ঈদের দুই দিন আগে আগুনে পুড়ল অর্ধ শতাধিক ব্যবসায়ীর কপাল
jugantor
ঈদের দুই দিন আগে আগুনে পুড়ল অর্ধ শতাধিক ব্যবসায়ীর কপাল

  হোমনা (কুমিল্লা)প্রতিনিধি  

১২ মে ২০২১, ২০:০৭:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার হোমনায় রামকৃষ্ণপুর বাজারে অগ্নিকাণ্ডে ৪৫টি দোকান পুড়ে গেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে আরও ৩০টি দোকান। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাতে উপজেলার চান্দের চর ইউনিয়ন রামকৃষ্ণপুর বাজারের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে এ আগুনের সূত্রপাত হয়। খবর পেয়ে হোমনা, মুরাদনগর ও বাঞ্ছারামপুর ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে প্রায় ৬ ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এর মধ্যেই চালের দোকান, ফার্মেসি, তেলের দোকান, কাপড়ের দোকানসহ ৪৫টি দোকান আগুনে পুড়ে যায়। আরও ৩০টি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুমন দে, ওসি আবুল কায়েস আকন্দ, পিআইও মুহাম্মদ নাহিদ আহাম্মেদ জাকির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বাজারের চাল ব্যবসায়ী হুমায়ুন কবির জানান, আমার সব শেষ হয়ে গেছে। দোকানে ২২ লাখ টাকার মালামাল ছিল। এখন আমি পথে বসে গেছি, আগুনে আমার শেষ করে দিল।

রামকৃষ্ণপুর বাজার কমিটির সভাপতি ও চান্দের চর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল বাশার মোল্লা জানান মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে প্রায় ৪৫টি দোকান পুড়ে গেছে।

হোমনা ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ ওসমান গনি বলেন, রাত ১২টার দিকে রামকৃষ্ণপুর বাজারে অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করি। আগুনের ভয়াবহতার কারণে মুরাদনগর ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেই ৬ ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

হোমনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুমন দে বলেন, ক্ষয়ক্ষতির নিরূপণে কাজ করছি। প্রাথমিকভাবে ৪০/৪৫ টির বেশি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত বলে ফায়ার সার্ভিস আমাদেরকে জানিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন হলে তাদের আমরা সাহায্য দিতে পারব।

ঈদের দুই দিন আগে আগুনে পুড়ল অর্ধ শতাধিক ব্যবসায়ীর কপাল

 হোমনা (কুমিল্লা)প্রতিনিধি 
১২ মে ২০২১, ০৮:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার হোমনায় রামকৃষ্ণপুর বাজারে অগ্নিকাণ্ডে ৪৫টি দোকান পুড়ে গেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে আরও ৩০টি দোকান। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার রাতে উপজেলার চান্দের চর ইউনিয়ন রামকৃষ্ণপুর বাজারের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে এ আগুনের সূত্রপাত হয়। খবর পেয়ে হোমনা, মুরাদনগর ও বাঞ্ছারামপুর ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে প্রায় ৬ ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এর মধ্যেই চালের দোকান, ফার্মেসি, তেলের দোকান, কাপড়ের দোকানসহ ৪৫টি দোকান আগুনে পুড়ে যায়। আরও ৩০টি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুমন দে, ওসি আবুল কায়েস আকন্দ, পিআইও মুহাম্মদ নাহিদ আহাম্মেদ জাকির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বাজারের চাল ব্যবসায়ী হুমায়ুন কবির জানান, আমার সব শেষ হয়ে গেছে। দোকানে ২২ লাখ টাকার মালামাল ছিল। এখন আমি পথে বসে গেছি, আগুনে আমার শেষ করে দিল।

রামকৃষ্ণপুর বাজার কমিটির সভাপতি ও চান্দের চর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল বাশার মোল্লা জানান মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে প্রায় ৪৫টি দোকান পুড়ে গেছে।

হোমনা ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ ওসমান গনি বলেন, রাত ১২টার দিকে রামকৃষ্ণপুর বাজারে অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করি। আগুনের ভয়াবহতার কারণে মুরাদনগর ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেই ৬ ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

হোমনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুমন দে বলেন, ক্ষয়ক্ষতির নিরূপণে কাজ করছি। প্রাথমিকভাবে ৪০/৪৫ টির বেশি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত বলে ফায়ার সার্ভিস আমাদেরকে জানিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন হলে তাদের আমরা সাহায্য দিতে পারব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন