পুলিশের এপিসিতে আগুন দেওয়ার মূলহোতা গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেফতার
jugantor
পুলিশের এপিসিতে আগুন দেওয়ার মূলহোতা গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেফতার

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া   

০৮ মে ২০২১, ২২:০৬:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তাণ্ডবের সময় পুলিশের এপিসিতে অগ্নিসংযোগকারী মূলহোতা জাকারিয়া আহমেদ প্রীতমকে গাজীপুর থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত ২৮ মার্চ হেফাজতের হরতাল চলাকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিশ্বরোড এলাকায় পুলিশের এপিসিতে পেট্রোল দিয়ে অগ্নিসংযোগের মূলহোতা জাকারিয়া আহমেদ প্রীতম সরাইল উপজেলার নোয়াগাঁও পশ্চিমপাড়া মৃত নাছির উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ জানায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের একটি বিশেষ টিম আজ শনিবার বিকাল ৪টার দিকে গাজীপুর সদর থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামি জাকারিয়া আহমেদ প্রীতম এপিসিতে অগ্নিসংযোগ পরবর্তীতে পুলিশের গুলিতে আহত হয়ে গাজীপুরে আত্মগোপনে থেকে ভাড়া বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।

এপিসি পোড়ানোর ভিডিও ফুটেজ দেখে তাকে শনাক্ত করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বিশ্বরোড এলাকায় ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও সহিংসতার সঙ্গে নিজের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছেন তিনি।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইস উদ্দিন গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, তাকে পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গাজীপুর সদর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পুলিশের এপিসিতে আগুন দেওয়ার মূলহোতা গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেফতার

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া  
০৮ মে ২০২১, ১০:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তাণ্ডবের সময় পুলিশের এপিসিতে অগ্নিসংযোগকারী মূলহোতা জাকারিয়া আহমেদ প্রীতমকে গাজীপুর থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

গত ২৮ মার্চ হেফাজতের হরতাল চলাকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিশ্বরোড এলাকায় পুলিশের এপিসিতে পেট্রোল দিয়ে অগ্নিসংযোগের মূলহোতা জাকারিয়া আহমেদ প্রীতম সরাইল উপজেলার নোয়াগাঁও পশ্চিমপাড়া মৃত নাছির উদ্দিনের ছেলে।   

পুলিশ জানায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের একটি বিশেষ টিম আজ শনিবার বিকাল ৪টার দিকে গাজীপুর সদর থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামি জাকারিয়া আহমেদ প্রীতম এপিসিতে অগ্নিসংযোগ পরবর্তীতে পুলিশের গুলিতে আহত হয়ে গাজীপুরে আত্মগোপনে থেকে ভাড়া বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। 

এপিসি পোড়ানোর ভিডিও ফুটেজ দেখে তাকে শনাক্ত করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বিশ্বরোড এলাকায় ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও সহিংসতার সঙ্গে নিজের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছেন তিনি। 

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইস উদ্দিন গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, তাকে পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় গাজীপুর সদর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন