‘ঘাট ফাঁকা, তাই পরিবার-পরিজন নিয়ে বাড়ি যাচ্ছি’ (ভিডিও)
jugantor
‘ঘাট ফাঁকা, তাই পরিবার-পরিজন নিয়ে বাড়ি যাচ্ছি’ (ভিডিও)

  রাজবাড়ী প্রতিনিধি  

১৫ মে ২০২১, ২০:৪৮:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের প্রবেশদ্বার রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়াঘাট দিয়ে এখনও ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরছে মানুষ। এখন ভিড় কম,তাই অনেকে আবার পরিবার-পরিজনসহ দেশের বাড়িতে ফিরছেন। একইসঙ্গে অনেক ক্ষুদে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীকেও দল বেঁধে ফিরতে দেখা যায়।

শনিবার দুপুরে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় গিয়ে ঢাকা ফেরত যাত্রীদের ফিরতে দেখা গেছে। এ ছাড়াও দৌলতদিয়াঘাট দিয়ে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ তেমন একটা চোখে পড়েনি।

সড়কে টহল দিতে দেখা গেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। ঘাট এলাকায় কঠোর নজরদারিতে রেখেছেন স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ। এদের নজরদারিতে সর্বাত্মক লকডাউন চলছে পুরো দুর্বার গতিতে। বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হলেই গুণতে হচ্ছে জরিমানা। কোনো ধরনের নিয়ম ভঙ্গ করলেই শাস্তি

মানিকগঞ্জের নালী এলাকা থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে বাড়ি ফেরা যাত্রী এম রাশেদুল হক বলেন, গত কয়েকদিন দৌলতদিয়া ঘাটে প্রচুর ভিড় ছিলে, তাই ঝুঁকি নিয়ে ভিড়ের মধ্যে বাড়ির ফেরার কথা চিন্তা করিনি।এখন ঘাট ফাঁকা, তাইপরিবার-পরিজন নিয়ে বাড়ি যাচ্ছি।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিজুল হক মামুন বলেন, সরকার আবার ১৬ মে থেকে আবার এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছেন। লকডাউন অমান্য করার কারো কোনো ধরণের সুযোগ নেই। আমরা প্রশাসন সব সময়ই মাঠে রয়েছি। তাছাড়া যেহেতু ঘাটটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সেহেতু আমরা ঘাটটিকে বিশেষ নজরদারিতে রাখতে সবসময় কাজ করছি বলে জানান এই কর্মকর্তা।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) ফিরোজ শেখ যুগান্তরকে বলেন, ঘাটে ১৬টি ফেরি চলাচল করলেও ঢাকা থেকে এখনো অনেক মানুষ বাড়ি ফিরছেন। তবে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ এখনো পড়তে শুরু করেনি। দুই একদিন পর ঢাকায় ফেরার চাপ বাড়তে পারে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

‘ঘাট ফাঁকা, তাই পরিবার-পরিজন নিয়ে বাড়ি যাচ্ছি’ (ভিডিও)

 রাজবাড়ী প্রতিনিধি 
১৫ মে ২০২১, ০৮:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের প্রবেশদ্বার রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়াঘাট দিয়ে এখনও ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরছে মানুষ। এখন ভিড় কম,তাই অনেকে আবার পরিবার-পরিজনসহ দেশের বাড়িতে ফিরছেন। একইসঙ্গে অনেক ক্ষুদে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীকেও দল বেঁধে ফিরতে দেখা যায়।

শনিবার দুপুরে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় গিয়ে ঢাকা ফেরত যাত্রীদের ফিরতে দেখা গেছে। এ ছাড়াও দৌলতদিয়াঘাট  দিয়ে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ তেমন একটা চোখে পড়েনি।

সড়কে টহল দিতে দেখা গেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। ঘাট এলাকায় কঠোর নজরদারিতে রেখেছেন স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ। এদের নজরদারিতে সর্বাত্মক লকডাউন চলছে পুরো দুর্বার গতিতে। বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হলেই গুণতে হচ্ছে জরিমানা। কোনো ধরনের নিয়ম ভঙ্গ করলেই শাস্তি

মানিকগঞ্জের নালী এলাকা থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে বাড়ি ফেরা যাত্রী এম রাশেদুল হক বলেন, গত কয়েকদিন দৌলতদিয়া ঘাটে প্রচুর ভিড় ছিলে, তাই ঝুঁকি নিয়ে ভিড়ের মধ্যে বাড়ির ফেরার কথা চিন্তা করিনি। এখন ঘাট ফাঁকা, তাই পরিবার-পরিজন নিয়ে বাড়ি যাচ্ছি।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজিজুল হক মামুন বলেন,  সরকার আবার ১৬ মে থেকে আবার এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছেন। লকডাউন অমান্য করার কারো কোনো ধরণের সুযোগ নেই। আমরা প্রশাসন সব সময়ই মাঠে রয়েছি। তাছাড়া যেহেতু ঘাটটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সেহেতু আমরা ঘাটটিকে বিশেষ নজরদারিতে রাখতে সবসময়  কাজ করছি বলে জানান এই কর্মকর্তা।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (এজিএম) ফিরোজ শেখ যুগান্তরকে বলেন, ঘাটে ১৬টি ফেরি চলাচল করলেও ঢাকা থেকে এখনো অনেক মানুষ বাড়ি ফিরছেন। তবে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ এখনো পড়তে শুরু করেনি। দুই একদিন পর ঢাকায় ফেরার চাপ বাড়তে পারে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন