ফেরি চললেও ঘরমুখো যাত্রীরা ফিরছেন মোটরসাইকেলে
jugantor
ফেরি চললেও ঘরমুখো যাত্রীরা ফিরছেন মোটরসাইকেলে

  রাজবাড়ী প্রতিনিধি  

১১ মে ২০২১, ১১:৫৮:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ফেরি চললেও ঘরমুখো যাত্রীরা ফিরছেন মোটরসাইকেলে

লকডাউনে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় মানুষ দেশের বাড়িতে যাচ্ছেন মোটরসাইকেলে। শেষ সময়ে সরকার ফেরি চলাচল শুরু করার ঘোষণা দেয়। তবে ফেরিতে নেই যাত্রীদের চাপ। বর্তমানে এ নৌরুটে ১৬টি ফেরি চলাচল করছে; কিন্তু সেখানে বেশিরভাগ যাত্রী ফিরছেন মোটরসাইকেলে।

তবে কিছু যাত্রী মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকারে ফিরতে দেখা গেলেও ফেরির ছোট গাড়িগুলোতে ছিল না কোনোরকম স্বাস্থ্যবিধির বালাই।

মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে দৌলতদিয়া ৫ নম্বর ফেরিঘাটে গিয়ে ‘বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন’, ‘শাপলা শালুক-৯’ ও ‘রজনীগন্ধা’ ফেরিতে এ চিত্র দেখা গেছে।

ঢাকাফেরত একটি গার্মেন্টসের ফ্যাশন ডিজাইনার আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, টেলিভিশনে কয়েক দিন ধরে দেখছি; সরকার ঘাট এলাকায় ফেরি, ট্রলার চলাচল বন্ধ ঘোষণার নির্দেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া পথে আটকে দেওয়া হচ্ছে মোটরসাইকেল, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকার। এসব চিন্তা করে সর্বশেষ ঢাকাতেই ঈদ করার সিদ্ধান্ত নিই। তবে ভোরে সেহরির সময় মা ফোন করে বাড়ি যেতে বলেন, তাই মোটরসাইকেলে ফিরছি।

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. ফিরোজ শেখ যুগান্তরকে বলেন, রাতে ওপরের নির্দেশনা পাওয়ার পর ফেরি চলাচল শুরু করা হয়েছে। বর্তমানে দৌলতদিয়া ঘাট প্রান্তে সব ফেরি চলাচল করলেও যাত্রীদের তেমন চাপ নেই বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

ফেরি চললেও ঘরমুখো যাত্রীরা ফিরছেন মোটরসাইকেলে

 রাজবাড়ী প্রতিনিধি 
১১ মে ২০২১, ১১:৫৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ফেরি চললেও ঘরমুখো যাত্রীরা ফিরছেন মোটরসাইকেলে
ছবি: যুগান্তর

লকডাউনে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় মানুষ দেশের বাড়িতে যাচ্ছেন মোটরসাইকেলে। শেষ সময়ে সরকার ফেরি চলাচল শুরু করার ঘোষণা দেয়। তবে ফেরিতে নেই যাত্রীদের চাপ। বর্তমানে এ নৌরুটে ১৬টি ফেরি চলাচল করছে; কিন্তু সেখানে বেশিরভাগ যাত্রী ফিরছেন মোটরসাইকেলে।

তবে কিছু যাত্রী মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকারে ফিরতে দেখা গেলেও ফেরির ছোট গাড়িগুলোতে ছিল না কোনোরকম স্বাস্থ্যবিধির বালাই।

মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে দৌলতদিয়া ৫ নম্বর ফেরিঘাটে গিয়ে ‘বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন’, ‘শাপলা শালুক-৯’ ও ‘রজনীগন্ধা’ ফেরিতে এ চিত্র দেখা গেছে।
 
ঢাকাফেরত একটি গার্মেন্টসের ফ্যাশন ডিজাইনার আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, টেলিভিশনে কয়েক দিন ধরে দেখছি; সরকার ঘাট এলাকায় ফেরি, ট্রলার চলাচল বন্ধ ঘোষণার নির্দেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া পথে আটকে দেওয়া হচ্ছে মোটরসাইকেল, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেটকার। এসব চিন্তা করে সর্বশেষ ঢাকাতেই ঈদ করার সিদ্ধান্ত নিই। তবে ভোরে সেহরির সময় মা ফোন করে বাড়ি যেতে বলেন, তাই মোটরসাইকেলে ফিরছি।   

বিআইডব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. ফিরোজ শেখ যুগান্তরকে বলেন, রাতে ওপরের নির্দেশনা পাওয়ার পর ফেরি চলাচল শুরু করা হয়েছে। বর্তমানে দৌলতদিয়া ঘাট প্রান্তে সব ফেরি চলাচল করলেও যাত্রীদের তেমন চাপ নেই বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন