একসঙ্গে জন্ম নিল তিন কন্যাশিশু
jugantor
একসঙ্গে জন্ম নিল তিন কন্যাশিশু

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া  

৩১ মে ২০২১, ২৩:৫৯:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

একসঙ্গে জন্ম নিল তিন কন্যাশিশু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সুমাইয়া আক্তার নামের এক নারী একসঙ্গে তিনটি ফুটফুটে যমজ কন্যাশিশুর জন্ম দিয়েছেন। সোমবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের টেংকেরপাড় স্ট্যান্ডার্ড হাসপাতালে ওই তিন শিশুর জন্ম হয়।

সুমাইয়া আক্তার জেলার বিজয়নগর উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের মুকুন্দপুরের আল আমিন মিয়ার স্ত্রী। ওই নারীকে গাইনি চিকিৎসক কাজী লুৎফুন্নাহার লুৎফা সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে শিশুগুলোকে জন্ম দেন। একটি শিশু ২ কেজি ২০০ গ্রাম, একটি ২ কেজি ও একটি ১ কেজি ৯০০ গ্রাম ওজনে জন্ম নিয়েছে। শিশুগুলোর শারীরিক অবস্থা ভালো আছে। তবে ১ কেজি ৯০০ গ্রামের শিশুটির শারীরিক অবস্থা একটু দুর্বল। প্রসূতিও অনেক ভালো আছেন।

চিকিৎসক কাজী লুৎফুন্নাহার লুৎফা বলেন, সোমবার সকালে ওই প্রসূতির শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। আল্ট্রাসনোগ্রাফির মাধ্যমে আগেই জানা ছিল তার তিন শিশু গর্ভে আছে। হাসপাতালে আনার পর পেটে শিশুগুলোর নড়াচড়া কম ছিল ও প্রসূতির প্রেসার বেশি ছিল। তাই দ্রুত সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে তিনটি কন্যাশিশু ভূমিষ্ঠ হয়।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে শিশুগুলোর পিতা আল আমিন মিয়া বলেন, দীর্ঘ ১১ বছর হলো আমাদের বিয়ে হয়েছে। আগেও আমাদের দুইটি কন্যাসন্তান রয়েছে। এখন নতুন করে আরও তিন কন্যাসন্তান জন্ম হওয়ায় ভালো লাগছে। অনেকেই ভাবতে পারে আগের দুই কন্যা ও নতুন করে আরও তিন কন্যার জন্ম হয়েছে। এতে আমার মন হয়তো খারাপ, কিন্তু না আমার মন অনেক ভালো। আমি অনেক খুশি।

একসঙ্গে জন্ম নিল তিন কন্যাশিশু

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া 
৩১ মে ২০২১, ১১:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
একসঙ্গে জন্ম নিল তিন কন্যাশিশু
একসঙ্গে জন্ম নিল তিন কন্যাশিশু

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সুমাইয়া আক্তার নামের এক নারী একসঙ্গে তিনটি ফুটফুটে যমজ কন্যাশিশুর জন্ম দিয়েছেন। সোমবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের টেংকেরপাড় স্ট্যান্ডার্ড হাসপাতালে ওই তিন শিশুর জন্ম হয়।

সুমাইয়া আক্তার জেলার বিজয়নগর উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের মুকুন্দপুরের আল আমিন মিয়ার স্ত্রী। ওই নারীকে গাইনি চিকিৎসক কাজী লুৎফুন্নাহার লুৎফা সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে শিশুগুলোকে জন্ম দেন। একটি শিশু ২ কেজি ২০০ গ্রাম, একটি ২ কেজি ও একটি ১ কেজি ৯০০ গ্রাম ওজনে জন্ম নিয়েছে। শিশুগুলোর শারীরিক অবস্থা ভালো আছে। তবে ১ কেজি ৯০০ গ্রামের শিশুটির শারীরিক অবস্থা একটু দুর্বল। প্রসূতিও অনেক ভালো আছেন। 

চিকিৎসক কাজী লুৎফুন্নাহার লুৎফা বলেন, সোমবার সকালে ওই প্রসূতির শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। আল্ট্রাসনোগ্রাফির মাধ্যমে আগেই জানা ছিল তার তিন শিশু গর্ভে আছে। হাসপাতালে আনার পর পেটে শিশুগুলোর নড়াচড়া কম ছিল ও প্রসূতির প্রেসার বেশি ছিল। তাই দ্রুত সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে তিনটি কন্যাশিশু ভূমিষ্ঠ হয়।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে শিশুগুলোর পিতা আল আমিন মিয়া বলেন, দীর্ঘ ১১ বছর হলো আমাদের বিয়ে হয়েছে। আগেও আমাদের দুইটি কন্যাসন্তান রয়েছে। এখন নতুন করে আরও তিন কন্যাসন্তান জন্ম হওয়ায় ভালো লাগছে। অনেকেই ভাবতে পারে আগের দুই কন্যা ও নতুন করে আরও তিন কন্যার জন্ম হয়েছে। এতে আমার মন হয়তো খারাপ, কিন্তু না আমার মন অনেক ভালো। আমি অনেক খুশি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন