দুর্নীতির দায়ে পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান বহিষ্কার
jugantor
দুর্নীতির দায়ে পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান বহিষ্কার

  রাজবাড়ী প্রতিনিধি  

০৭ মে ২০২১, ১৪:৪২:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

দুর্নীতির দায়ে রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফরিদ হাসান ওদুদ সাময়িক বহিষ্কার হয়েছেন। একই সঙ্গে উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ১-কে সকল কার্যক্রম পরিচালনাসহ আর্থিক ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।

গত বুধবার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ সামসুল আলম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদের বিরুদ্ধে উপজেলা পরিষদের জমিতে নির্মিত ১০টি দোকান তার আপন ভাই ও ফুফাতো ভাইয়ের নামে বরাদ্ধ দেওয়া, রাজম্ব তহবিল ব্যবহারের নির্দেশিকা অনুসরণ না করে গরিব/মেধাবী শিক্ষার্থীদের পরিবর্তে নিজের লোকের সন্তানদের মধ্যে বৃত্তি দিয়ে অর্থ আত্নসাৎ করা, বয়স্ক ভাতা কর্মসূচি বাস্তবায়ন নীতিমালা অনুসরণ না করে ভাতা দেওয়া এবং নিয়ম বহিঃভূতভাবে উপজেলা পরিষদের ফান্ড থেকে পাংশা পৌরসভা এলাকায় প্রকল্প বরাদ্দ দেওয়া সর্ম্পকে আনিত অভিযোগগুলো বিভাগীয় কমিশনারের তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯৮ (উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১১ দ্বারা সংশোধিত) এর ১৩ (খ) ধারার বিধান অনুযায়ী, রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফরিদ হাসান ওদুদকে পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ হতে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো এবং পাংশা উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ১-কে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পরিষদের আর্থিক ক্ষমতা প্রদান করা হল।

পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মাদ আলী জানান, আমিও চেয়ারম্যানের সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার চিঠিটি পেয়েছি।

দুর্নীতির দায়ে পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান বহিষ্কার

 রাজবাড়ী প্রতিনিধি 
০৭ মে ২০২১, ০২:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দুর্নীতির দায়ে রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফরিদ হাসান ওদুদ সাময়িক বহিষ্কার হয়েছেন। একই সঙ্গে উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ১-কে সকল কার্যক্রম পরিচালনাসহ আর্থিক ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।

গত বুধবার স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ সামসুল আলম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদের বিরুদ্ধে উপজেলা পরিষদের জমিতে নির্মিত ১০টি দোকান তার আপন ভাই ও ফুফাতো ভাইয়ের নামে বরাদ্ধ দেওয়া, রাজম্ব তহবিল ব্যবহারের নির্দেশিকা অনুসরণ না করে গরিব/মেধাবী শিক্ষার্থীদের পরিবর্তে নিজের লোকের সন্তানদের মধ্যে বৃত্তি দিয়ে অর্থ আত্নসাৎ করা, বয়স্ক ভাতা কর্মসূচি বাস্তবায়ন নীতিমালা অনুসরণ না করে ভাতা দেওয়া এবং নিয়ম বহিঃভূতভাবে উপজেলা পরিষদের ফান্ড থেকে পাংশা পৌরসভা এলাকায় প্রকল্প বরাদ্দ দেওয়া সর্ম্পকে আনিত অভিযোগগুলো বিভাগীয় কমিশনারের তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯৮ (উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১১ দ্বারা সংশোধিত) এর ১৩ (খ) ধারার বিধান অনুযায়ী, রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ফরিদ হাসান ওদুদকে পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ হতে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো এবং পাংশা উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ১-কে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পরিষদের আর্থিক ক্ষমতা প্রদান করা হল।

পাংশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মাদ আলী জানান, আমিও চেয়ারম্যানের সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার চিঠিটি পেয়েছি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন