‘ওরা আমাকে কুত্তার মতো পিটিয়েছে’
jugantor
‘ওরা আমাকে কুত্তার মতো পিটিয়েছে’

  ফরিদপুর ব্যুরো  

১৬ মে ২০২১, ২৩:৫৮:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

‘ওরা আমাকে পরিকল্পিতভাবে কুত্তার মতো পিটিয়েছে। আমার কোনো আর্তনাদে ওদের রহম হইল না। আমার হাত-পা শুধু ভেঙেই ক্ষ্যান্ত হয়নি, ওরা আমাকে ভ্যানে উঠিয়ে চিত করে শুয়াইয়ে রশি দিয়ে হাত-পা বেঁধে গরু-ছাগলের মতো করে হাসপাতালে পাঠায়।’

এমনই অভিযোগ করেন ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার চুমুরদী ইউনিয়নের পশ্চিম চুমুরদী গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত রফিক।

রফিক বলেন, গত বছর ভিজিএফের চাল আত্মসাতের দায়ে ধরা পড়ে ওয়ার্ড মেম্বার গিয়াস। সেই থেকে আমাকে সন্দেহ করে কাল হয়ে দাঁড়ান। কিছু দিন আগে গিয়াস মেম্বার, কিরণ ও আরজু সরকারি নদী খননের মাটি লাখ লাখ টাকায় বিক্রি করেছে। আমরা গ্রামবাসী তার প্রতিবাদ করায় কিরণ ও গিয়াস মেম্বার আমাকে এভাবে পরিকল্পিতভাবে পথের কাঁটা দূর করতেই হত্যার উদ্দেশ্যে পিটিয়েছে।

আমাকে ঈদের দিন বলেও ছাড় দিল না ওরা, আমার বৃদ্ধ বাবা-মায়ের সঙ্গে ঈদ করতে দেয়নি। আমি ওই কিরণ ও গিয়াসের ভয়ে ১৫ দিন ধরে ঘরছাড়া। আমি পিরেরচর গ্রামে ঈদের দিন এক বন্ধুর বাড়িতে সেমাই খেয়ে বাড়ি ফেরার পথে কিরণ, আরজু ও গিয়াসসহ ২০-২৫ জন লোক আমাকে কুত্তা পিটান পিটিয়েছে। আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে, আমি চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিন কাটাচ্ছি।

ওই গ্রামের বাবুল মাতুব্বর বলেন, আমরা জন্ম থেকেই আওয়ামী লীগ করি। গিয়াস মেম্বার, কিরণ ও আরজু এরা এমপি নিক্সন চৌধুরীর নাম ভাঙিয়ে এলাকায় সব অন্যায় অত্যাচার চালিয়ে আসছে। আমরা এমপির কাছে নালিশ করতে যাব। আমরাও নিক্সন চৌধুরীর লোক, আমরা কেন এলাকায় থাকতে পারি না ওদের অত্যাচারে?

ভাঙ্গা থানার এসআই জয়ন্ত চৌধুরী বলেন, রফিককে প্রতিপক্ষরা মারপিট করেছে। তিনি এখন হাসপাতালে ভর্তি আছেন। আমরা অভিযোগ দিতে বলেছি, তারা এখনও অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

‘ওরা আমাকে কুত্তার মতো পিটিয়েছে’

 ফরিদপুর ব্যুরো 
১৬ মে ২০২১, ১১:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

‘ওরা আমাকে পরিকল্পিতভাবে কুত্তার মতো পিটিয়েছে। আমার কোনো আর্তনাদে ওদের রহম হইল না। আমার হাত-পা শুধু ভেঙেই ক্ষ্যান্ত হয়নি, ওরা আমাকে ভ্যানে উঠিয়ে চিত করে শুয়াইয়ে রশি দিয়ে হাত-পা বেঁধে গরু-ছাগলের মতো করে হাসপাতালে পাঠায়।’

এমনই অভিযোগ করেন ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার চুমুরদী ইউনিয়নের পশ্চিম চুমুরদী গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত রফিক।

রফিক বলেন, গত বছর ভিজিএফের চাল আত্মসাতের দায়ে ধরা পড়ে ওয়ার্ড মেম্বার গিয়াস। সেই থেকে আমাকে সন্দেহ করে কাল হয়ে দাঁড়ান। কিছু দিন আগে গিয়াস মেম্বার, কিরণ ও আরজু সরকারি নদী খননের মাটি লাখ লাখ টাকায় বিক্রি করেছে। আমরা গ্রামবাসী তার প্রতিবাদ করায় কিরণ ও গিয়াস মেম্বার আমাকে এভাবে পরিকল্পিতভাবে পথের কাঁটা দূর করতেই হত্যার উদ্দেশ্যে পিটিয়েছে।

আমাকে ঈদের দিন বলেও ছাড় দিল না ওরা, আমার বৃদ্ধ বাবা-মায়ের সঙ্গে ঈদ করতে দেয়নি। আমি ওই কিরণ ও গিয়াসের ভয়ে ১৫ দিন ধরে ঘরছাড়া। আমি পিরেরচর গ্রামে ঈদের দিন এক বন্ধুর বাড়িতে সেমাই খেয়ে বাড়ি ফেরার পথে কিরণ, আরজু ও গিয়াসসহ ২০-২৫ জন লোক আমাকে কুত্তা পিটান পিটিয়েছে। আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে, আমি চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিন কাটাচ্ছি।

ওই গ্রামের বাবুল মাতুব্বর বলেন, আমরা জন্ম থেকেই আওয়ামী লীগ করি। গিয়াস মেম্বার, কিরণ ও আরজু এরা এমপি নিক্সন চৌধুরীর নাম ভাঙিয়ে এলাকায় সব অন্যায় অত্যাচার চালিয়ে আসছে। আমরা এমপির কাছে নালিশ করতে যাব। আমরাও নিক্সন চৌধুরীর লোক, আমরা কেন এলাকায় থাকতে পারি না ওদের অত্যাচারে?

ভাঙ্গা থানার এসআই জয়ন্ত চৌধুরী বলেন, রফিককে প্রতিপক্ষরা মারপিট করেছে। তিনি এখন হাসপাতালে ভর্তি আছেন। আমরা অভিযোগ দিতে বলেছি, তারা এখনও অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন