চাঁদা দিয়ে না খেয়ে রোজা রিকশাচালকের, ৩ পুলিশ সদস্য প্রত্যাহার
jugantor
চাঁদা দিয়ে না খেয়ে রোজা রিকশাচালকের, ৩ পুলিশ সদস্য প্রত্যাহার

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০৮ মে ২০২১, ২০:০৫:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের ভালুকায় পুলিশকে চাঁদা দিয়ে রিকশাচালকের না খেয়ে রোজা রাখার ঘটনায় ভরাডোবা হাইওয়ে থানা পুলিশের তিন সদস্যকে ক্লোজ করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে ভালুকা ভরাডোবা হাইওয়ে পুলিশের এটিএসআই আবু তাহেরসহ তিনজনকে গাজীপুর জেলা পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

জানা যায়, ভালুকা ভরাডোবা হাইওয়ে পুলিশ অসহায় দরিদ্র রোজাদার রিকশাচালক শামীমের কাছ থেকে মঙ্গলবার রাতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ভালুকা বাসস্ট্যান্ড ফুটওভার ব্রিজের পাশে ৭০০ টাকা চাঁদা আদায় করেন। ওই রিকশাচালক পুলিশকে টাকা দিয়ে না খেয়ে রোজা রাখেন।

পরদিন রাতে তিনি রিকশা নিয়ে বের হলে ঘটনাটি ভালুকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদকে জানান। পরে ঘটনাটি তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে একটি স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাসটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মুহূর্তেই ভাইরাল হয়।

এ ঘটনায় দৈনিক যুগান্তরে একটি সংবাদ প্রকাশিত হলে পুলিশ হেডকোয়ার্টারের নজরে আসে। শুক্রবার দুপুরে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের ক্লোজ করা হয়।

ভরাডোবা হাইওয়ে থানার ওসি মশিউর রহমান জানান, ঘটনায় গাজীপুর হাইওয়ে পুলিশের এএসপি (সার্কেল) আব্দুল কাদের জিলানিকে দিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমি যতটুকু জেনেছি এটিএসআই আবু তাহের ওই রিকশাচালকের কাছ থেকে ৭০০ টাকা নিয়েছিল।

গাজীপুর হাইওয়ে পুলিশের এএসপি (সার্কেল) আব্দুল কাদের জিলানি জানান, তদন্ত কমিটি গঠন প্রসঙ্গে আমার জানা নেই। এ বিষয়ে আমার কাছে কোনো চিঠি আসেনি।

চাঁদা দিয়ে না খেয়ে রোজা রিকশাচালকের, ৩ পুলিশ সদস্য প্রত্যাহার

 ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০৮ মে ২০২১, ০৮:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের ভালুকায় পুলিশকে চাঁদা দিয়ে রিকশাচালকের না খেয়ে রোজা রাখার ঘটনায় ভরাডোবা হাইওয়ে থানা পুলিশের তিন সদস্যকে ক্লোজ করা হয়েছে।

শুক্রবার রাতে ভালুকা ভরাডোবা হাইওয়ে পুলিশের এটিএসআই আবু তাহেরসহ তিনজনকে গাজীপুর জেলা পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

জানা যায়, ভালুকা ভরাডোবা হাইওয়ে পুলিশ অসহায় দরিদ্র রোজাদার রিকশাচালক শামীমের কাছ থেকে মঙ্গলবার রাতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ভালুকা বাসস্ট্যান্ড ফুটওভার ব্রিজের পাশে ৭০০ টাকা চাঁদা আদায় করেন। ওই রিকশাচালক পুলিশকে টাকা দিয়ে না খেয়ে রোজা রাখেন।

পরদিন রাতে তিনি রিকশা নিয়ে বের হলে ঘটনাটি ভালুকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদকে জানান। পরে ঘটনাটি তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে বুধবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে একটি স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাসটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মুহূর্তেই ভাইরাল হয়।

এ ঘটনায় দৈনিক যুগান্তরে একটি সংবাদ প্রকাশিত হলে পুলিশ হেডকোয়ার্টারের নজরে আসে। শুক্রবার দুপুরে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যদের ক্লোজ করা হয়।

ভরাডোবা হাইওয়ে থানার ওসি মশিউর রহমান জানান, ঘটনায় গাজীপুর হাইওয়ে পুলিশের এএসপি (সার্কেল) আব্দুল কাদের জিলানিকে দিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমি যতটুকু জেনেছি এটিএসআই আবু তাহের ওই রিকশাচালকের কাছ থেকে ৭০০ টাকা নিয়েছিল।

গাজীপুর হাইওয়ে পুলিশের এএসপি (সার্কেল) আব্দুল কাদের জিলানি জানান, তদন্ত কমিটি গঠন প্রসঙ্গে আমার জানা নেই। এ বিষয়ে আমার কাছে কোনো চিঠি আসেনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন