তরুণীর অশ্লীল ছবি তুলে ইন্টারনেটে
jugantor
তরুণীর অশ্লীল ছবি তুলে ইন্টারনেটে

  বগুড়া ব্যুরো  

৩০ মে ২০২১, ২৩:৫৪:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফ

বগুড়ায় প্রেমের ছলে প্রতারণার মাধ্যমে অশ্লীল ছবি সংগ্রহ ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার মামলায় সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফ (২৫) নামে এক প্রতারককে গ্রেফতার করা হয়েছে। ডিবি পুলিশের একটি দল গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার রাতে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার রেলস্টেশনের প্রবেশ পথ থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

আলামত হিসেবে তার কাছ থেকে দুটি সিমসহ একটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। বগুড়া ডিবি পুলিশের ইনচার্জ পরিদর্শক আবদুর রাজ্জাক রোববার বিকালে এ তথ্য দিয়েছেন।

এজাহার সূত্র ও পুলিশ জানায়, ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার কাঁঠাল বিলবোকা গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে বগুড়া শহরের নাটাইপাড়ায় বসবাসকারী একটি বেসরকারি সংস্থার নাটোর কার্যালয়ে কর্মরত তরুণীর (২৫) পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। আলিফ ওই তরুণীর সঙ্গে নাটোরে দেখা করতে আসেন।

ওই দিন তাকে নিয়ে কুষ্টিয়াতে বেড়াতে যান এবং আবাসিক হোটেলে থাকতে বাধ্য করেন। এতে তিনি আসামি আলিফের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে চাইলেও ভয় দেখিয়ে বাধ্য করেন।

পরবর্তীতে বিয়ের প্রলোভনে খুলনা, সুন্দরবন, সেন্টমার্টিন, কিশোরগঞ্জ, ভৈরবসহ বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে যান। সেন্টমার্টিনে সাত দিনের ট্যুরে গিয়ে হোটেল রুমে অবস্থানকালে আলিফ মেয়েটির অজান্তে অশ্লীল ছবি ধারণ করেন।

তরুণী টাঙ্গাইল জেলায় বদলি হলে আসামি সেখানে বাসাভাড়া নিয়ে ভয় দেখিয়ে সেখানে থাকতে বাধ্য করেন। এরপর পরিবার ও আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বাধা দিয়ে তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকেন।

তরুণী ঈদের ছুটিতে বাড়িতে এসে অসুস্থ হয়ে পড়লে ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে যোগাযোগ করতে পারেননি। এতে আসামি আলিফ তাকে সন্দেহ করেন। তিনি পূর্বে ধারণ করা অশ্লীল ছবিগুলো তার ফেসবুক আইডি হতে ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে তরুণীর বন্ধু-বান্ধব ও সহকর্মীদের ছড়িয়ে দেন। এছাড়া বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শনসহ হুমকি দেন।

এ ব্যাপারে ওই তরুণী গত ২৭ মে বগুড়া সদর থানায় প্রতারক সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন।

বগুড়া ডিবি পুলিশের ইনচার্জ পরিদর্শক আবদুর রাজ্জাক ও পরিদর্শক ইমরান মাহমুদ তুহিন জানান, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার রাতে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার রেলস্টেশনের প্রবেশ পথ থেকে একমাত্র আসামি আলিফকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার কাছ থেকে জব্দ করা মোবাইল ফোনে এজাহারে উল্লিখিত ফেক ফেসবুক আইডি লগইন অবস্থায় পাওয়া যায়। ওই আইডি থেকে বাদীর অশ্লীল ছবি ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে বিভিন্ন ফেসবুক আইডিতে প্রেরণের প্রমাণ মিলেছে। রোববার আসামি প্রতারক আলিফকে আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

তরুণীর অশ্লীল ছবি তুলে ইন্টারনেটে

 বগুড়া ব্যুরো 
৩০ মে ২০২১, ১১:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফ
সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফ। ফাইল ছবি

বগুড়ায় প্রেমের ছলে প্রতারণার মাধ্যমে অশ্লীল ছবি সংগ্রহ ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার মামলায় সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফ (২৫) নামে এক প্রতারককে গ্রেফতার করা হয়েছে। ডিবি পুলিশের একটি দল গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার রাতে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার রেলস্টেশনের প্রবেশ পথ থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

আলামত হিসেবে তার কাছ থেকে দুটি সিমসহ একটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। বগুড়া ডিবি পুলিশের ইনচার্জ পরিদর্শক আবদুর রাজ্জাক রোববার বিকালে এ তথ্য দিয়েছেন।

এজাহার সূত্র ও পুলিশ জানায়, ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার কাঁঠাল বিলবোকা গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে বগুড়া শহরের নাটাইপাড়ায় বসবাসকারী একটি বেসরকারি সংস্থার নাটোর কার্যালয়ে কর্মরত তরুণীর (২৫) পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। আলিফ ওই তরুণীর সঙ্গে নাটোরে দেখা করতে আসেন।

ওই দিন তাকে নিয়ে কুষ্টিয়াতে বেড়াতে যান এবং আবাসিক হোটেলে থাকতে বাধ্য করেন। এতে তিনি আসামি আলিফের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে চাইলেও ভয় দেখিয়ে বাধ্য করেন।

পরবর্তীতে বিয়ের প্রলোভনে খুলনা, সুন্দরবন, সেন্টমার্টিন, কিশোরগঞ্জ, ভৈরবসহ বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে যান। সেন্টমার্টিনে সাত দিনের ট্যুরে গিয়ে হোটেল রুমে অবস্থানকালে আলিফ মেয়েটির অজান্তে অশ্লীল ছবি ধারণ করেন।

তরুণী টাঙ্গাইল জেলায় বদলি হলে আসামি সেখানে বাসাভাড়া নিয়ে ভয় দেখিয়ে সেখানে থাকতে বাধ্য করেন। এরপর পরিবার ও আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বাধা দিয়ে তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকেন।

তরুণী ঈদের ছুটিতে বাড়িতে এসে অসুস্থ হয়ে পড়লে ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে যোগাযোগ করতে পারেননি। এতে আসামি আলিফ তাকে সন্দেহ করেন। তিনি পূর্বে ধারণ করা অশ্লীল ছবিগুলো তার ফেসবুক আইডি হতে ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে তরুণীর বন্ধু-বান্ধব ও সহকর্মীদের ছড়িয়ে দেন। এছাড়া বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শনসহ হুমকি দেন।

এ ব্যাপারে ওই তরুণী গত ২৭ মে বগুড়া সদর থানায় প্রতারক সারোয়ার আরিফ ওরফে আলিফের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন।

বগুড়া ডিবি পুলিশের ইনচার্জ পরিদর্শক আবদুর রাজ্জাক ও পরিদর্শক ইমরান মাহমুদ তুহিন জানান, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার রাতে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার রেলস্টেশনের প্রবেশ পথ থেকে একমাত্র আসামি আলিফকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার কাছ থেকে জব্দ করা মোবাইল ফোনে এজাহারে উল্লিখিত ফেক ফেসবুক আইডি লগইন অবস্থায় পাওয়া যায়। ওই আইডি থেকে বাদীর অশ্লীল ছবি ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে বিভিন্ন ফেসবুক আইডিতে প্রেরণের প্রমাণ মিলেছে। রোববার আসামি প্রতারক আলিফকে আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন