জমি নিয়ে বিরোধ, আমগাছে ঝুলন্ত লাশ
jugantor
জমি নিয়ে বিরোধ, আমগাছে ঝুলন্ত লাশ

  বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি  

০২ জুন ২০২১, ১৭:২৮:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার পল্লীতে ইয়াকুব আলী (৪৫) নামে এক ব্যক্তির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেছেন, জমি সংক্রান্ত ভাগাভাগি নিয়ে আপন ভাই তাকে হত্যা করে লাশ গাছে ঝুলিয়ে রেখেছে।

নিহত ইয়াকুব আলী চিরিরবন্দর উপজেলার ফতেজংপুর ইউনিয়নের উত্তর পলাশবাড়ী গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে। বুধবার সকালে বাড়ির অদূরে গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহতের স্ত্রী আর্জিনা বেগম অভিযোগ করেন, তার ভাসুর জাবেদ আলীর (ইয়াকুব আলীর বড়ভাই) সঙ্গে জমি ভাগাভাগির বিষয় নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে তাদের বিরোধ চলছে। এরই মধ্যে জাবেদ আলী ও তার জামাতা মিলে আমার স্বামী ইয়াকুব আলীকে কয়েকবার পিটিয়ে আহত করে। এ বিষয় নিয়ে আমরা একটি মামলা দায়ের করি।

এরই জের ধরে মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে শ্যালকের বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে ফেরার সময় রাস্তায় জাবেদ আলী ও তার জামাতাসহ কয়েকজন আমার স্বামীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। তারপর বাড়ির সামনে ছোট্ট একটি আমগাছের সঙ্গে লাশ ঝুঁলিয়ে রাখে।

চিরিরবন্দর থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার জানান, স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রাথমিক সুরতহাল তৈরি করেছে। প্রাথমিক তদন্তে মনে হচ্ছে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। মৃতদেহ উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে । এ ব্যাপারে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হবে বলেও তিনি নিশ্চিত করেছেন।

জমি নিয়ে বিরোধ, আমগাছে ঝুলন্ত লাশ

 বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি 
০২ জুন ২০২১, ০৫:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার পল্লীতে ইয়াকুব আলী (৪৫) নামে এক ব্যক্তির ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেছেন, জমি সংক্রান্ত ভাগাভাগি নিয়ে আপন ভাই তাকে হত্যা করে লাশ গাছে ঝুলিয়ে রেখেছে। 

নিহত ইয়াকুব আলী চিরিরবন্দর উপজেলার ফতেজংপুর ইউনিয়নের উত্তর পলাশবাড়ী গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে। বুধবার সকালে বাড়ির অদূরে গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। 

নিহতের স্ত্রী আর্জিনা বেগম অভিযোগ করেন, তার ভাসুর জাবেদ আলীর (ইয়াকুব আলীর বড়ভাই) সঙ্গে জমি ভাগাভাগির বিষয় নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে তাদের বিরোধ চলছে। এরই মধ্যে জাবেদ আলী ও তার জামাতা মিলে আমার স্বামী ইয়াকুব আলীকে কয়েকবার পিটিয়ে আহত করে। এ বিষয় নিয়ে  আমরা একটি মামলা দায়ের করি।

এরই জের ধরে মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে শ্যালকের বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে ফেরার সময় রাস্তায় জাবেদ আলী ও তার জামাতাসহ কয়েকজন আমার স্বামীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। তারপর বাড়ির সামনে ছোট্ট একটি আমগাছের সঙ্গে লাশ ঝুঁলিয়ে রাখে।

চিরিরবন্দর থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার জানান, স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রাথমিক সুরতহাল তৈরি করেছে। প্রাথমিক তদন্তে মনে হচ্ছে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। মৃতদেহ উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে । এ ব্যাপারে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হবে বলেও তিনি নিশ্চিত করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন