আর দেশে ফেরা হলো না কসবার রাব্বির
jugantor
আর দেশে ফেরা হলো না কসবার রাব্বির

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া  

১৬ মে ২০২১, ২২:১০:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বাহরাইনে দুটি গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন তিনজন। এর মধ্যে একজন কেএম রুহুল রাব্বী (৪৮)। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার বাদৈর ইউনিয়নের মান্দারপুর গ্রামের মৃত রকিব উদ্দিনের ছেলে।

শনিবার বিকালে বাহরাইনের জাল্লাক মহাসড়কের বাহরাইন ইউনিভার্সিটির কাছে দুর্ঘটনায় তিনি প্রাণ হারান। নিহত রাব্বির লাশ দ্রুত দেশে আনার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন তার স্বজনরা। এ বছরের শেষদিকে তার দেশে ফেরার কথা ছিল।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, রাব্বির বাবা-মা কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। সাত ভাই-বোনের মধ্যে রাব্বী দ্বিতীয়। গত ২০১৭ সালে বাহরাইনে পাড়ি জমান তিনি। সেখানে একটি কোম্পানিতে সুপারভাইজারের চাকরি করতেন।

রাব্বীর ভাগ্নে আরাফাত হোসেন জানান, রোববার ভোররাতে বাহরাইন থেকে মেজো মামা মাসুদ খন্দকার ফোন করে তার মাকে দুর্ঘটনার খবরটি জানান। রাব্বী মামা ঈদের ছুটিতে তার বন্ধুদের সঙ্গে সমুদ্রপাড়ে ঘুরতে গিয়েছিলেন। ফেরার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় তিনিসহ তিনজন মারা যান।

এ বিষয়ে কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদ উল আলম বলেন, বাহরাইনে নিহতের বাড়িতে যোগাযোগ করা হয়েছে। লাশ আনা থেকে শুরু করে যে ধরনের সহযোগিতা প্রয়োজন হয় সেটাই করা হবে।

আর দেশে ফেরা হলো না কসবার রাব্বির

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া 
১৬ মে ২০২১, ১০:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাহরাইনে দুটি গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন তিনজন। এর মধ্যে একজন কেএম রুহুল রাব্বী (৪৮)। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার বাদৈর ইউনিয়নের মান্দারপুর গ্রামের মৃত রকিব উদ্দিনের ছেলে।

শনিবার বিকালে বাহরাইনের জাল্লাক মহাসড়কের বাহরাইন ইউনিভার্সিটির কাছে দুর্ঘটনায় তিনি প্রাণ হারান। নিহত রাব্বির লাশ দ্রুত দেশে আনার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন তার স্বজনরা। এ বছরের শেষদিকে তার দেশে ফেরার কথা ছিল।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, রাব্বির বাবা-মা কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। সাত ভাই-বোনের মধ্যে রাব্বী দ্বিতীয়। গত ২০১৭ সালে বাহরাইনে পাড়ি জমান তিনি। সেখানে একটি কোম্পানিতে সুপারভাইজারের চাকরি করতেন। 

রাব্বীর ভাগ্নে আরাফাত হোসেন জানান, রোববার ভোররাতে বাহরাইন থেকে মেজো মামা মাসুদ খন্দকার ফোন করে তার মাকে দুর্ঘটনার খবরটি জানান। রাব্বী মামা ঈদের ছুটিতে তার বন্ধুদের সঙ্গে সমুদ্রপাড়ে ঘুরতে গিয়েছিলেন। ফেরার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় তিনিসহ তিনজন মারা যান।

এ বিষয়ে কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদ উল আলম বলেন, বাহরাইনে নিহতের বাড়িতে যোগাযোগ করা হয়েছে। লাশ আনা থেকে শুরু করে যে ধরনের সহযোগিতা প্রয়োজন হয় সেটাই করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন