বড়াল নদ রক্ষায় বাবা-মেয়ের নীরব আন্দোলন
jugantor
বড়াল নদ রক্ষায় বাবা-মেয়ের নীরব আন্দোলন

  বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি  

০৪ জুন ২০২১, ০০:২৮:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশ্ব পরিবেশ ও দৌড় দিবসকে ঘিরে নাটোরের বাগাতিপাড়ার আরিফুর রহমান কনক নামের এক বাবা ও তার মেয়ে নুসরাত জাহান কথা এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন।

ক্রমান্বয়ে শুকনো ফসলের মাঠে পরিণত হওয়া এক সময়ের খরস্রোতা বড়াল নদের ঐতিহ্য ফিরে পেতে ও পরিবেশ রক্ষায় বাবা-মেয়ে নদের পাড় বেয়ে পায়ে হেঁটে বাগাতিপাড়া অংশের ১১ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিচ্ছেন।

শুক্রবার সকাল ৯টায় বড়াল নদের পাড় সংলগ্ন বাগাতিপাড়া পাইলট মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে তারা হেঁটে যাত্রা শুরু করবেন। তাদের এ আন্দোলনে সাড়া দিয়ে প্রায় অর্ধশত তরুণ-তরুণীও এ পদযাত্রায় অংশ নিতে রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

এর আগে আরিফুর রহমান কনক মাদকের বিরুদ্ধে হেঁটে হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে আলোচিত হন। তিনি উপজেলার মালঞ্চি গ্রামের বাসিন্দা।

আরিফুর রহমান কনক জানান, আগামী ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও গত ২ জুন বিশ্ব দৌড় দিবস উপলক্ষে বড়াল নদ রক্ষার দাবিতে নিজের মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে তিনি নদের পাড় বেয়ে ১১ কিলোমিটার পদযাত্রার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এজন্য তিনি ‘বড়ালের জল আবার হোক টলমল’ স্লোগানকে সামনে রেখেছেন।

তিনি জানান, নদ তার জন্ম থেকে প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় দৌড়ে চলেছে কিন্তু মানুষ তার ভারসাম্য নাব্য সবই নষ্ট করে দিচ্ছে। যার কারণে নিজের বিবেকের তাড়নায় নদের ঐতিহ্য ফেরানোর দাবিতে নিজের মেয়ে নুসরাত জাহান কথাকে সঙ্গে নিয়ে হেঁটেই যাত্রা করছেন।

দ্রুত নদের সীমানা নির্ধারণ, খনন করে নদ রক্ষা, নদের ওপর নির্ভরশীল মানুষদের পাশে দাঁড়ানো ও পরিবেশ রক্ষাসহ কয়েকটি দাবিতে এ পদযাত্রার ঘোষণা দিয়ে গত ২৮ মে নদের পাড়ে দাঁড়িয়ে বাবা-মেয়ের তোলা ছবি নিজের ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করে পদযাত্রায় অংশ নিতে সবাইকে আমন্ত্রণ জানান আরিফুর রহমান কনক।

এরপর বিষয়টি নজরে এলে তার এ কার্যক্রমে অংশ নিতে তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষ রেজিস্ট্রেশন করেছেন। তাদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব বীর মুক্তিযোদ্ধাও অনুপ্রাণিত হয়ে এ পদযাত্রায় অংশ নিচ্ছেন।

সবাইকে সঙ্গে নিয়ে শুক্রবার সকাল ৯টায় শুরু হওয়া পদযাত্রা ১১ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে বড়ালের প্রবেশমুখ সংলগ্ন একই উপজেলার জামনগর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে শেষ হবে।

নদ রক্ষায় ব্যতিক্রমী এ পদযাত্রার আয়োজন জেলাজুড়ে যথেষ্ট সাড়া ফেলেছে।

এ ব্যাপারে বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল কুমার রায় বলেন, তরুণদের বড়াল নদ রক্ষার এ আন্দোলন তাকে অনুপ্রাণিত করেছে। তাই তিনিও এ পদযাত্রায় অংশ গ্রহণ করছেন।

বড়াল নদ রক্ষায় বাবা-মেয়ের নীরব আন্দোলন

 বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি 
০৪ জুন ২০২১, ১২:২৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশ্ব পরিবেশ ও দৌড় দিবসকে ঘিরে নাটোরের বাগাতিপাড়ার আরিফুর রহমান কনক নামের এক বাবা ও তার মেয়ে নুসরাত জাহান কথা এক ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন।

ক্রমান্বয়ে শুকনো ফসলের মাঠে পরিণত হওয়া এক সময়ের খরস্রোতা বড়াল নদের ঐতিহ্য ফিরে পেতে ও পরিবেশ রক্ষায় বাবা-মেয়ে নদের পাড় বেয়ে পায়ে হেঁটে বাগাতিপাড়া অংশের ১১ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিচ্ছেন।

শুক্রবার সকাল ৯টায় বড়াল নদের পাড় সংলগ্ন বাগাতিপাড়া পাইলট মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে তারা হেঁটে যাত্রা শুরু করবেন। তাদের এ আন্দোলনে সাড়া দিয়ে প্রায় অর্ধশত তরুণ-তরুণীও এ পদযাত্রায় অংশ নিতে রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

এর আগে আরিফুর রহমান কনক মাদকের বিরুদ্ধে হেঁটে হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে আলোচিত হন। তিনি উপজেলার মালঞ্চি গ্রামের বাসিন্দা।

আরিফুর রহমান কনক জানান, আগামী ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও গত ২ জুন বিশ্ব দৌড় দিবস উপলক্ষে বড়াল নদ রক্ষার দাবিতে নিজের মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে তিনি নদের পাড় বেয়ে ১১ কিলোমিটার পদযাত্রার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এজন্য তিনি ‘বড়ালের জল আবার হোক টলমল’ স্লোগানকে সামনে রেখেছেন।

তিনি জানান, নদ তার জন্ম থেকে প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় দৌড়ে চলেছে কিন্তু মানুষ তার ভারসাম্য নাব্য সবই নষ্ট করে দিচ্ছে। যার কারণে নিজের বিবেকের তাড়নায় নদের ঐতিহ্য ফেরানোর দাবিতে নিজের মেয়ে নুসরাত জাহান কথাকে সঙ্গে নিয়ে হেঁটেই যাত্রা করছেন।

দ্রুত নদের সীমানা নির্ধারণ, খনন করে নদ রক্ষা, নদের ওপর নির্ভরশীল মানুষদের পাশে দাঁড়ানো ও পরিবেশ রক্ষাসহ কয়েকটি দাবিতে এ পদযাত্রার ঘোষণা দিয়ে গত ২৮ মে নদের পাড়ে দাঁড়িয়ে বাবা-মেয়ের তোলা ছবি নিজের ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করে পদযাত্রায় অংশ নিতে সবাইকে আমন্ত্রণ জানান আরিফুর রহমান কনক।

এরপর বিষয়টি নজরে এলে তার এ কার্যক্রমে অংশ নিতে তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষ রেজিস্ট্রেশন করেছেন। তাদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব বীর মুক্তিযোদ্ধাও অনুপ্রাণিত হয়ে এ পদযাত্রায় অংশ নিচ্ছেন।

সবাইকে সঙ্গে নিয়ে শুক্রবার সকাল ৯টায় শুরু হওয়া পদযাত্রা ১১ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে বড়ালের প্রবেশমুখ সংলগ্ন একই উপজেলার জামনগর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে শেষ হবে।

নদ রক্ষায় ব্যতিক্রমী এ পদযাত্রার আয়োজন জেলাজুড়ে যথেষ্ট সাড়া ফেলেছে।

এ ব্যাপারে বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল কুমার রায় বলেন, তরুণদের বড়াল নদ রক্ষার এ আন্দোলন তাকে অনুপ্রাণিত করেছে। তাই তিনিও এ পদযাত্রায় অংশ গ্রহণ করছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন