আহত হামিদুর স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়।

এদিকে সন্ধ্যায় তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় বলেও জানান আবুল কাশেম।

কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী শাহ নেওয়াজ বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্ত্রীকে আনতে গেলে বিজিবি সদস্যকে পেটাল শ্বশুরবাড়ির লোকজন

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
০৫ মে ২০২১, ১১:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনায় স্ত্রীকে আনতে গিয়ে শ্বশুরবাড়িতে হামিদুর রহমান (২৮) নামে এক বিজিবি সদস্য মারপিটের শিকার হয়ে আহত হয়েছেন। বুধবার দুপুরে জেলার কেন্দুয়া পৌর শহরের টেংগুরী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত ওই বিজিবি সদস্য স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় প্রথমে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বলে জানা গেছে।

বিজিবি সদস্য হামিদুর রহমান কেন্দুয়া উপজেলার মোজাফরপুর ইউনিয়নের গগডা গ্রামের ফজলুর রহমানের ছেলে। এ ঘটনায় বিকালে আহত বিজিবি সদস্য বাদী হয়ে শ্বশুর, শাশুড়ি, শ্যালক ও শ্যালিকার বিরুদ্ধে কেন্দুয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

কেন্দুয়া থানার ওসি কাজী শাহ নেওয়াজের সাথে কথা হলে তিনি অভিযোগ প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিজিবি সদস্য হামিদুর রহমানের বড়ভাই আবুল কাশেম খান জানান, গত তিন বছর আগে কেন্দুয়া পৌর শহরের টেংগুরী এলাকার বাসিন্দা মহিউদ্দিন সরকারের মেয়ে মাকসুদা সরকারকে বিয়ে করে হামিদুর। গত এক মাস আগে স্ত্রীকে শ্বশুরবাড়িতে রেখে কর্মস্থলে যায় সে। এদিকে গত দুই-তিন দিন আগে হামিদুর ছুটিতে এসে বুধবার দুপুরে স্ত্রীকে বাড়িতে আনতে শ্বশুরবাড়ি যায়।

তিনি জানান, স্বামীর সঙ্গে শ্বশুরবাড়ি আসতে প্রস্তুত হন হামিদুরের স্ত্রীও। কিন্তু তার শ্বশুর, শাশুড়ি ও শ্যালক, শ্যালিকারা এতে বাধা দেয় এবং হামিদুরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে। হামিদুর এর প্রতিবাদ করলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন তার ওপর চড়াও হয় এবং একপর্যায়ে তাকে কিল-ঘুষিসহ মারপিট করতে শুরু করে। পরে আহত হামিদুর স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়।

এদিকে সন্ধ্যায় তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় বলেও জানান আবুল কাশেম।

কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী শাহ নেওয়াজ বলেন, এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন