আসামি ছিনতাইয়ের অভিযোগে গ্রেফতার ৭
jugantor
আসামি ছিনতাইয়ের অভিযোগে গ্রেফতার ৭

  চুনারুঘাট প্রতিনিধি  

০৭ মে ২০২১, ০৪:০৫:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

মাদক মামলার পলাতক আসামি শিপন মিয়াকে গ্রেফতার করতে যাওয়া ৪ পুলিশকে তালাবদ্ধ ও পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তি করে আসামি ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগে নারীসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে চুনারুঘাট থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার চুনারুঘাট উপজেলার চিমটিবিলখাস থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- চিমটিবিলখাস গ্রামের মৃত করিম আলীর ২ পুত্র মামদ আলী (৫৫)ও ইমান আলী (৬০), শিপনের ২ স্ত্রী জেসমিন আক্তার (২৩) ও হেনা আক্তার ( ২০), একই পাড়ার রফিকুল ইসলাম (৩২), নাজমা আক্তার (২৫) ও রোজিনা আক্তার (৪৫)।

এর আগে বুধবার রাত সাড়ে নয়টার সময় মাদক মামলার পলাতক আসামি মামদ আলীর পুত্র শিপন মিয়া (৩২)কে গ্রেফতার করার সময় শিপন মিয়ার স্বজনরা চুনারুঘাট থানার এসআই আশিকুর রহমান ও তার তিন সঙ্গীকে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে। ধস্তাধস্তি করে ছিনিয়ে নিয়ে যায় আসামি শিপনকে। এতে আহত হন পাপ্পু গোয়ালা, সুমন মিয়া, উসমান গনিসহ পুলিশের তিন সদস্য।

পরে চুনারুঘাট থানার ওসি মো. আলী আশরাফ ও ওসি (তদন্ত) চম্পক দাম পুলিশ ফোর্স নিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে চিকিৎসা করান। এ ঘটনায় চুনারুঘাট থানার এসআই আশিকুর রহমান বাদী হয়ে এসাল্ট মামলা দায়ের করেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে চুনারুঘাট থানার এসআই এ,আই,কে সম্রাটের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে উল্লেখিতদের গ্রেফতার করেন। তবে শিপন পলাতক রয়েছে। শিপন মাদক মামলার পলাতক আসামি।

এলাকায় তার বিরুদ্ধে হুমকি-ধমকি, চাঁদাবাজি, নিরীহদের মারধর, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানিসহ নানান অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গ্রেফতারকৃতদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি মো. আলী আশরাফ।

আসামি ছিনতাইয়ের অভিযোগে গ্রেফতার ৭

 চুনারুঘাট প্রতিনিধি 
০৭ মে ২০২১, ০৪:০৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মাদক মামলার পলাতক আসামি শিপন মিয়াকে গ্রেফতার করতে যাওয়া ৪ পুলিশকে তালাবদ্ধ ও  পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তি  করে আসামি ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগে নারীসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে চুনারুঘাট থানা পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার চুনারুঘাট উপজেলার চিমটিবিলখাস থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। 

গ্রেফতারকৃতরা হলো- চিমটিবিলখাস গ্রামের মৃত করিম আলীর ২  পুত্র মামদ আলী (৫৫)ও  ইমান আলী (৬০), শিপনের ২ স্ত্রী জেসমিন আক্তার (২৩) ও হেনা আক্তার ( ২০), একই পাড়ার রফিকুল ইসলাম (৩২), নাজমা আক্তার (২৫) ও রোজিনা আক্তার (৪৫)। 

এর আগে বুধবার রাত সাড়ে নয়টার সময় মাদক মামলার পলাতক আসামি মামদ আলীর পুত্র শিপন মিয়া (৩২)কে গ্রেফতার করার সময় শিপন মিয়ার স্বজনরা চুনারুঘাট থানার এসআই আশিকুর রহমান ও তার তিন সঙ্গীকে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে। ধস্তাধস্তি করে ছিনিয়ে নিয়ে যায় আসামি শিপনকে। এতে আহত হন পাপ্পু গোয়ালা, সুমন মিয়া, উসমান গনিসহ পুলিশের তিন সদস্য। 

পরে চুনারুঘাট থানার ওসি মো. আলী আশরাফ ও ওসি (তদন্ত) চম্পক দাম পুলিশ ফোর্স নিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে চিকিৎসা করান। এ ঘটনায় চুনারুঘাট থানার এসআই আশিকুর রহমান বাদী হয়ে এসাল্ট  মামলা দায়ের করেন।  

বৃহস্পতিবার দুপুরে চুনারুঘাট থানার এসআই এ,আই,কে সম্রাটের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে উল্লেখিতদের গ্রেফতার করেন। তবে শিপন পলাতক রয়েছে। শিপন মাদক মামলার পলাতক আসামি। 

এলাকায় তার বিরুদ্ধে হুমকি-ধমকি, চাঁদাবাজি, নিরীহদের মারধর, মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানিসহ নানান অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গ্রেফতারকৃতদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি মো. আলী আশরাফ।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন