মেঘনায় ব্রিজের নিচে মাটি ভরাট করে পানি প্রবাহ বন্ধ
jugantor
মেঘনায় ব্রিজের নিচে মাটি ভরাট করে পানি প্রবাহ বন্ধ

  মেঘনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

১৫ মে ২০২১, ১৩:৪৪:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলায় পরিকল্পিতভাবে ব্রিজের নিচে মাটি ভরাট করে পানি প্রবাহ বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। এতে প্রায় প্রায় ৩২০ বিঘা ফসলি জমি নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার চন্দন পুর ইউনিয়নের তুলাতলী কাচারী কান্দিগ্রাম থেকে দুটি কাঁচা রাস্তা ভাওরখোলা ইউনিয়নের বকশী কান্দা গ্রামে মিলিত হয়।
দুটি সংযোগ সড়কের মাঝখানে প্রায় ৩২০ বিঘা ফসলি জমি রয়েছে।

এসব ফসলি জমিতে পানির প্রবাহ ঠিক রাখার জন্য সরকারি অর্থে দুটি ছোট ব্রিজ নির্মাণ করা হয়। বর্ষা আসার আগেই স্থানীয় প্রভাবশালীরা ব্রিজের নিচে মাটি ভরাট করে বন্ধ করে দিয়েছে।

ফলে ভরা মৌসুমে বিভিন্ন দিক থেকে পানি এসে স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হলে সেখানে মাছ চাষ করে লাভবান হবার জন্য এমনটি করেছে বলে দাবি এলাকাবাসীর।

ভাওরখোলা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার বিল্লাল হোসেন জানান, স্থানীয় আনোয়ার ও খোরশেদ তাদের নিজেদের জমিতে মাটি ভরাট করেছে ফলে ব্রিজের নিচে বন্ধ হয়ে গেছে। আমি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মিলন সরকার সরেজমিনে পরিদর্শন করে মাটি সরিয়ে নিতে বলেছি।

এ ব্যাপারে মেঘনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রবীর কুমার রায় বলেন, কোনো অবস্থাতেই ব্রিজ বা কালভার্টের নিচে মাটি ভরাট করা যাবে না। সরেজমিনে গিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মেঘনায় ব্রিজের নিচে মাটি ভরাট করে পানি প্রবাহ বন্ধ

 মেঘনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
১৫ মে ২০২১, ০১:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার মেঘনা উপজেলায় পরিকল্পিতভাবে ব্রিজের নিচে মাটি ভরাট করে পানি প্রবাহ বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। এতে প্রায় প্রায় ৩২০ বিঘা ফসলি জমি নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার চন্দন পুর ইউনিয়নের তুলাতলী কাচারী কান্দিগ্রাম থেকে দুটি কাঁচা রাস্তা ভাওরখোলা ইউনিয়নের বকশী কান্দা গ্রামে মিলিত হয়।
দুটি সংযোগ সড়কের মাঝখানে প্রায় ৩২০ বিঘা ফসলি জমি রয়েছে। 

এসব ফসলি জমিতে পানির প্রবাহ ঠিক রাখার জন্য সরকারি অর্থে দুটি ছোট ব্রিজ নির্মাণ করা হয়। বর্ষা আসার আগেই স্থানীয় প্রভাবশালীরা ব্রিজের নিচে মাটি ভরাট করে বন্ধ করে দিয়েছে।

ফলে ভরা মৌসুমে বিভিন্ন দিক থেকে পানি এসে স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হলে সেখানে মাছ চাষ করে লাভবান হবার জন্য এমনটি করেছে বলে দাবি এলাকাবাসীর।

ভাওরখোলা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার বিল্লাল হোসেন জানান, স্থানীয় আনোয়ার ও খোরশেদ তাদের নিজেদের জমিতে মাটি ভরাট করেছে ফলে ব্রিজের নিচে বন্ধ হয়ে গেছে। আমি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মিলন সরকার সরেজমিনে পরিদর্শন করে মাটি সরিয়ে নিতে বলেছি।

এ ব্যাপারে মেঘনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রবীর কুমার রায় বলেন, কোনো অবস্থাতেই ব্রিজ বা কালভার্টের নিচে মাটি ভরাট করা যাবে না। সরেজমিনে গিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন