ত্রাণ বিতরণ নিয়ে বাকবিতণ্ডা, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
jugantor
ত্রাণ বিতরণ নিয়ে বাকবিতণ্ডা, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

০৭ মে ২০২১, ১৫:১৫:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর হাতিয়ার সোনাদিয়া ইউনিয়নে জেলেদের ত্রাণ বিতরণকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় জোবায়ের হোসেন (৪৩) নামের এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ৬ জন।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চরচেঙ্গা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। নিহত জোবায়ের হোসেন সোনাদিয়া ৫নং ওয়ার্ডের আবু তাহেরের ছেলে। তিনি ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি ও ৫নং ওয়ার্ডে ইউপি সদস্য প্রার্থী ছিলেন।

আহতরা হলেন, মো. ইরাক হোসেন ও মেহেদী জীবনসহ ৬ জন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকালে চরচেঙ্গা বাজারে জেলেদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান নুর ইসলাম মালেশিয়া। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ তুলেন স্থানীয়রা।

এ নিয়ে চেয়ারম্যানের লোকজনের সঙ্গে জোবায়েরসহ কয়েকজনের বাকবিতণ্ডা হয়। এ ঘটনার জেরে নুর ইসলাম মালেশিয়ার লোকজন বাজারে অর্তকিত হামলা চালিয়ে জোবায়ের হোসেন, মেহেদী জীবন ও ইরাক হোসেনসহ বেশ কয়েকজনকে কুপিয়ে জখম করে। এতে ঘটনাস্থলে জোবায়ের নিহত হন। এ সময় হামলাকারীরা কয়েক রাউন্ড গুলিও ছুড়ে পালিয়ে যায়।

আসন্ন নির্বাচনে সোনাদিয়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ প্রার্থী মেহেদী হাসান অভিযোগ করে বলেন, সকালে চেয়ারম্যানের লোকজন বাজারে ত্রাণ বিতরণ করছিলেন। এ ময় আমার সমর্থক জোবায়ের ও ইরাক দোকানে বসা ছিল। কোনো প্রকার উস্কানি ছাড়াই মালেশিয়ার লোকজন দোকানে প্রবেশ করে জোবায়ের, তার ছেলে জীবন ও আমার কর্মী ইরাককে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। এতে ঘটনাস্থলে মারা যান জোবায়ের। আশংকাজনক অবস্থায় ইরাককে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কথা বলতে বর্তমান চেয়ারম্যান নুর ইসলাম মালেশিয়ার মোবাইলে একাধিকবার চেষ্টা করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

হাতিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের জানান, প্রতিপক্ষের হামলায় মেম্বার প্রার্থী জোবায়ের নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। অস্ত্রধারীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে।

ত্রাণ বিতরণ নিয়ে বাকবিতণ্ডা, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
০৭ মে ২০২১, ০৩:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর হাতিয়ার সোনাদিয়া ইউনিয়নে জেলেদের ত্রাণ বিতরণকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় জোবায়ের হোসেন (৪৩) নামের এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ৬ জন।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চরচেঙ্গা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। নিহত জোবায়ের হোসেন সোনাদিয়া ৫নং ওয়ার্ডের আবু তাহেরের ছেলে। তিনি ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি ও ৫নং ওয়ার্ডে ইউপি সদস্য প্রার্থী ছিলেন। 

আহতরা হলেন, মো. ইরাক হোসেন ও মেহেদী জীবনসহ ৬ জন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকালে চরচেঙ্গা বাজারে জেলেদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান নুর ইসলাম মালেশিয়া। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ তুলেন স্থানীয়রা। 

এ নিয়ে চেয়ারম্যানের লোকজনের সঙ্গে জোবায়েরসহ কয়েকজনের বাকবিতণ্ডা হয়। এ ঘটনার জেরে নুর ইসলাম মালেশিয়ার লোকজন বাজারে অর্তকিত হামলা চালিয়ে জোবায়ের হোসেন, মেহেদী জীবন ও ইরাক হোসেনসহ বেশ কয়েকজনকে কুপিয়ে জখম করে। এতে ঘটনাস্থলে জোবায়ের নিহত হন। এ সময় হামলাকারীরা কয়েক রাউন্ড গুলিও ছুড়ে পালিয়ে যায়।

আসন্ন নির্বাচনে সোনাদিয়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ প্রার্থী মেহেদী হাসান অভিযোগ করে বলেন, সকালে চেয়ারম্যানের লোকজন বাজারে ত্রাণ বিতরণ করছিলেন। এ ময় আমার সমর্থক জোবায়ের ও ইরাক দোকানে বসা ছিল। কোনো প্রকার উস্কানি ছাড়াই মালেশিয়ার লোকজন দোকানে প্রবেশ করে জোবায়ের, তার ছেলে জীবন ও আমার কর্মী ইরাককে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। এতে ঘটনাস্থলে মারা যান জোবায়ের। আশংকাজনক অবস্থায় ইরাককে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কথা বলতে বর্তমান চেয়ারম্যান নুর ইসলাম মালেশিয়ার মোবাইলে একাধিকবার চেষ্টা করলেও তিনি রিসিভ করেননি।  

হাতিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের জানান, প্রতিপক্ষের হামলায় মেম্বার প্রার্থী জোবায়ের নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। অস্ত্রধারীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন