৩০ বছর পর স্বজনদের খুঁজে পেলেন কাওছার
jugantor
৩০ বছর পর স্বজনদের খুঁজে পেলেন কাওছার

  অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি  

১৭ মে ২০২১, ১৪:২৮:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

মো. কাওছার শেখ

দীর্ঘ ৩০ বছর পর হারানো সন্তান মো. কাওছার শেখকে (৪৬) ফিরে পেয়েছে তার পরিবার। হারানো সন্তানকে এত বছর পর দেখতে পেয়ে স্বজনদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বইছে। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে হারানো কাওছারকে একনজর দেখার জন্য বাড়িতে ভিড় করেন স্থানীয়রা।

ঘটনাটি ঘটেছে যশোরের অভয়নগর উপজেলায় গুয়াখোলা ক্লিনিকপাড়ায়। কাওছার শেখ একই এলাকার মৃত দলিল উদ্দিন শেখের বড় ছেলে।

জানা যায়, মো. কাওছার শেখ ৩০ বছর আগে অভাবের তাড়নায় বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। পরে ১৯৯১ সালের সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে তিনি স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলেন। স্মৃতিশক্তি হারিয়ে এতদিন ধরে তিনি ঢাকায় একটি জাহাজ কোম্পানিতে চাকরি করে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়ে জীবনযাপন করছিলেন।

হঠাৎ করে হারানো কাওছার শেখের মনে পড়ে তার পরিবার-পরিজনের কথা। তার আরও মনে পড়ে মা, ভাইবোনসহ এলাকার ঠিকানা। সে মোতাবেক রোববার সকালে ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে বিকালে তাদের বাড়ি যশোরের অভয়নগর উপজেলায় গুয়াখোলা ক্লিনিকপাড়ায় হাজির হন।

দীর্ঘ ৩০ বছর পর হঠাৎ করে হারানো কাওছার শেখকে পেয়ে ভাই মো. আফসার উদ্দিন শেখ আনন্দে কাঁদতে শুরু করেন।

তিনি জানান, দীর্ঘ ৩০ বছর পর হারানো ভাইকে ফিরে পাব তা কখনও ভাবতে পারিনি। আমরা ধরে নিয়েছিলাম— সে হয়তোবা আর বেঁচে নেই। রোববার আকস্মিকভাবে ভাইকে ফিরে পেয়ে আমার পরিবারের সবাই অনেক খুশি।

৩০ বছর আগে ভাইকে হারানোর বিষয়ে তিনি জানান, অষ্টম শ্রেণিতে পড়াকালীন তার ভাই বাড়ি থেকে বের হয়। পরে যশোরে কিছু দিন থাকার পর চট্টগ্রামে কাজের সন্ধানে গিয়ে একটি বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে কাজ নেয়। ওই সময় ১৯৯১ সালে ঘটে যাওয়া ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে মাথায় আঘাত পেয়ে তার স্মৃতিশক্তি লোপ পায়।

তার পর সে ঢাকায় গিয়ে জাহাজ কোম্পানিতে কাজ নিয়ে বিবাহ করে ঘরসংসার করতে থাকে। বর্তমানে ভাইয়ের সংসারে তার স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

হারিয়ে যাওয়া কাওছার শেখ জানান, দীর্ঘদিন পর আমার মনে পড়তে থাকে মা-ভাইবোনদের কথা। তাই আমি নওয়াপাড়ার শেখ ব্রাদার্সের কর্মচারী ফরহাদের মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে আমাদের বাড়িতে হাজির হয়েছি। ৩০ বছর পর হারানো কাওছার শেখ তার বাড়িতে হাজির হয়েছেন, এমন খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে শত শত মানুষ তাকে একনজর দেখার জন্য বাড়িতে ভিড় জমায়।

৩০ বছর পর স্বজনদের খুঁজে পেলেন কাওছার

 অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি 
১৭ মে ২০২১, ০২:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মো. কাওছার শেখ
মো. কাওছার শেখ। ছবি: যুগান্তর

দীর্ঘ ৩০ বছর পর হারানো সন্তান মো. কাওছার শেখকে (৪৬) ফিরে পেয়েছে তার পরিবার।  হারানো সন্তানকে এত বছর পর দেখতে পেয়ে স্বজনদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বইছে। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে হারানো কাওছারকে একনজর দেখার জন্য বাড়িতে ভিড় করেন স্থানীয়রা।

ঘটনাটি ঘটেছে যশোরের অভয়নগর উপজেলায় গুয়াখোলা ক্লিনিকপাড়ায়। কাওছার শেখ একই এলাকার মৃত দলিল উদ্দিন শেখের বড় ছেলে।

জানা যায়, মো. কাওছার শেখ ৩০ বছর আগে অভাবের তাড়নায় বাড়ি থেকে বের হয়ে যান।  পরে ১৯৯১ সালের সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে তিনি স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলেন। স্মৃতিশক্তি হারিয়ে এতদিন ধরে তিনি ঢাকায় একটি জাহাজ কোম্পানিতে চাকরি করে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়ে জীবনযাপন করছিলেন।
 
হঠাৎ করে হারানো কাওছার শেখের মনে পড়ে তার পরিবার-পরিজনের কথা। তার আরও মনে পড়ে মা, ভাইবোনসহ এলাকার ঠিকানা। সে মোতাবেক রোববার সকালে ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে বিকালে তাদের বাড়ি যশোরের অভয়নগর উপজেলায় গুয়াখোলা ক্লিনিকপাড়ায় হাজির হন।

দীর্ঘ ৩০ বছর পর হঠাৎ করে হারানো কাওছার শেখকে পেয়ে ভাই মো. আফসার উদ্দিন শেখ আনন্দে কাঁদতে শুরু করেন।

তিনি জানান, দীর্ঘ ৩০ বছর পর হারানো ভাইকে ফিরে পাব তা কখনও ভাবতে পারিনি। আমরা ধরে নিয়েছিলাম— সে হয়তোবা আর বেঁচে নেই। রোববার আকস্মিকভাবে ভাইকে ফিরে পেয়ে আমার পরিবারের সবাই অনেক খুশি।

৩০ বছর আগে ভাইকে হারানোর বিষয়ে তিনি জানান, অষ্টম শ্রেণিতে পড়াকালীন তার ভাই বাড়ি থেকে বের হয়। পরে যশোরে কিছু দিন থাকার পর চট্টগ্রামে কাজের সন্ধানে গিয়ে একটি বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে কাজ নেয়। ওই সময় ১৯৯১ সালে ঘটে যাওয়া ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে মাথায় আঘাত পেয়ে তার স্মৃতিশক্তি লোপ পায়।

তার পর সে ঢাকায় গিয়ে জাহাজ কোম্পানিতে কাজ নিয়ে বিবাহ করে ঘরসংসার করতে থাকে। বর্তমানে ভাইয়ের সংসারে তার স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

হারিয়ে যাওয়া কাওছার শেখ জানান, দীর্ঘদিন পর আমার মনে পড়তে থাকে মা-ভাইবোনদের কথা। তাই আমি নওয়াপাড়ার শেখ ব্রাদার্সের কর্মচারী ফরহাদের মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে আমাদের বাড়িতে হাজির হয়েছি। ৩০ বছর পর হারানো কাওছার শেখ তার বাড়িতে হাজির হয়েছেন, এমন খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে শত শত মানুষ তাকে একনজর দেখার জন্য বাড়িতে ভিড় জমায়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন