ভারতফেরত ৩৮০ বাংলাদেশির ঈদ কাটবে যেভাবে
jugantor
ভারতফেরত ৩৮০ বাংলাদেশির ঈদ কাটবে যেভাবে

  যশোর ব্যুরো  

১৩ মে ২০২১, ০৮:১২:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে আসা ৩৮০ জন বাংলাদেশিকে এবার যশোরের বিভিন্ন হোটেলেই ঈদ উদযাপন করতে হবে। পরিবার ছাড়াই ঈদ পার হবে এবার তাদের।

বর্তমানে সরকার নির্দেশিত ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে হোটেলগুলোতে অবস্থান করছেন তারা।

বিষয়টি মাথায় রেখে এসব নিভৃতবাসীর ঈদ পালনে সবরকম খেয়াল রাখবে যশোর প্রশাসন।

ঈদের দিন সেমাই, পোলাও, মাংসসহ উন্নত খাবার সরবরাহ করা হবে তাদের। তাদের দেখভালসহ খাবার মনিটরিংয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন জেলা প্রশাসনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার জনাব মইনুল ইসলাম ও সহকারী কমিশনার জনাব আবু নাসির।

যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সায়েমুজ্জামান জানিয়েছেন, শহরের দুটি হোটেলের সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে। হোটেল নিউ স্টার ও হোটেল আল মদিনা থেকে ভারতফেরতদের খাবার পাঠানো হবে। ঈদের দিন সকালের নাস্তায় থাকছে পরটা, পাঁচ সবজির ভাজি, ডিম মামলেট, লাচ্ছা সেমাই ও ফালুদা। মধ্যাহ্নভোজে থাকবে পোলাউ, মুরগী, ডিম, খাসির মাংস ও চাইনিজ সবজি।

প্রত্যেকের খাবার প্যাকেট করে পৌঁছে দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

এর আগে যশোরের জেলা প্রশাসন সূত্র পাওয়া খবর, ১ মে এবং পরবর্তীতে বেনাপোল বন্দর দিয়ে দেশে ফেরা বাংলাদেশিদের ঈদের দিন হোটেলেই থাকতে হবে। আর ৩০ এপ্রিল দেশে ফেরত আসাদের কোয়ারেন্টিন শেষ হবে সম্ভাব্য ঈদের দিন (১৪ মে)। এখন পর্যন্ত আসা যাত্রীদের হিসাবে ঈদের দিন হোটেলেই থাকতে হচ্ছে ৩৯১ জনকে। আর ঈদের দিন ছুটি মিলছে ১০১ জনের।

যশোরের জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, ২৬ এপ্রিল থেকে ১০ মে পর্যন্ত ১৫ দিনে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে দেশে প্রবেশ করেছে দুই হাজার ৬৯৯ বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী। এদের মধ্যে যশোর জেলায় অবস্থান করছে এক হাজার ১৮১ জন। যশোর শহরের বিভিন্ন হোটেলে ৪৬৭, বেনাপোলে হোটেলে ৪৩৮, গাজীরদরগায় ১৪০, যশোর বক্ষব্যাধি হাসপাতালে ১০১, অন্যান্য ক্লিনিকে তিন ও যশোর জেনারেল হাসপাতাল করোনা ইউনিটে পজিটিভ ১৩ জনসহ ৩২ জনকে রাখা হয়েছে।

ভারতফেরত ৩৮০ বাংলাদেশির ঈদ কাটবে যেভাবে

 যশোর ব্যুরো 
১৩ মে ২০২১, ০৮:১২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে আসা ৩৮০ জন বাংলাদেশিকে এবার যশোরের বিভিন্ন হোটেলেই ঈদ উদযাপন করতে হবে। পরিবার ছাড়াই ঈদ পার হবে এবার তাদের।

বর্তমানে সরকার নির্দেশিত ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে হোটেলগুলোতে অবস্থান করছেন তারা।

বিষয়টি মাথায় রেখে এসব নিভৃতবাসীর ঈদ পালনে সবরকম খেয়াল রাখবে যশোর প্রশাসন।  

ঈদের দিন সেমাই, পোলাও, মাংসসহ উন্নত খাবার সরবরাহ করা হবে তাদের। তাদের দেখভালসহ খাবার মনিটরিংয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন জেলা প্রশাসনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার জনাব মইনুল ইসলাম ও সহকারী কমিশনার জনাব আবু নাসির।

যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সায়েমুজ্জামান জানিয়েছেন, শহরের দুটি হোটেলের সঙ্গে আলোচনা করা হয়েছে। হোটেল নিউ স্টার ও হোটেল আল মদিনা থেকে ভারতফেরতদের খাবার পাঠানো হবে। ঈদের দিন সকালের নাস্তায় থাকছে  পরটা, পাঁচ সবজির ভাজি, ডিম মামলেট, লাচ্ছা সেমাই ও ফালুদা। মধ্যাহ্নভোজে থাকবে পোলাউ, মুরগী, ডিম, খাসির মাংস ও চাইনিজ সবজি।

প্রত্যেকের খাবার প্যাকেট করে পৌঁছে দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

এর আগে যশোরের জেলা প্রশাসন সূত্র পাওয়া খবর, ১ মে এবং পরবর্তীতে বেনাপোল বন্দর দিয়ে দেশে ফেরা বাংলাদেশিদের ঈদের দিন হোটেলেই থাকতে হবে। আর ৩০ এপ্রিল দেশে ফেরত আসাদের কোয়ারেন্টিন শেষ হবে সম্ভাব্য ঈদের দিন (১৪ মে)। এখন পর্যন্ত আসা যাত্রীদের হিসাবে ঈদের দিন হোটেলেই থাকতে হচ্ছে ৩৯১ জনকে। আর ঈদের দিন ছুটি মিলছে ১০১ জনের। 

যশোরের জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, ২৬ এপ্রিল থেকে ১০ মে পর্যন্ত ১৫ দিনে বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে দেশে প্রবেশ করেছে দুই হাজার ৬৯৯ বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী। এদের মধ্যে যশোর জেলায় অবস্থান করছে এক হাজার ১৮১ জন। যশোর শহরের বিভিন্ন হোটেলে ৪৬৭, বেনাপোলে হোটেলে ৪৩৮, গাজীরদরগায় ১৪০, যশোর বক্ষব্যাধি হাসপাতালে ১০১, অন্যান্য ক্লিনিকে তিন ও যশোর জেনারেল হাসপাতাল করোনা ইউনিটে পজিটিভ ১৩ জনসহ ৩২ জনকে রাখা হয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন