কিশোর-কিশোরীর গল্প করা নিয়ে সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ১৫
jugantor
কিশোর-কিশোরীর গল্প করা নিয়ে সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ১৫

  সেনবাগ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

২৬ মে ২০২১, ২১:২৫:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ছাতারপাইয়া ইউনিয়নে কিশোর-কিশোরীর গল্প করা নিয়ে দুই পাড়ার মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশের এক এএসআই সহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করেছে। ঘটনাস্থল থেকে ছাতারপাইয়া বাজারের ফল ব্যবসায়ী সুমন, টেইলার্স মালিক ফারুক ও এক প্রবাসীকে আটক করা হয়।

বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তিন দফায় ছাতারপাইয়া বাজারের চিলাদী সড়কে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ছাতারপাইয়া বাজারের ছাতারপাইয়া আইকে দাখিল মাদ্রাসার আলীর দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে এক ছাত্রীর সঙ্গে কথা বলছিল মান্দারকান্দি এলাকার সুরুল ভূঁইয়া বাড়ির সাগর নামে এক কিশোর।

এ সময় পশ্চিম-দক্ষিণপাড়ার আজগর আলী বেপারীবাড়ির ফাহিম নামের অন্য এক যুবক বিষয়টি দেখতে পেয়ে সাগরের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে তাদের দুইজনের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে বিষয়টি সমাধান করে দেন।

এ ঘটনার পর উভয় গ্রুপ পুনরায় লোকজন নিয়ে বাজারে এসে বেলা ১১টা ও সাড়ে ১২টার দিকে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে এ সংঘর্ষ দুই পাড়ার মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। সংঘর্ষে থানার এএসআই সমর বড়–য়াসহ স্থানীয় মরিয়ম বেগম, ওমর, সোহাগ, সাগর ও ফাহিমসহ উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হন। এ সময় মাওলাবাড়ির কামাল, হাবিব ও জাহাঙ্গীরের ৩টি ঘরে হামলার ঘটনা ঘটে। সাগর ও ফাহিম দুইজনই ওই ছাত্রীকে পছন্দ করে- এমনটা ধারণা করছে স্থানীয় লোকজন।

সেনবাগ থানার ওসি আব্দুল বাতেন মৃধা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের আটক করা হবে।

কিশোর-কিশোরীর গল্প করা নিয়ে সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ১৫

 সেনবাগ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
২৬ মে ২০২১, ০৯:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ছাতারপাইয়া ইউনিয়নে কিশোর-কিশোরীর গল্প করা নিয়ে  দুই পাড়ার মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পুলিশের এক এএসআই সহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। 

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করেছে। ঘটনাস্থল থেকে ছাতারপাইয়া বাজারের ফল ব্যবসায়ী সুমন, টেইলার্স মালিক ফারুক ও এক প্রবাসীকে আটক করা হয়। 

বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তিন দফায় ছাতারপাইয়া বাজারের চিলাদী সড়কে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।  আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ছাতারপাইয়া বাজারের ছাতারপাইয়া আইকে দাখিল মাদ্রাসার আলীর দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে এক ছাত্রীর সঙ্গে কথা বলছিল মান্দারকান্দি এলাকার সুরুল ভূঁইয়া বাড়ির সাগর নামে এক কিশোর।

এ সময় পশ্চিম-দক্ষিণপাড়ার আজগর আলী বেপারীবাড়ির ফাহিম নামের অন্য এক যুবক বিষয়টি দেখতে পেয়ে সাগরের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে তাদের দুইজনের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে বিষয়টি সমাধান করে দেন।

এ ঘটনার পর উভয় গ্রুপ পুনরায় লোকজন নিয়ে বাজারে এসে বেলা ১১টা ও সাড়ে ১২টার দিকে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে এ সংঘর্ষ দুই পাড়ার মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। সংঘর্ষে থানার এএসআই  সমর বড়–য়াসহ স্থানীয় মরিয়ম বেগম, ওমর, সোহাগ, সাগর ও ফাহিমসহ উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হন। এ সময় মাওলাবাড়ির কামাল, হাবিব ও জাহাঙ্গীরের ৩টি ঘরে হামলার ঘটনা ঘটে। সাগর ও ফাহিম দুইজনই ওই ছাত্রীকে পছন্দ করে- এমনটা ধারণা করছে স্থানীয় লোকজন।

সেনবাগ থানার ওসি আব্দুল বাতেন মৃধা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের আটক করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন