বাংলাবাজারঘাটে উভয়মুখে যাত্রী চাপ
jugantor
বাংলাবাজারঘাটে উভয়মুখে যাত্রী চাপ

  শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

১৭ মে ২০২১, ১৪:২৬:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাবাজারঘাটে উভয়মুখে যাত্রী চাপ

ঈদ শেষে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুট দিয়ে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছেন দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ। তবে বাংলাবাজারঘাটে উভয়মুখে যাত্রী চাপ লক্ষ্য করা গেছে।

সোমবার সকাল থেকেই লোকাল বাস, মিনি ট্রাক, মাইক্রোবাস, থ্রি-হুইলার ও মোটরসাইকেলে কয়েকগুণ বেশি ভাড়া দিয়ে বাংলাবাজারঘাটে আসছেন যাত্রীরা। পরে ফেরিতে পাড়ি দিচ্ছেন পদ্মা।

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীদের ভিড় বাড়বে বলে মনে করছে ঘাট কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া ব্যক্তিগতমালিকানা গাড়ি ও পণ্যবাহী ট্রাক পার হচ্ছে ফেরিতে। তবে অ্যাম্বুলেন্স ও কাঁচা পণ্যবাহী যানবাহনকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ফেরিতে পার করছে ঘাট কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, সোমবার এই রুটে ১৭টি ফেরি চলাচল করার যাত্রীদের ফেরি পার হতে তেমন কোনো সমস্যা হচ্ছে না। এদিকে সকাল থেকেই ঢাকা থেকে আসা দক্ষিণাঞ্চলমুখী যাত্রীদের চাপ দেখা গেছে।

নড়াইল থেকে আসা যাত্রী সাখাওয়াত হোসেন জানান, ঈদ শেষে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বাড়ছে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে। ঘাট এলাকা ফেরি বা অন্যান্য যানবাহনে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি। যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মানাতে প্রশাসনের নেই কোনো ভূমিকা।
কোনো পরিবহন চালু না থাকায় অনেক কষ্ট করে আসতে হয়েছে। যেখানে খরচ হবে মাত্র ৩০০ টাকা; সেখানে প্রায় দেড় হাজার টাকা খরচ হচ্ছে।

বাংলাবাজারঘাটের ম্যানেজার সালাউদ্দিন জানান, ঘাট সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলেও যাত্রীদের চাপে অনেক সময় সম্ভব হচ্ছে না। তবে এই রুটে ১৭টি ফেরি চলাচল করছে। যাত্রীদের ফেরি পার হতে তেমন কোনো সমস্যা হচ্ছে না।

ঘাট এলাকায়ও উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি। শিমুলিয়া থেকে ফেরি এসে ঘাটে ভেড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীরা ফেরিতে উঠে পড়ায় গাড়ি আনলোড হতে দেরি হচ্ছে।

বাংলাবাজারঘাটে উভয়মুখে যাত্রী চাপ

 শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
১৭ মে ২০২১, ০২:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বাংলাবাজারঘাটে উভয়মুখে যাত্রী চাপ
ছবি: যুগান্তর

ঈদ শেষে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুট দিয়ে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছেন দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ। তবে বাংলাবাজারঘাটে উভয়মুখে যাত্রী চাপ লক্ষ্য করা গেছে।

সোমবার সকাল থেকেই লোকাল বাস, মিনি ট্রাক, মাইক্রোবাস, থ্রি-হুইলার ও মোটরসাইকেলে কয়েকগুণ বেশি ভাড়া দিয়ে বাংলাবাজারঘাটে আসছেন যাত্রীরা। পরে ফেরিতে পাড়ি দিচ্ছেন পদ্মা।

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীদের ভিড় বাড়বে বলে মনে করছে ঘাট কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া ব্যক্তিগতমালিকানা গাড়ি ও পণ্যবাহী ট্রাক পার হচ্ছে ফেরিতে। তবে অ্যাম্বুলেন্স ও কাঁচা পণ্যবাহী যানবাহনকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ফেরিতে পার করছে ঘাট কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, সোমবার এই রুটে ১৭টি ফেরি চলাচল করার যাত্রীদের ফেরি পার হতে তেমন কোনো সমস্যা হচ্ছে না। এদিকে সকাল থেকেই ঢাকা থেকে আসা দক্ষিণাঞ্চলমুখী যাত্রীদের চাপ দেখা গেছে।

নড়াইল থেকে আসা যাত্রী সাখাওয়াত হোসেন জানান, ঈদ শেষে ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বাড়ছে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে। ঘাট এলাকা ফেরি বা অন্যান্য যানবাহনে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি। যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি মানাতে প্রশাসনের নেই কোনো ভূমিকা।
কোনো পরিবহন চালু না থাকায় অনেক কষ্ট করে আসতে হয়েছে। যেখানে খরচ হবে মাত্র ৩০০ টাকা; সেখানে প্রায় দেড় হাজার টাকা খরচ হচ্ছে।

বাংলাবাজারঘাটের ম্যানেজার সালাউদ্দিন জানান, ঘাট সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলেও যাত্রীদের চাপে অনেক সময় সম্ভব হচ্ছে না। তবে এই রুটে ১৭টি ফেরি চলাচল করছে। যাত্রীদের ফেরি পার হতে তেমন কোনো সমস্যা হচ্ছে না।

ঘাট এলাকায়ও উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি। শিমুলিয়া থেকে ফেরি এসে ঘাটে ভেড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীরা ফেরিতে উঠে পড়ায় গাড়ি আনলোড হতে দেরি হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন