মেয়রের মদের আসরের ভিডিও ভাইরাল
jugantor
মেয়রের মদের আসরের ভিডিও ভাইরাল

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১১ মে ২০২১, ১৮:২০:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোরের কেশবপুর পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়লের মদের আড্ডার ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এ ঘটনায় উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক হাবিবুর রহমান খান মুকুলকে হত্যার হুমকির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সেই হুমকির কথোপকথনও (অডিও রেকর্ড) ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এতে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা জানান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক খন্দকার আব্দুল আজিজ নিজের ফেসবুকে বিভিন্ন সময়ে মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়লের মদ্যপানের ছবি আপলোড করে আসছেন। এসব ছবিকে মেয়র পক্ষের লোকজন `সুপার’ এডিট দাবি করতেন।

তবে সোমবার মেয়র রফিকুল ইসলামের একটি মদের আসরের ভিডিও ফেসবুকে ফাঁস হয়। বিষয়টি নিয়ে হাবিবুর রহমান মুকুলকে সন্দেহ করেন মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়ল। ওই দিন দুপুরে মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়ল ফোন করে ওই ছাত্রলীগ নেতা হাবিবুর রহমান খান মুকুলকে হত্যার হুমকি দেন।

এদিকে মেয়র রফিকুলের মদের আসরের ভিডিও আপলোডকারী সন্দেহে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক খন্দকার আব্দুল আজিজ ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে জানিয়েছেন- সোমবার রাতে মেয়র রফিকুলের সন্ত্রাসী বাহিনী তার বাড়িতে পরপর পাঁচটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে।

কেশবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান খান মুকুল সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আমার প্রাণের সংগঠন। আওয়ামী পরিবার ও আওয়ামী নেতার সন্তান হিসেবে স্কুলজীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতি করি। কেশবপুরের মানুষের কাছে তথ্য নিলে দল জানতে পারবে আমি কোন প্রকৃতির। কিন্তু এই ভিডিও সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না; তবুও মেয়র আমাকে হত্যার হুমকি দিলেন, এতে আমার পরিবার শঙ্কিত। আমি এ ব্যাপারে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের অবহিত করব এবং আইনগত পদক্ষেপ নেব।

এ প্রসঙ্গে জানতে কেশবপুর পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলামের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। তবে তিনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, যা জানার মুকুলের কাছে জানেন; ও যা বলে তাই লেখেন।

মেয়রের মদের আসরের ভিডিও ভাইরাল

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১১ মে ২০২১, ০৬:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোরের কেশবপুর পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়লের মদের আড্ডার ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এ ঘটনায় উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক হাবিবুর রহমান খান মুকুলকে হত্যার হুমকির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সেই হুমকির কথোপকথনও (অডিও রেকর্ড) ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এতে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা জানান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক খন্দকার আব্দুল আজিজ নিজের ফেসবুকে বিভিন্ন সময়ে মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়লের মদ্যপানের ছবি আপলোড করে আসছেন। এসব ছবিকে মেয়র পক্ষের লোকজন `সুপার’ এডিট দাবি করতেন।

তবে সোমবার মেয়র রফিকুল ইসলামের একটি মদের আসরের ভিডিও ফেসবুকে ফাঁস হয়। বিষয়টি নিয়ে হাবিবুর রহমান মুকুলকে সন্দেহ করেন মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়ল। ওই দিন দুপুরে মেয়র রফিকুল ইসলাম মোড়ল ফোন করে ওই ছাত্রলীগ নেতা হাবিবুর রহমান খান মুকুলকে হত্যার হুমকি দেন।

এদিকে মেয়র রফিকুলের মদের আসরের ভিডিও আপলোডকারী সন্দেহে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক খন্দকার আব্দুল আজিজ ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে জানিয়েছেন- সোমবার রাতে মেয়র রফিকুলের সন্ত্রাসী বাহিনী তার বাড়িতে পরপর পাঁচটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে।

কেশবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান খান মুকুল সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আমার প্রাণের সংগঠন। আওয়ামী পরিবার ও আওয়ামী নেতার সন্তান হিসেবে স্কুলজীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতি করি। কেশবপুরের মানুষের কাছে তথ্য নিলে দল জানতে পারবে আমি কোন প্রকৃতির। কিন্তু এই ভিডিও সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না; তবুও মেয়র আমাকে হত্যার হুমকি দিলেন, এতে আমার পরিবার শঙ্কিত। আমি এ ব্যাপারে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের অবহিত করব এবং আইনগত পদক্ষেপ নেব।

এ প্রসঙ্গে জানতে কেশবপুর পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলামের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। তবে তিনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, যা জানার মুকুলের কাছে জানেন; ও যা বলে তাই লেখেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন